শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:৫৫

যে কারণে আটকে ইসির প্রশিক্ষণের টাকা

ব্যয়ের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন, ভবিষ্যতে রক্ষায় ৫ দফা শর্তারোপ

মানিক মুনতাসির

যে কারণে আটকে ইসির প্রশিক্ষণের টাকা

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) প্রশিক্ষণ খাতের ৩৩ কোটি টাকা আটকে দিয়েছে অর্থ বিভাগ। সেই সঙ্গে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে প্রশিক্ষণ ব্যয়ের ক্ষেত্রে পাঁচ দফা শর্তারোপ করেছে। এ ছাড়া ভবিষ্যতে এ ধরনের ব্যয়ের ক্ষেত্রে পিপিআর মেনে চলার তাগিদ দেওয়া হয়েছে। গত ৯ জানুয়ারি অর্থ বিভাগের এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের প্রশিক্ষণ শিডিউলের প্রতিটি প্রশিক্ষণের বিপরীতে যে ব্যয় দেখানো হয়েছে তার পুরোটা অনুমোদনযোগ্য নয়। এসব অযৌক্তিক ব্যয় যুক্ত করায় প্রশিক্ষণ ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। নির্দেশনায় প্রশিক্ষণের সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত নয় এমন আইটেম বাদ দিয়ে প্রশিক্ষণ খাতের প্রকৃত ব্যয়ের তালিকা করে চাহিদাপত্র পাঠাতে বলা হয়েছে। জানা যায়, চলতি বছরের শুরুতে নির্বাচন কমিশন ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের বাজেট থেকে ৩৩ কোটি ৭৫ লাখ ৩৯ হাজার ৯৫০ টাকা চায়। এর মধ্যে অন্তত ১৩ কোটি ৭৫ লাখ ৩৯ হাজার ৯৫০ টাকা ব্যয়ের কোনো যৌক্তিকতা নেই বলে মনে করে অর্থ বিভাগ। বিভাগটির পর্যবেক্ষণে এ খাতে ব্যাপক অনিয়ম হতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে। এজন্য ভবিষ্যৎ প্রশিক্ষণ ব্যয় মেটাতে চলতি অর্থবছর এ খাতে শর্তসাপেক্ষে সর্বোচ্চ ২০ কোটি টাকা দেওয়া যেতে পারে বলে মত প্রকাশ করা হয়েছে। এ ছাড়া এ ধরনের ব্যয়ের ক্ষেত্রে শতভাগ স্বচ্ছতা-জবাবদিহিতা নিশ্চিতে শর্ত দেওয়া হয়েছে যেমন, এ অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রে যাবতীয় সরকারি আর্থিক বিধিবিধান যথাযথভাবে পালন করতে হবে। এ অর্থ প্রস্তাবিত খাত ছাড়া অন্য কোনো খাতে ব্যয় করা যাবে না। এ অর্থ ২০১৯-২০২০ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে সংশ্লিষ্ট কোডে সমন্বয় করতে হবে। সম্মানী ভাতা প্রদানের ক্ষেত্রে অর্থ বিভাগের ২২ মে ২০১৯ তারিখে প্রকাশিত স্মারক যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে। অব্যয়িত অর্থ (যদি থাকে) যথা সময়ে সরকারি কোষাগারে সমর্পণ করতে হবে। অর্থ বিভাগের নির্দেশনায় আরও বলা হয়, চলতি বছর ইসির যাবতীয় প্রশিক্ষণ খাতের ব্যয় সর্বোচ্চ ২০ কোটি টাকা হতে পারে। কিন্তু ইসির চাহিদাপত্রে প্রায় ৩৪ কোটি টাকা চাওয়া হয়েছে। এটাকে অযৌক্তিক বলে মনে করে অর্থ বিভাগ। এজন্য অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. আবদুর রউফ তালুকদারের নির্দেশনায় ইসি অপ্রত্যাশিত ও অপ্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ ব্যয় কাটছাঁট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এবং ভবিষ্যতের এমন সব ধরনের প্রশিক্ষণ সম্পর্কিত ব্যয়কে যৌক্তিকীকরণ করতে বলা হয়েছে। জানা গেছে, এর আগে গত বছরের মাঝামাঝি খোদ প্রধান নির্বাচন কমিশনানের বিরুদ্ধে কোনো প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে বা কর্মশালায় বক্তৃতা না দিয়েও প্রায় দুই কোটি টাকা তুলে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। এ ছাড়া তৎকালীন নির্বাচন কমিশনের সচিবের বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ ওঠে। সে সময় তিনি একাই প্রশিক্ষণ বাবদ বিল উঠিয়ে নেন ৪৭ লাখ টাকা। এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে নির্র্বাচনী প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক নুরুজ্জামান তালুকদার বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমরা প্রশিক্ষণ কর্মসূচির বিপরীতে থাকা বরাদ্দ অর্থ চেয়েছি। অর্থ বিভাগের পাঠানো নির্দেশনার নথি এখনো আমার নজরে আসেনি। ফলে বিষয়টি সম্পর্কে বিস্তারিত না জেনে কোনো মন্তব্য করা উচিত হবে না।


আপনার মন্তব্য