Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৭ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪০

৯০০ কোটি টাকা পাচার, দুই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক

৯০০ কোটি টাকা পাচার, দুই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা

দুই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ৮৭০ কোটি ৮৬ লাখ টাকা পাচারের অভিযোগে ১৫টি মামলা করেছে শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতর। হেনান আনহুই এগ্রো এলসি এবং এগ্রো বিডি অ্যান্ড জেপি নামের এ প্রতিষ্ঠন দুটির মালিক আবদুল মোতালেব। শুল্ক গোয়েন্দার পক্ষে বিটন চাকমা ও শামসুল নাহার বৃহস্পতিবার পল্টন মডেল থানায় এ মামলাগুলো করেন। পল্টন মডেল থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সেলিনা খাতুন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, আনহুই এগ্রো এলসি এবং এগ্রো বিডি অ্যান্ড জেপি ১২টি কনটেইনারের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বন্দরে পোল্ট্রি ফিডের ক্যাপিটাল মেশিনারি ঘোষণায় আমদানি নিষিদ্ধ ও আমদানি নিয়ন্ত্রিত পণ্য খালাসের চেষ্টা করায় তা আটক করা হয়। এরপর তা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংস্থার উপস্থিতিতে ইনভেনটরি করে কনটেইনারগুলোতে বিপুল পরিমাণ সিগারেট, এলইডি টেলিভিশন, ফটোকপিয়ার মেশিন ও মদ পাওয়া যায়। এর পরিপ্রেক্ষিতে পল্টন মডেল থানায় ২০১৭ সালের ২৭ নভেম্বর ‘মানি ল্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ (সংশোধনী ২০১৫)’ এর ধারা ৪ ও ৮ অনুযায়ী মামলা করা হয়। পরবর্তীতে অনুসন্ধানে দেখা যায়, আমদানিকারক ছয়টি কনটেইনারের মালামাল আটকের আগেই হেনান আনহুই এগ্রো এলসি ৩২টি এবং এগ্রো বিডি অ্যান্ড জেপি ৪৬টি কনটেইনার পণ্য মেশিনারিজ ঘোষণায় ১৫টি এলসির বিপরীতে পণ্য খালাস নিয়েছে। আমদানিকারক মেসার্স হেনান আনহুই এগ্রো এলসি ও এগ্রো বিডি অ্যান্ড জেপি নামের প্রতিষ্ঠান দুটি অস্তিত্বহীন এবং ২০১৭ সালের ২৭ নভেম্বর দায়ের করা মামলার সঙ্গে  আটক করা পণ্যের অনুরূপ একই রপ্তানিকারক, একই কান্ট্রি অব অরিজিন, একই সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট, একই ব্যাংকের মাধ্যমে আমদানি করা হয়েছে, সেহেতু এটাই সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করে যে, আলোচ্য ১৫টি বিল অব এন্ট্রি এবং ১৫টি এলসির মাধ্যমে অর্থ পাচার, অবমূল্যায়ন ও শুল্ক ফাঁকির মাধ্যমে লাভবান হওয়ার উদ্দেশ্যে সিগারেট, এলইডি টেলিভিশন, ফটোকপিয়ার মেশিন ও মদ আমদানি করা হয়েছে বলে দায়ের করা এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। এজাহারে মেসার্স হেনান আনহুই এগ্রো এলসির বিরুদ্ধে ছয়টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ৪৩৯ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৪৯৯ টাকা এবং মেসার্স এগ্রো বিডি অ্যান্ড জেপির বিরুদ্ধে ৯টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ৪৩১ কোটি ৭৫ লাখ ৪৯ হাজার ৮৮৩ টাকা পাচারের অভিযোগ আনা হয়েছে। অর্থাৎ দুই প্রতিষ্ঠান পাচার করেছে ৮৭০ কোটি ৮৬ লাখ ২১ হাজার ৩৮৩ টাকা।


আপনার মন্তব্য