শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ জানুয়ারি, ২০২০ ২৩:৫২

সাইবার অপরাধীরা বেপরোয়া

ক্রাইম ইউনিটে চার হাজার অভিযোগ

সাখাওয়াত কাওসার

সাইবার অপরাধীরা বেপরোয়া

বেপরোয়া হয়ে উঠছে সাইবার অপরাধীরা। বাড়ছে সাইবার ক্রাইমের সংখ্যা। প্রযুক্তির অপব্যবহার করে অপরাধীরা ফাঁদে ফেলছে নিরীহ মানুষদের। ব্ল্যাকমেইলিং করে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থ এমনকি তাদের ইজ্জত-সম্ভ্রম। পরিবার এবং সামাজিক মর্যাদা ক্ষুণেœর আশঙ্কায় অনেক ভুক্তভোগী আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে অভিযোগও করছেন না। তবুও গত চার বছরে ঢাকা মহানগর পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিটে ৪০০০ অভিযোগ এসেছে। গত তিন মাসে জমা হওয়া ৮০০ অভিযোগের তদন্ত নিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা। এর মধ্যে মামলা হয়েছে দুই শতাধিক। সর্বশেষ আড়ংয়ের নারী কর্মীদের পোশাক বদলের ৩৬টি গোপন ভিডিও নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। ডিএমপির সাইবার নিরাপত্তা ও ক্রাইম ডিভিশনের অতিরিক্ত উপকমিশনার নাজমুল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি সাইবার ক্রাইমের সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে এটা উদ্বেগের বিষয়। তবে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ দিয়ে কাজ করছি।

জানা গেছে, সম্প্রতি টার্গেট করে বিভিন্ন পেশার মানুষদের ফেসবুক হ্যাক করছে হ্যাকাররা। তাদের পেজে আপলোড করে দিচ্ছে বিব্রতকর নানা পোস্ট। পরে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অঙ্কের টাকা। সাইবার ক্রাইম ইউনিট বলছে, প্রায় প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এ ধরনের অভিযোগ আসছে। তবে সীমাবদ্ধতার কারণে প্রত্যেকের আবেদনে সাড়া দিতে পারছেন না তারা। গত ২২ ডিসেম্বর bissoy.com নামে একটি বাংলাদেশি ওয়েবসাইট হ্যাক করে সাইটের কন্ট্রোল প্যানেলটি নিয়ে নেয় হ্যাকার। এ ঘটনায় পল্লবী থানায় মামলা হলে সাইবার ক্রাইম ইউনিট তদন্ত করে হ্যাকার মোক্তার হোসেন বাবুকে শনাক্তের পর ১৩ জানুয়ারি রাজধানীর পল্লবী থেকে গ্রেফতার করে।

এদিকে আড়ংয়ের নারী স্টাফদের ভিডিও নিয়ে সাড়া দেশে তোলপাড় চলছে। গত ১১ জানুয়ারি আড়ং বনানী শাখার ২৩ বছর বয়সী এক নারী স্টাফের ফেসবুক মেসেঞ্জারে একটি ভিডিও লিংক আসে। একটি ফেইক আইডি থেকে পাঠানো ওই লিংকটি তাকে ওপেন করতে বলা হয়। সেই লিংক ওপেন করে হতভম্ব হয়ে যান ওই নারী। ভিডিওটি তার কর্মস্থলের ড্রেসিং রুম থেকে ধারণ করা। সেখানে তার পোশাক বদলের দৃশ্য রয়েছে। এরই মধ্যে যে আইডি থেকে তাকে ভিডিওটি পাঠানো হয়েছে সেই আইডি থেকে তাকে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। বলা হচ্ছে, ভিডিও কলে এসে তার শরীর দেখাতে হবে। নইলে ভিডিওটি ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়া হবে। ব্ল্যাকমেইলিংয়ের শিকার নারী প্রথমদিকে সাড়া দিলেও পরে ডিএমপির সাইবার ক্রাইম ডিভিশনে অভিযোগ দেন। তদন্ত শেষে সিরাজুল ইসলাম সজিব (২২) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার সজীব অভিযোগকারী নারীর সাবেক সহকর্মী। তারা দুজনেই আড়ংয়ের বনানী শাখায় কাজ করতেন। তবে শুধু ওই নারী নয়, সজীবের কাছ থেকে অন্তত আরও ১০ নারী সহকর্মীর ৩৬টি গোপন ভিডিও উদ্ধার করা হয়েছে। সজীব গোপন ভিডিও দিয়ে প্রায় সবার কাছ থেকে অনৈতিক সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করেছে। পরিবার ও সামাজিক মর্যাদার কথা ভেবে ভুক্তভোগীদের কয়েকজন সজীবের প্রস্তাবে সাড়া দিতে বাধ্য হয়েছেন। সর্বশেষ ২৫ জানুয়ারি তরুণীর কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে তদন্ত শেষে ঢাকার পূর্ব শেওড়াপাড়ার মনিপুর স্কুলের সামনে থেকে সজীবকে আটক করে পুলিশ। পরে বনানী থানায় মামলার পর আদালত এক দিনের রিমান্ড দেয় তাকে। রিমান্ডে সজীব জানায়, আড়ংয়ে চাকরিকালীন চারতলার কর্মচারী পোশাক বদলের রুমের বাইরের সানসেটে দাঁড়িয়ে সেলফি স্টিক দিয়ে মোবাইল ক্যামেরায় এসব ভিডিও করেছে।

ডিএমপির সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের এসি ধ্রুব জ্যোতির্ময় গোপ জানান, আড়ংয়ের একজন অফিসার আমাদের কাছে এসেছিলেন। তার দেওয়া তথ্য মতেই আমরা সজীবকে শনাক্তের পর গ্রেফতার করি। সজীব রিমান্ডে তার অপরাধ কবুল করেছে। সূত্র বলছে, আড়ংয়ের সহকর্মীদের সঙ্গে প্রতারণার আগে সজীব তার এক বান্ধবীর সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ধারণ করেছিল। তবে ওই সম্পর্ক শেষ হয়ে যাওয়ার পর সে ওই ভিডিও দিয়ে ব্ল্যাকমেইলিং শুরু করেছিল। একপর্যায়ে মেয়েটি এ বিষয়ে ব্র্যাকের কাছে অভিযোগ করলে ব্র্যাক তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে সজীবকে বরখাস্ত করে। পরে সে তার নারী সহকর্মীদের ধারণ করা ভিডিও তাদের কাছে পাঠায়। সম্প্রতি রামপুরা এলাকার ব্যবসায়ী এস ইসলামের ফেসবুক আইডি হ্যাক হয়। পরে ওই হ্যাকার মেসেঞ্জারের মাধ্যমে ভুক্তভোগীর ফেসবুক ফ্রেন্ড এবং আত্মীয়স্বজনের কাছে টাকা চায়। টাকা পাঠাতে বিকাশ নম্বর দেয়। কেউ কেউ টাকাও পাঠায়। একপর্যায়ে ভুক্তভোগীর কাছে আইডি ফেরতের জন্য টাকা দাবি করে। না দিলে ফেসবুক আইডি ডিজেবল করে দেওয়ার হুমকি দেয়। এ নিয়ে ২৬ জানুয়ারি রামপুরা থানায় মামলা করলে জাকারিয়া মোল্লা সুমন নামের এক হ্যাকারকে খুলনা থেকে গ্রেফতার করা হয়।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর