শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ ডিসেম্বর, ২০১৯ ২৩:০৯

জনগণের সম্পদ দখলকারীদের সুখে রাখব না

নিজস্ব প্রতিবেদক

জনগণের সম্পদ দখলকারীদের সুখে রাখব না

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, যারা দুর্নীতির মাধ্যমে জনগণের অর্থ-সম্পদ লুণ্ঠন করেছেন, দেশে এমনকি বিদেশে পালিয়ে গেলেও তাদের সুখে থাকতে দেব না। দুদক তাদের পেছনে নিত্য তাড়া করবে, করবেই। তিনি বলেন, মাত্র গুটিকয় দুর্নীতিবাজ মানুষের কাছে পরাজয়ের কোনো সুযোগ নেই। দুর্নীতিবাজদের আইনের মুখোমুখি করা হচ্ছে এবং করা হবে। আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস-২০১৯ উপলক্ষে গতকাল বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় অনুষ্ঠিত সততা সংঘের সমাবেশের সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, দুর্নীতি শুধু বাংলাদেশের একক সমস্যা নয়, এটি বৈশি^ক সমস্যা। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, এ জাতীয় সমস্যা একক প্রচেষ্টায় নির্মূল করা কঠিন।

দুদকের মতো একটি প্রতিষ্ঠান একা যুদ্ধ করে দুর্নীতি হয়তো কাক্সিক্ষত মাত্রায় বন্ধ করতে পারবে না। তাই দুর্নীতির বিরুদ্ধে সব শ্রেণি- পেশার মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তিনি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন,   তোমাদের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের প্রত্যাশায় আমরা দুর্নীতি প্রতিরোধ ও দমনে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আমরা চাই দুর্নীতিমুক্ত সরকারি পরিষেবা, দুর্নীতিমুক্ত সমাজ। তোমরাই নেতৃত্ব দেবে শোষণহীন ও দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশের। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান বলেন, দুর্নীতি রোধ করতে হলে নাগরিকদের মধ্যে দুর্নীতিবিরোধী মনোভাব জাগ্রত করতে হবে। এর আগে সকালে দুদক চেয়ারম্যান জাতীয় পতাকা এবং কমিশনের পতাকা উত্তোলন করেন। পরে পায়রা ও ফেস্টুন উড়িয়ে দিবস উদ্বোধন করেন। এ সময় দুদক কমিশনার এএফএম আমিনুল ইসলামসহ কমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধনের পর কমিশনের মিডিয়া সেন্টারে রক্ষিত রেজিস্টারে দুর্নীতিবিরোধী গণস্বাক্ষর কর্মসূচি এবং পোস্টার ও কার্টুন প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন ইকবাল মাহমুদ। রেজিস্টারটি ১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত জনগণের স্বাক্ষরের জন্য দুুদক মিডিয়া সেন্টারে উন্মুক্ত রাখা হবে। পরে দুদকের উদ্যোগে দুর্নীতিবিরোধী মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। মৎস্য ভবন থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউট হয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি রমনা পার্ক মোড়ে শেষ হয়। এ কর্মসূচিতে ঢাকা মহানগর দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য, গার্ল গাইডস, বয়েজ স্কাউট, সততা সংঘের সদস্য, আনসার, বিএনসিসি, বিভিন্ন এনজিও, ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর, এনজিওবিষয়ক ব্যুরো, ঢাকা জেলা প্রশাসনসহ নগরীর সর্বস্তরের কয়েক হাজার মানুষ অংশ নেয়। দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায় একই সময়ে দুর্নীতিবিরোধী এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মানববন্ধন শেষে বেলা ১১টায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে তরুণ প্রজন্মের প্রতিনিধি শিক্ষার্থী ও সততা সংঘের সদস্যদের সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।


আপনার মন্তব্য