শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ নভেম্বর, ২০১৯ ২৩:১৫

ভারতের প্রতি সুপ্রিম কোর্টের আনুকূল্য

এম জে আকবর

ভারতের প্রতি সুপ্রিম কোর্টের আনুকূল্য

সুপ্রিম কোর্ট ভারতকে একটা আনুকূল্য দিয়েছে। রাজনৈতিক টেবিল থেকে আবেগাত্মতাকে সরিয়ে নিয়েছে। জনসাধারণ এখন স্বস্তিতে থাকবে। ব্যতিক্রম বাদে, রাজনৈতিক মহলগুলো আদালতি এই পদক্ষেপের পূর্ণপ্রভাব বা পরিণতিটা কিছুদিন পরই উপলব্ধি করবে। অতীত হচ্ছে বিপজ্জনক এক জায়গা। এক বিপুল ভূমি স্মৃতিকাতরতায় আকীর্ণ মাইন-পোঁতা স্থলভাগের মতো। আমাদের মানসিকতার কিছু উপকরণ আমাদের বিপদ সংকুল এলাকায় গেঁথে রাখে। মাইনগুলোয় যখন ঠেসে দেওয়া হয় বিশ্বাস, তখন তার বিস্ফোরণ-ক্ষমতা কয়েকগুণ বেড়ে যায়। ইতিহাস থেকে পাওয়া আমাদের জটিল উত্তরাধিকার এবং প্রায় দুই শতকের ঔপনিবেশিক নীতির মাধ্যমে সঞ্চারিত বিষবাষ্পে দুর্বল হয়ে পড়া জীবনধারার কারণে ধর্ম এখানে সামাজিক সম্প্রীতির উৎস হতে পারেনি। ধর্মকে প্রায়শই অভ্যন্তরীণ সংঘাতের কারণ হতে দেখা যায়। কিন্তু আবেগকে তো জনজীবন থেকে সব সময় ছেঁটে দেওয়া চলে না। তাকে মোকাবিলা করার একটা পন্থা হলো, আমাদের সভ্যতাবোধের ভিত্তিতে উচিত কাজটা করে ফেলা। ১৯২০ সালে ভারতের প্রথম জাতীয়তাবাদী গণউত্থানের আগে মহাত্মা গান্ধী ওটাই করেছিলেন। তিনি মুসলিম ইমাম ও নেতাদের কাছ থেকে ওয়াদা আদায় করেছিলেন যে তারা গো-হত্যা অবসানের উদ্যোগকে সমর্থন করবেন। অসহযোগ আন্দোলন আর খেলাফত আন্দোলন একীভূত করার জন্য এটাই ছিল গান্ধীর শর্ত। গো-মাংস খাওয়া নিষিদ্ধ করা হবে- এরকম ধারণা তিনি দিতে চাননি; হিন্দুত্ববাদের মৌলিক একটা ব্যাপারে ভারতবাসীর একাংশের আবেগাত্মক যে দৃষ্টিভঙ্গি তাকে মুসলমানরা সম্মান করবে, মহাত্মা এটাই চেয়েছেন। ঐক্য সম্বন্ধে মহাত্মা গান্ধীর যে দর্শন তাতে শ্রদ্ধাবোধের বিষয়টি নানাভাবে বর্ণিত হয়েছে। গোলযোগ-বিঘিœত অতীত ছাপিয়ে অভিন্ন ভবিষ্যৎ নির্মাণের লক্ষ্যে তাৎপর্যময় একটা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে ৯ নভেম্বর। রোডম্যাপ চূড়ান্ত করেছে সুপ্রিম কোর্টের বেঞ্চ, যার ভূমিকা ভারতের ইতিহাসের উজ্জ্বল একটি অধ্যায় হয়ে উঠবে। বেঞ্চের পাঁচ বিচারপতি তিন ধর্মবিশ্বাসের প্রতিনিধিত্ব করলেও তাদের রায় ছিল সর্বসম্মত। এরা হলেন : ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ, বিচারপতি এস এ ববড়ে, ডি. ওয়াই চন্দ্রচূড়, অশোক ভূষণ ও আবদুল নাজির। পাঁচজনের অভিন্ন রায় যদি ‘সৌভাগ্যজনিত কাকতাল’ হয়ে থাকে, তবে তাই হোক। ভারতীয় সব পরিপ্রেক্ষিতকে বিবেচনায় এনে যদি তারা সচেতন সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন, তাহলে বিচক্ষণতারই বিজয় ঘটল। বেঞ্চের ঐকমত্য শক্তিশালী একটা বার্তা দিয়েছে। ভারতীয়রা কোনো গাঁই-গুঁই না করে এ রায় মেনে নিয়েছে।

প্রধান বিচারপতি গগৈ রায় পাঠ করেছেন; এটা যথাযথ হয়েছে। সমস্যার অবসান ঘটানোর জন্য খুবই নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করেন। তবে আমাদের মধ্যে এই বিভ্রান্তি যেন না আসে যে, রামমন্দির বিতর্কের গভীর ছায়া নিঃশেষ হয়ে গেছে। বিচারপতি গগৈ সেই প্রবচনটি নিশ্চয়ই জানেন, যাতে বলা হয়েছে ‘যে আগুন নিভে গেছে মনে করা হয় সে আগুনের মতো ভয়ঙ্কর আগুন আর কিছুই নয়।’

ধর্মকে অযৌক্তিক বিষয় বলে উড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা সংগত নয়। ধর্ম নিজেই যুক্তির ভিত্তিতে চলে। মানব মনের গহিনে যে সব মৌলিক প্রশ্নের উত্তর মেলে না, সে সব প্রশ্নের উত্তর দেয় ধর্ম। জীবন ও মৃত্যুর অর্থ ব্যাখ্যা করে। অলৌকিক চক্রের একটি দুর্ঘটনার রূপান্তরই জীবন। মৃত্যুতেই জীবনের সমাপ্তি, এমনটা কোনো ধর্মই বলে না। বলে, মরণ হলো অস্তিত্বের আরেক উত্তরণ মাত্র। মার্কসবাদীরা ধর্মকে ‘মানুষের উদ্ভাবন’ বলে উড়িয়ে দেয়। বিশ্বাসীরা মনে করে, মানবিক বোধবুদ্ধির অতীত বিশ্ব গড়ার স্থপতি হলেন ঈশ্বর। পৃথিবীর বুকে মানুষের সংক্ষিপ্ত জীবনকে অনন্তকালের জীবনের মহিমান্বিত করে তোলার পথ নির্দেশ করে ধর্ম। ঈশ্বরের অস্তিত্বের যৌক্তিক কোনো প্রমাণ নেই বটে তবু শতকরা ৯৯ ভাগ (যদি এর বেশি নাও হয়) ভারতীয় নিশ্চিত যে ঈশ্বর আছেন এবং তিনি সর্বস্রষ্টা। হিন্দু ও খ্রিস্টানদের বিশ্বাস, অনাচার থেকে মুক্তি অর্জনের পথনির্দেশ করার জন্য মানুষের রূপধারণ করে ধরাধামে নেমে আসেন ঈশ্বর। মুসলমান ও ইহুদিরা বরণ করেছে তওহিদ মতবাদ, অর্থাৎ নিরাকার স্রষ্টায় বিশ্বাস। তবে আমরা সবাই কোনো না কোনোভাবে স্বীকার করি যে, দুনিয়ার মালিক সর্বশক্তিমান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন। যারা বিশ্বাস করে যে, ঈশ্বর জন্ম নিয়েছেন তারা ঈশ্বরের জন্মস্থানকে শ্রদ্ধাবনত হয়ে সম্মান করে। এতে যুক্তি আছে। তাই, যিশুর জন্মস্থান বেথলেহেম খ্রিস্টান তীর্থযাত্রীর পুণ্যভূমি, দূরের জেরুজালেম শহরও তা-ই। ওখানে যিশুকে ক্রুশবিদ্ধ করা হয়েছে, মনে করা হয়। এ দুটি জায়গায় (মাঝখানের ক্রুসেডারদের হস্তক্ষেপকাল বাদ দিয়ে) ১৫০০ বছর ধরে মুসলমান বা ইহুদিদের শাসন জারি ছিল। কেউই সেখানে তীর্থযাত্রায় বাধা দেয়নি। বাধা দিলে তা হতো বর্বরোচিত সহাবস্থানের সভ্য নীতিমালার বরখেলাপ। সেকালে ‘ক্রুসেড’ নামে রক্তক্ষয়ী যেসব যুদ্ধ হয়, তা কিন্তু সাম্রাজ্য বিস্তারের জন্য হয়নি, হয়েছিল ‘তীর্থ স্থানগুলো’ নিয়ন্ত্রণের জন্য। ঈশ্বরের জন্মস্থানে গিয়ে তার প্রতি শ্রদ্ধাবনত হওয়ার বাধ্যবাধকতা সব ধর্মেই রয়েছে। দেবতাকে বৈধতা দিয়ে দেবতার জন্মভূমিতে যাওয়ার অলঙ্ঘনীয় অধিকার স্বীকার করার মধ্য দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট ভারতকে এগিয়ে যাওয়ার পথ করে দিয়েছে।

নির্বাচনী মৌসুমের প্রচার-প্রচারণায় আবেগভিত্তিক বিষয়গুলো গুরুত্বপূর্ণ নিয়ামক হয়ে উঠলে, ভোটারদের প্রধান বিচার্য বিষয়টাই সংকুচিত হয়ে পড়ে। বিষয়টি হলো : সুশাসন। সাচ্চা গণতন্ত্রের ক্ষেত্রে এটাই সত্য; ভারত থেকে কয়েক হাজার মাইল দূরের সুকঠিন ঠোঁট আঁটুনির দেশটির ক্ষেত্রেও। মৌলিক সত্যটা সোজাসুজি এরকম : গ্রহণীয় ও বিশ্বাসযোগ্য প্রক্রিয়ায় আমরা যদি আবেগাত্মতার অবসান না ঘটাই তাহলে আবেগাত্মতাই দেশটাকে খেয়ে ফেলবে। ভারতীয় গণতন্ত্র এখন সরকারের যোগ্যতা-সক্ষমতা বাড়ানোর প্রচেষ্টাকে ঘিরে আবর্তিত হতে পারবে, নাগরিকদের জন্য এটা চমৎকার একটি সংবাদ। ধর্মের সঙ্গে ধর্মের সংঘাত অতীতে ভারতের ঐক্যের ওপর গুরুতর আঘাত হেনেছে। বিষয়টি আধুনিক ভারতের ভবিষ্যতের জন্য প্রধান অন্তরায় হয়ে থেকেছিল। পরিস্থিতিটা ভারতের জন্য হুমকি না হলেও আধুনিকতার প্রতি অবশ্যই। মহাত্মা গান্ধী সব ধর্মের মানুষের জীবনমান উন্নয়ন, ব্যক্তিস্বাধীনতা ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠা, গরিবের চেয়েও গরিবদের অর্থনৈতিক মুক্তি ও নারীর সামাজিক অধিকার নিশ্চিতকরণের ভিত্তিতে রামরাজ্য গড়তে চেয়েছিলেন। আধুনিকতার মন্ত্রও এই উন্নয়ন প্রত্যাশী। সে জন্যই, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সুপ্রিম কোর্টের রায় ঘোষণার পর বলেন, ‘এই রায়কে কারও জয়-পরাজয় হিসেবে দেখা উচিত নয়। রামভক্তি বা রহিমভক্তি যা-ই বলা হোক, এখন আমাদের সবার ভারতভক্তি জোরদার করার সময় এসেছে।


আপনার মন্তব্য