শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০৫

প্রযুক্তির অপব্যবহারে বাড়ছে ধর্ষণ

ইন্টারনেট ব্যবহারে নজরদারি নেই, আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সতর্কের অভিমত বিশেষজ্ঞদের

জিন্নাতুন নূর

প্রযুক্তির অপব্যবহারে বাড়ছে ধর্ষণ

প্রযুক্তির অপব্যবহারে দেশে ধর্ষণ বেড়েই চলেছে। পারিবারিক বন্ধন কমে যাওয়া, সন্তানদের প্রতি বাবা-মায়ের দায়িত্ববোধের অভাব এবং খারাপ সঙ্গ ধর্ষণের মতো সামাজিক অপরাধ বাড়িয়ে দিয়েছে। এ ব্যাপারে সমাজ ও পরিবারের দায়িত্ববোধ আরও বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রযুক্তির অপব্যবহার রোধে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে সতর্ক অবস্থান তৈরির জন্য বলেছেন নারী নেত্রী ও সমাজবিজ্ঞানীরা। বর্তমানে সমাজে যে ভয়াবহ অবস্থা তৈরি হয়েছে তা অব্যাহত থাকলে আগামী দিনে সংকট আরও বাড়তে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, সমাজ থেকে ধর্ষণ ও সামাজিক অপরাধগুলো প্রতিরোধের দায় শুধু পরিবারের নয়। এজন্য সরকারের দায়িত্বশীল মহলকেও কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। নারী নেত্রী ও সমাজবিজ্ঞানীদের মতে, সমাজে ব্যক্তিকেন্দ্রিকতা বেড়ে যাওয়ার কারণেই ধর্ষণের মতো অপরাধগুলো ঘটেই চলেছে। তারা আরও জানান, বর্তমানে প্রযুক্তির সহজলভ্যতা ও অপব্যবহারের কারণে ধর্ষণ ও সামাজিক অপরাধগুলো বেড়ে গেছে। দেশে পর্নোগ্রাফি-সংক্রান্ত আইন তৈরি হলেও কোড অব কন্ডাক্ট, ইন্টারনেট কারা ব্যবহার করবে এবং এর নজরদারির বিষয়গুলো সঠিকভাবে মানা হচ্ছে না। পুলিশের ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি) এ ব্যাপারে ভালো কিছু কাজ করলেও এ সংস্থাকে ধর্ষণ ও সামাজিক অপরাধ প্রতিরোধে আরও কাজ করতে হবে। এ ছাড়া এ ধরনের অপরাধ নিয়ন্ত্রণে অপরাধীকে দ্রুত কঠোর শাস্তির আওতায় আনতে হবে বলে বিশেষজ্ঞ মহল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানিয়েছে। দেশে নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণ আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। এ সংস্থার তথ্যে জানা যায়, গেল সেপ্টেম্বরে ৩৪০ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ২০ জন সংঘবদ্ধ ধর্ষণসহ ১২৯ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ছাড়া তিন শিশুসহ ১০৯ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছে এবং ১০ শিশুসহ ২০ জন সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ছাড়া ছয় শিশুসহ ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে নয়জনকে। শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছে চারজন। এর মধ্যে শিশু দুজন। চার শিশুসহ যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে সাতজন।

নারী নেত্রী ও সেন্ট্রাল ইউনিভার্সিটির সোশিওলজি অ্যান্ড জেন্ডার স্টাডিজ বিভাগের অধ্যাপক মালেকা বেগম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দেশে একের পর এক ঘটে যাওয়া ধর্ষণ ও যৌন হয়রানির ঘটনায় সরকারের সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল মন্ত্রণালয় ও মন্ত্রীরা এখনো কোনো ভূমিকা নেননি। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী কেন অপরাধীদের শাস্তি দিতে দ্বিধা করছেন? সমাজ থেকে ধর্ষণ, সামাজিক অপরাধগুলো প্রতিরোধের দায় শুধু পরিবারের একার নয়। মনে রাখতে হবে, পরিবার রাষ্ট্রীয় কাঠামোর মধ্যে দাঁড়িয়েই পরিচালিত হচ্ছে। দেশের সব কিশোর ও তরুণই এ নেতিবাচক কাজগুলো করছে তা নয়। মুষ্টিমেয় কিছু কিশোর-তরুণ যারা ধর্ষণের মতো অপরাধ করছে তাদের শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। এমনকি মুষ্টিমেয় এ দুর্বৃত্তদের বাদ দিয়ে যারা ভালো তাদের প্রতিফলিত করতে হবে। আর খারাপ পথে যারা পা বাড়িয়েছে তাদের কারাগারে পাঠিয়ে দিতে হবে। দেশে কোনো ধর্ষণ ঘটলেই কেন বারবার শিক্ষার্থী ও নারীসমাজকে আন্দোলনে নামতে হবে? এ ধরনের ঘটনা থামাতে নির্বাচিত সরকারের দায়িত্বশীলদের কাজ করতে হবে। আবার এ ধরনের অপরাধ রোধে সরকার কিছুটা দেরিতে হলেও যে পদক্ষেপগুলো নিচ্ছে তা যেন সত্যিকার অর্থে কার্যকর হয় এবং আগামীতে এগুলো যেন না ঘটে সেদিকে সরকারসহ সবাইকে দৃষ্টি রাখতে হবে।

বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সালমা আলী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, মাদকাসক্ত যারা তাদের মাদক গ্রহণের পর নিজের ওপর কোনো নিয়ন্ত্রণ থাকে না। তেমনি যারা ভার্চুয়াল জগতে পর্নোগ্রাফিতে আসক্ত তাদেরও মাথায় থাকে না যে তারা কোন জগতে আছে। আমাদের এটি বুঝতে হবে যে যৌনতা সম্মানজনক একটি বিষয়। মানুষের মধ্যে যৌনতা থাকা খুব স্বাভাবিক। কিন্তু কুরুচিপূর্ণ কিছু মানুষ যৌনতাকে এখন বিকৃত পর্যায়ে নিয়ে গেছে। দুঃখজনক যে, কিছু দুর্বৃত্ত মেয়েদের মানুষ নয় ভোগ্যপণ্য হিসেবে দেখে। আর এটি বিকৃত যৌনতার কারণেই হচ্ছে। আগে যখন প্রযুক্তি এত সহজলভ্য ছিল না তখন এমন দেখা যায়নি। কিন্তু প্রযুক্তির সহজলভ্যতা ও অপব্যবহারের কারণে সমাজে ধর্ষণ ও সামাজিক অপরাধ বেড়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্ম অনলাইনে বিভিন্ন সাইটে গিয়ে প্রতিনিয়ত অনেক অপ্রয়োজনীয় ও ক্ষতিকর বিষয়ের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, মোবাইল ফোনের ব্যবহার শুরুর পর যখন মোবাইল পর্নোগ্রাফির বিষয়গুলো বিশ্ববাসীর সামনে আসতে শুরু করে ইংল্যান্ড তখন এ-সংক্রান্ত আলাদা একটি আইন তৈরি করেছিল। তখন কারা ইন্টারনেট ব্যবহার করবে এসব বিষয়ে দেশটি বিধিনিষেধ তৈরি করেছিল। সে সময় আমরা বারবার বাংলাদেশ সরকারকে এ-সংক্রান্ত নীতিমালা তৈরি করতে বলেছিলাম। পরে দেশে পর্নোগ্রাফি আইন প্রণীত হলেও কোড অব কন্ডাক্ট, কে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবে, এর নজরদারির বিষয়গুলো মানা হচ্ছে না। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক রাশেদা ইরশাদ নাসির বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, করোনার কারণে এখন সমাজ কিছুটা ভারসাম্যহীন। আর এর প্রভাব সমাজেও পড়ছে। মহামারীর কারণে প্রাথমিক থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রম অনেকটাই সীমিত হয়ে পড়েছে। এতে এসব শিক্ষার্থী আগের তুলনায় বাড়িতে অতিরিক্ত সময় কাটাচ্ছে। আর এ বাড়তি সময়টি অনেকে ভালো কাজে লাগাতে পারছে না। আবার কিশোর ও তরুণদের বিনোদনের সুযোগ করোনাকালে অনেকটা সংকুচিত হয়ে এসেছে। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, বিনোদনের জন্য কিশোর ও তরুণরা কাউকে ধর্ষণ করবে। গ্রামাঞ্চলে সামাজিকীকরণ ব্যবস্থা এখনো ততটা কঠোর নয়। প্রযুক্তির এই যুগে অভিভাবকদের পক্ষে উঠতি বয়সী ছেলেমেয়ের নজরদারি করাও বেশ কঠিন। এখন সন্তানরা চাইলেই অভিভাবকদের কাছ থেকে অনেক কিছু লুকিয়ে রাখতে পারে, যা আগে তারা পারত না। প্রযুক্তির ভালো দিক যেমন আছে তেমন মন্দ দিকও আছে। সন্তান কার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করছে বা কাকে খুদে বার্তা পাঠাচ্ছে তা অভিভাবকের পক্ষে সব সময় নজরদারি করা সম্ভব নয়। কিশোর ও তরুণদের ভালো সময় কাটানোর জন্য সুস্থ বিনোদনের ব্যবস্থা করে না দেওয়ার জন্য সমাজে ব্যক্তিকেন্দ্রিকতাও বাড়ছে। এর ফলে ধর্ষণের মতো জঘন্য অপরাধগুলোও বেড়ে যাচ্ছে। এ ধরনের অপরাধের জন্য যদি অপরাধীকে দ্রুত কঠোর শাস্তি দেওয়া যায়, তাহলে হয়তো ঘৃণ্য এ অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। বিশেষ করে উদাহরণ স্থাপন করতে এবং অপরাধীদের মনে ভয় ঢোকাতে যদি জনসম্মুখে ফাঁসির ব্যবস্থা করা যায় তাহলে কিছুটা হলেও এ ঘৃণ্য কাজ করতে অপরাধীকে দুবার ভাবাবে। কিন্তু দেশে ধর্ষণ মামলাগুলোয় অপরাধীদের শাস্তি দেওয়ার প্রক্রিয়া ধীরগতিতে হয়। আবার ধর্ষণের মতো ঘটনাগুলোর কথা মানুষ দ্রুত ভুলে যায়। যারা ধর্ষণ করছে, অপরাধ ঘটানোর পর যদি তৎক্ষণাৎ তাদের কঠোর ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়া হয় তবে ধর্ষণ কিছুটা নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর