Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ জুলাই, ২০১৯ ২৩:২৭

আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্ত

বিদ্রোহীদের করা হবে বহিষ্কার

সমর্থনকারী এমপি-মন্ত্রীরা পাবেন শোকজ ধর্ষণ-নির্যাতন রোধে আইন পরিবর্তনে মত

রফিকুল ইসলাম রনি

বিদ্রোহীদের করা হবে বহিষ্কার

যেকোনো মূল্যে দলের শৃঙ্খলা ফেরাতে চায় টানা তিন মেয়াদে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। দলীয় পদে থেকে স্থানীয় সরকার নির্বাচনে যারা নৌকার বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছিলেন তাদের প্রথমে সাংগঠনিক পদ স্থগিত ও শোকজ পাঠানো হবে। এরপর করা হবে চূড়ান্ত বহিষ্কার। খুব শিগগিরই এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে। ফলে তৃণমূলে প্রায় পাঁচ শতাধিক নেতা স্থায়ী বহিষ্কার হতে যাচ্ছেন। একই সঙ্গে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বিপক্ষে যেসব এমপি-মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী বা আওয়ামী লীগের নেতা কাজ করেছেন, তাদের শোকজের (কারণ দর্শানো) চিঠি পাঠানো হচ্ছে। এ সিদ্ধান্তের কারণে অর্ধশত এমপি-মন্ত্রী দলীয় শাস্তির মুখে পড়তে পারেন বলে সূত্রগুলো জানিয়েছে। এসব এমপি-মন্ত্রীকে আগামীতে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হবে না। গতকাল রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদ ও উপদেষ্টা পরিষদের বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতেও দলের সিদ্ধান্ত অমান্য ও নৌকার বিরোধিতাকারীদের কঠিন খেসারত দিতে হবে। দলের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে সংগঠনকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি জনমত গঠনের প্রতিও গুরুত্ব দেবে দলটি। এজন্য কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের পাশাপাশি উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যদের আরও সক্রিয় হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিএনপি থেকে আওয়ামী লীগে যোগদানকৃত উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইনাম আহমেদ চৌধুরী প্রথম বৈঠকে যোগ দিয়েই বললেন, ‘আমি সগৃহে ফিরলাম’। বৈঠকে উপস্থিত একাধিক নেতা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠকে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, এইচটি ইমাম, মুহম্মদ জমির, ড. হোসেন মনসুর, মকবুল হোসেন, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, প্রচার সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদসহ উপদেষ্টা পরিষদ ও কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তৃতা করেন। বৈঠকে তৃণমূলে দলের শৃঙ্খলা ফেরানোর ওপরই গুরুত্ব দেন সিনিয়র নেতারা। বৈঠকে শোকাবহ আগস্টে মাসব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের কৌশল নির্ধারণ নিয়েও আলোচনা হয়। এ ছাড়া অক্টোবরে যথাসময়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলন ও মুজিববর্ষ উদযাপনের কৌশল নিয়ে আলোচনা হয়। জানা গেছে, এর আগে গত মার্চে অনুষ্ঠিত পাঁচ ধাপের উপজেলা নির্বাচনে প্রায় অর্ধশত এমপির বিরুদ্ধে প্রাথমিকভাবে অভিযোগ পাওয়া যায়। গত এপ্রিলে শোকজ করার কথা থাকলেও অধিকতর যাচাই-বাছাইয়ের জন্য সময় নেওয়া হয়। বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নেওয়ায় অধিকাংশ উপজেলায় বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতারা। এর মধ্যে নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে ১৪৩টি উপজেলায় জয় পেয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থীরা। এদের অনেকেই উপজেলা-জেলার শীর্ষ পদে আছেন। সূত্র জানায়, সারা দেশে নিজ দলের বিদ্রোহী প্রার্থী ও তাদের সহায়তাকারীদের শনাক্তে কাজ করবে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর গঠিত ৮টি সাংগঠনিক টিম। এসব টিমের সমন্বয়কারীদের দ্রুত অভিযুক্তদের নামের তালিকা চূড়ান্ত করে জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছেন শেখ হাসিনা। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দলীয় সিদ্ধান্তের বিরোধিতাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে। প্রথমে তাদের সাংগঠনিক পদ থেকে অব্যাহতি, শোকজ নোটিস এবং সর্বশেষ স্থায়ী বহিষ্কার করা হবে। খুব শিগগিরই এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হবে। এর আগে প্রধানমন্ত্রীর সূচনা বক্তব্যের পর রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কারসহ কঠোর শাস্তি দাবি করে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান। যারা দলীয় পদবী ধারণ করে বিদ্রোহীদের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সহায়তা করেছেন এমন মন্ত্রী, এমপি ও নেতাদেরও কঠোর শাস্তি দাবি করেন তিনি। আব্দুর রহমানের বক্তব্যের সঙ্গে একমত পোষণ করে দলের আরেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবীর নানক দলীয় সভানেত্রীর উদ্দেশে বলেন, এসব বিদ্রোহী ও তাদের সহায়তাকারীদের শাস্তি নিশ্চিত করতে না পারলে ভবিষ্যতে অন্যরা উৎসাহিত হতে পারে।

