Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ আগস্ট, ২০১৯ ২৩:৪৩

প্রত্যাবাসনে শর্ত বাড়াচ্ছে রোহিঙ্গারা

ব্যর্থতার পর আন্তর্জাতিক তৎপরতা, শর্তের বেড়াজালকে বাহানা বলছেন অনেকেই

জুলকার নাইন ও আয়ুবুল ইসলাম, কক্সবাজার থেকে

প্রত্যাবাসনে শর্ত বাড়াচ্ছে রোহিঙ্গারা
মিয়ানমারে ফেরার ইচ্ছে নেই রোহিঙ্গাদের। টেকনাফের শালবন ক্যাম্প থেকে গতকাল তোলা ছবি -রোহেত রাজীব

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যেতে অনীহা প্রকাশের পর একের পর এক শর্ত দিচ্ছে। উত্থাপন করা হচ্ছে নতুন নতুন দাবি। প্রত্যাবাসনের দিনক্ষণ ঘোষণার পর থেকে প্রায় এক সুরে দাবি জানাচ্ছিল তারা। প্রতিদিনই এই কোরাসে যুক্ত হচ্ছে নতুন কিছু। সর্বশেষ গতকাল যুক্ত হয়েছে মিয়ানমারের বিভিন্ন স্থান থেকে বাস্তুচ্যুত হয়ে আইডিএফ ক্যাম্পে থাকা ১ লাখ ৮০ হাজার রোহিঙ্গাকে মুক্তির শর্ত। এর আগে রোহিঙ্গাদের পক্ষ থেকে পূর্ণ নাগরিকত্ব, মর্যাদা, রাখাইন রাজ্যে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মোতায়েনসহ অন্যান্য শর্তের কথা জানানো হয়। বলা হয়, এসব দাবির একটিও না মানলে তারা মিয়ানমারে ফিরে যাবে না। ক্যাম্পগুলোতে মানবিক সহায়তা ও অন্যান্য সেবা প্রদানকারী বেসরকারি সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরা এসব দাবির যৌক্তিকতার ব্যাখ্যাও দিচ্ছেন নানাভাবে। কিন্তু স্থানীয়দের বড় একটি অংশ মনে করে, ফেরত না যাওয়ার বাহানা হিসেবেই একের পর এক শর্তের বেড়াজাল তৈরি করছে রোহিঙ্গারা। আর বিদেশি এনজিওগুলো যে রোহিঙ্গাদের ফেরত না যাওয়ার ইন্ধন জোগাচ্ছে স্থানীয়দের এমন দাবির সঙ্গে একমত সরকারের শীর্ষস্থানীয় মহলও। কক্সবাজার বাঁচাও আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আয়াছুর রহমান বলেন, এসব দাবি রোহিঙ্গাদের জানা ছিল না। কিছু দাতা সংস্থা, এনজিও ও স্থানীয় কুচক্রী মহল তাদের এসব শিখিয়ে দিচ্ছে। সুজনের কক্সবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান বলেন, তারা এখানে যে সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে, ফ্রি খাবার, রেশন সুবিধা- এসব কারণে তারা অজুহাত সৃষ্টি করছে, যাতে তাদের ফেরত যেতে না হয়।

কক্সবাজারের বিভিন্ন রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন ও দেশি-বিদেশি সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গার বেশির ভাগ প্রবেশ করেছে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট। এরপর জাতিসংঘসহ নানা সংস্থার নানা উদ্যোগের পর বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সরকারের আলোচনায় রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের সিদ্ধান্ত হয়েছিল। ২০১৮ সালের ২৩ জানুয়ারি প্রত্যাবাসন শুরুর কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা আর হয়নি। রোহিঙ্গারা তখন প্রত্যাবাসনের জন্য আট দফা শর্ত দেয়। এর মধ্যে ছিল- নাগরিকত্ব, নিরাপত্তা, বাড়িঘর জমি ফেরত পাওয়ার নিশ্চয়তার মতো বিষয়। শর্ত পূরণের দাবি জানিয়ে সেসময় বিক্ষোভ করেছিল আরাকান রোহিঙ্গা হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস সোসাইটি নামের একটি সংগঠন। এবার আবারও ২২ আগস্ট প্রত্যাবাসনের সম্ভাব্য তারিখ মিয়ানমারের পক্ষ থেকে প্রকাশের পর রোহিঙ্গা নেতারা পাঁচটি সুনির্দিষ্ট শর্ত পূরণ না হলে কেউ ফিরবে না বলে জানান। পাঁচটি দাবির একটি তালিকা সম্বলিত লিফলেট প্রচার করে ভয়েস অব রোহিঙ্গা নামের একটি সংগঠন। লিফলেটে শর্ত বা দাবির বিষয়গুলো সম্পর্কে বলা হয়- ১. রোহিঙ্গারা আরাকানের স্থানীয় আদিবাসী এবং সে জন্য তাদের নেটিভ স্ট্যাটাস বা স্থানীয় মর্যাদা সংসদে আইন করে পুনর্বহাল করতে হবে, যার আন্তর্জাতিক গ্যারান্টি থাকতে হবে। ২. নাগরিকত্বের ক্ষেত্রে প্রথমত, আরাকান রাজ্যে বসবাসরত রোহিঙ্গাদের সিটিজেন কার্ড দিতে হবে। দ্বিতীয়ত, বাংলাদেশের ক্যাম্পে থাকা রোহিঙ্গা শরণার্থীদেরও সিটিজেনশিপ কার্ড দিয়ে প্রত্যাবাসন করে স্থানীয় নাগরিক মর্যাদা দিতে হবে। তৃতীয়ত, একই সঙ্গে বিশ্বের অন্যান্য জায়গায় থাকা রোহিঙ্গাদের সিটিজেনশিপ কার্ড দিয়ে স্থানীয় নাগরিক মর্যাদা দিতে হবে। ৩. প্রত্যাবাসনের ক্ষেত্রে রোহিঙ্গাদের তাদের নিজস্ব গ্রামে ফিরিয়ে নিতে হবে এবং তাদের কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া জমিজমা যথাযথ ক্ষতিপূরণসহ ফেরত দিতে হবে। ৪. নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আরাকানে রোহিঙ্গাদের জীবন ও সম্পদ রক্ষার জন্য রোহিঙ্গা পুলিশ বাহিনীর সঙ্গে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনী মোতায়েন করতে হবে। ৫. জবাবদিহিতা-মিয়ানমারে স্থানীয় আদালতের পরিবর্তে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত বা আইসিসির মতো কোনো ইন্টারন্যাশনাল ট্রাইব্যুনালে অপরাধীদের বিচার করতে হবে। এরপর প্রত্যাবাসন শুরুর সাক্ষাৎকার শুরু হলে নতুন নতুন শর্ত সামনে আনা হয়। এ শর্তের সংখ্যা দাঁড়ায় সাতে। সর্বশেষ গতকাল নতুন দাবি বা শর্তে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের আকিয়াব এবং ইয়াঙ্গুন প্রদেশের তিনটি ক্যাম্পে থাকা ১ লাখ ৮০ হাজার রোহিঙ্গাকে মুক্তভাবে চলাচলের সুযোগ করে দিতে হবে। এসব পূরণ না হলে কেউই ফিরতে রাজি হবে না। রোহিঙ্গাদের এসব শর্ত আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনও বলেছেন, রোহিঙ্গারা যাতে ফেরত না যায় সে জন্য একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে। রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে বিভিন্ন ধরনের প্রচারণা চলছে, ফ্লাইয়ার দিয়েও ক্যাম্পেইন চালানো হচ্ছে। এমন অবস্থায় মনে হচ্ছে, একটা মহল রোহিঙ্গারা যাতে না যায় তার জন্য ফন্দি-ফিকির করছে। তবে দীর্ঘ মেয়াদে এসব ফন্দি-ফিকির কাজ করবে না। তিনি গতকাল ঢাকার একটি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ শেষে সাংবাদিকদের আরও বলেন, বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের এখন পর্যন্ত অনেক ভালোভাবে দেখাশোনা করেছে। কিন্তু তাদের ভবিষ্যতে এভাবে রাখা সম্ভব হবে না। এ ছাড়া আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও সাহায্য-সহযোগিতার মাত্রা কমিয়ে দিয়েছে। আগামীতে আরও কমবে। এরই মধ্যে আড়াই হাজার কোটি টাকা বাংলাদেশের পকেট থেকে দেওয়া হয়েছে। আর এমন সম্ভব নয়। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে ১৩০টিরও বেশি আন্তর্জাতিক বেসরকারি সংস্থা কাজ করছে। এরা বিভিন্ন ধরনের বায়নার কথাও তুলেছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে বলব, তারা যেন মিয়ানমারে যায়। এ জন্য একটি কমিশন করা যেতে পারে। কমিশন, জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা এবং অন্যান্য সবার এখন কাজ হচ্ছে মিয়ানমারে যাওয়া। সেখানে গিয়ে রোহিঙ্গাদের জন্য অনুকূল পরিবেশ নিশ্চিত করা। আমাদের এখানে তাদের আর কাজ নেই। সেখানে যদি তাদের প্রবেশ করতে না দেয় তাহলে আমি বলব তারা মিয়ানমারের সঙ্গে ব্যবসা করে কেন? যুক্তরাষ্ট্রে মিয়ানমার এখনো জিএসপি সুবিধা পায় কেন? আমি বলব, জাতিসংঘ রোহিঙ্গা ইস্যুতে কিছু ভুল করেছে। তবে এখন সবাইকে নতুন করে ভাবতে হবে।

নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা : রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আজ (মার্কিন সময় শুক্রবার) নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে আলোচনা হওয়ার কথা। গত বুধবার রাতে যুক্তরাজ্যসহ কয়েকটি দেশের অনুরোধে প্রত্যাবাসন নিয়ে সেখানে একটি রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়। আলোচনার পর জাতিসংঘে যুক্তরাজ্যের রাজনৈতিক সমন্বয়ক স্টিফেন হিকি বলেন, মিয়ানমারে জটিল সময় চলছে। আগামী দিনগুলোতে আমরা বাংলাদেশ থেকে মিয়ানমারে প্রত্যাবাসন চুক্তি বাস্তবায়ন দেখার আশায় আছি। আমরা মনে করি, প্রত্যাবাসন স্বেচ্ছায়, নিরাপদ ও সম্মানজনক হওয়া গুরুত্বপূর্ণ। আমরা সন্তুষ্ট যে ইউএনএইচসিআর মাঠে আছে। তারা বাংলাদেশ ও মিয়ানমার দুই দেশের সঙ্গেই কথা বলছে। তিনি বলেন, মাঠপর্যায়ে ওই তিনটি নীতি অনুসরণ করা নিশ্চিত করতে নিরাপত্তা পরিষদের কাজ করা উচিত। আমার মনে হয়, এটি নিশ্চিত করার জন্য নিরাপত্তা পরিষদের জোরালো সমর্থন আছে। অন্যদিকে রাশিয়ার উপস্থায়ী প্রতিনিধি দিমিত্র পলিয়ানস্কি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, যে কোনো দীর্ঘ যাত্রার শুরু হয় প্রথম ধাপ থেকে। প্রথম ধাপটি শুরু করা প্রয়োজন। ফেরার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার দায়িত্ব তাদের (রোহিঙ্গাদের)। যদি তারা ফিরতে চায় তবে তাদের ফিরতেই উৎসাহিত করা উচিত। তাদের নিরুৎসাহ করার দরকার নেই।

মিয়ানমারকে অভয় দিল চীন : রোহিঙ্গা নিয়ে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ ঠেকাতে পাশে থাকার কথা জানিয়েছে চীন। মিয়ানমারের নির্বাসিত নাগরিকদের গণমাধ্যম ইরাবতির খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের রাজধানী নেপিদোতে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইংয়ের সঙ্গে এক সাক্ষাতে এ অভয় বাণী দেন চীনা দূত চেন হাই। চীনা দূত ও মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের মধ্যে বৈঠকের পর এক যৌথ বিবৃতি প্রকাশ করেছে মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের কার্যালয়। এতে বলা হয়েছে, চীনা রাষ্ট্রদূত তিনটি বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। এগুলো হলো- রোহিঙ্গা ও মানবাধিকার বিষয়ে মিয়ানমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপের বিরুদ্ধে বেইজিংয়ের অবস্থান; মিয়ানমারের উত্তরাঞ্চলীয় শান রাজ্য ও মান্দালায় অঞ্চলের গ্যারিসন শহরে সহিংস হামলা ও জাতিগত বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে সম্ভাব্য শান্তি আলোচনা এবং মিয়ানমার সরকারের গৃহীত শান্তি প্রক্রিয়ায় চীনের সহায়তা অব্যাহত রাখা।


আপনার মন্তব্য