নেতাদের বক্তব্য শেষে দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিদ্রোহী প্রার্থীদের স্থায়ী বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত দেন। একই সঙ্গে যারা এসব বিদ্রোহীদের সহায়তা করেছেন এমন পদধারী নেতাদের কেন বহিষ্কার করা হবে না তা জানতে চেয়ে শোকজ নোটিস পাঠানোর সিদ্ধান্তও দেন তিনি। এ সময় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, উপজেলা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীদের যারা প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ ইন্ধন ও মদদ দিয়েছেন তাদেরকে সাসপেন্ড (বহিষ্কার) করা হবে। তবে ১৫ দিনের সময় বেঁধে দিয়ে তাদের শোকজ করার নির্দেশ দিয়েছেন শেখ হাসিনা। এই সিদ্ধান্তে প্রধানমন্ত্রীর অনড় অবস্থানের কথা তুলে ধরে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া দলীয় নেতাদের কোনো রকম ছাড় দেওয়া হবে না বলে জানা গেছে। সভায় উপস্থিত নেতারা জানান, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা, উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য, মন্ত্রী, এমপি, জেলা-উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক সবাইকেই সাসপেন্ডের আওতায় আনা হবে। মন্ত্রী-এমপি বলে তাদের ক্ষমা করা যায় কী না-  বৈঠকে এই প্রশ্ন উঠে এলে শেখ হাসিনা বলেন, শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ থাকলে সে যত বড় নেতাই হোক শাস্তির আওতায় আসতেই হবে। এখানে কে মন্ত্রী, কে বড় নেতা, কে প্রভাবশালী, কে এমপি তা দেখার কোনো সুযোগ নেই বলে জানান দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠক সূত্র জানায়, উপজেলাসহ স্থানীয় সরকার নির্বাচনে নৌকার বিরুদ্ধে যারা দাঁড়িয়েছেন তাদের প্রথমে দলের সবস্তরের পদপদবী থেকে অব্যাহতি দেওয়া হবে। তারপর স্থায়ী বহিষ্কার করা হবে। এ ক্ষেত্রে যারা উপজেলায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, তাদের বহিষ্কারের পর ১ নম্বর সহ-সভাপতিকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদককে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হবে। আগামীতে তারা যেন কোনোভাবেই পদে আসতে না পারে সে ব্যাপারে কঠোর নজরদারি করা হবে। একই সঙ্গে যেসব এমপি-মন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় বা স্থানীয় নেতা বিদ্রোহীদের মদদ দিয়ে নৌকার বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়েছিলেন কেন তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না- ব্যাখ্যা চেয়ে শোকজ পাঠানো হবে। তাদের সাতদিন সময় দিয়ে সন্তোষজনক উত্তর না পাওয়া গেলে বহিষ্কার করা হবে। এমপি-মন্ত্রীদের কোনো কারণে বহিষ্কার করা না হলেও আগামীতে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হবে না বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সূত্র মতে, বৈঠকে ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতন রোধে চলমান আইনের সংশোধনী আনার প্রস্তাব করেন দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ। তারা বলেন, আইনটি আরও যুগোপযোগী করতে হবে। ধর্ষণ ও শিশু নির্যাতনের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ- করতে হবে। এ বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। আমরা সিরিয়াস সিদ্ধান্ত নেব। কাউকে ছাড় দেওয়া যাবে না।


আপনার মন্তব্য