শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩১ অক্টোবর, ২০২০ ২৩:৪০

সংকট বাড়ছে চাকরির বাজারে

করোনার ধাক্কা সামলাতে হিমশিম, বেসরকারি খাতে কর্মী নিয়োগ বন্ধ, সরকারি খাতে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা

মানিক মুনতাসির

দেশে করোনাভাইরাসের আতঙ্ক কমলেও চাঙ্গা হচ্ছে না ব্যবসা-বাণিজ্য ও শিল্প-কারখানা। সরকারি-বেসরকারি খাতে কর্মচাঞ্চল্য ফিরছে, তবে কর্মীদের মধ্যে নেই স্থিরতা। ইতিমধ্যে অনেকেই কাজ হারিয়েছেন। বন্ধ হয়ে গেছে অনেকের ব্যবসা-বাণিজ্য। বড় বড় শিল্পগুলোকে টিকিয়ে রাখতে কোথাও কোথাও কমানো হয়েছে বেতন-ভাতা, আবার কোথাও কমানো হয়েছে কর্মীদের কলেবর। সামনের দিনগুলোয় কী হবে তা নিয়েও রয়েছে চরম অনিশ্চয়তা। শুধু তাই নয়, নিজেদের লোকসান ঠেকাতে আর প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রাখতে কোনো কোনো ব্যাংকও কর্মী ছাঁটাই করেছে, আবার বেতনও কমিয়েছে। তবে প্রায় ছয় মাস পর সীমিত পরিসরে কর্মী নিয়োগ চালু করেছে ব্যাংক, বীমাসহ, করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো। দীর্ঘদিন পর কয়েক দিন আগে সোনালী ব্যাংক ও বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক সিনিয়র অফিসার পদে একটি নিয়োগ পরীক্ষা নিয়েছে।

জানা গেছে, গত বছরের শেষ দিকে শুরু হওয়া মহামারী করোনাভাইরাসের ধাক্কা সামলাতে বিশ্ববাসীর মতো বাংলাদেশকেও হিমশিম খেতে হচ্ছে এ বছরের শেষে এসেও। বিশেষ করে দেশের বেসরকারি খাতের অবস্থা খুবই নাজুক। নতুন কোনো কর্মী নিয়োগ হচ্ছেই না, বরং পুরনোদের ধরে রাখতে উদ্যোক্তারা হিমশিম খাচ্ছেন। সরকারি খাতে চলছে ব্যয় সংকোচন নীতির বাস্তবায়ন। যার ফলে সরকারি প্রতিষ্ঠানেও নতুন করে কর্মী নিয়োগ আগের মতো হচ্ছে না। আবার বিদেশে যাওয়ার পথও প্রায় বন্ধ। গত ১০ মাসে তিন লাখ কর্মীও বিদেশে যেতে পারেনি। অথচ আগের বছরের একই সময়ে অন্তত ১০ লাখ কর্মী দেশের বাইরে গিয়েছিলেন কাজের উদ্দেশ্যে। উপরন্তু করোনাভাইরাস আতঙ্কে গত কয়েক মাসে অন্তত ১২ লাখ বাংলাদেশি দেশে ফিরে এসেছেন, যাদের মধ্য থেকে মাত্র দুই লাখ ফিরে যেতে পেরেছেন আগের কর্মস্থলে। দেশের অভ্যন্তরে চাকরি, শ্রমবাজার কিংবা অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের পুরো ব্যবস্থাই প্রায় ধসে পড়েছে। নিজেদের প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রাখতে উদ্যোক্তারা রীতিমতো যুদ্ধ করছেন। সরকারের আয় কমে যাওয়ায় সরকারও ব্যয় কমিয়ে আনছে। ফলে কাজের বাজার নিয়ে সরকারি-বেসরকারি উভয় খাতেই বাড়ছে উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠা। এদিকে বেসরকারি সংস্থা পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি) ও ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্নেন্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের তথ্যমতে, দেশে কভিড-১৯ এর কারণে জুলাই পর্যন্ত প্রায় ৩২ শতাংশ মানুষ কাজ হারিয়েছেন। আর আয় কমেছে ৮৪ শতাংশ মানুষের। এমন কি যারা কাজ হারিয়েছেন বা দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে গেছেন তাদের কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই। সংস্থা দুটি গতকাল এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। জুন শেষে নতুন করে ২২ দশমকি ৮ শতাংশ মানুষ দরিদ্র হয়ে গেছেন, যা এপ্রিলে ছিল ২১ দশমিক ৭০ শতাংশ। করোনা মোকাবিলায় সরকার যে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে তা বৃহৎ শিল্পের জন্য কিছুটা কার্যকর হলেও এমএসএমই খাতে তেমন কোনো কাজে আসেনি। এ ছাড়া পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য আর্থিক সহায়তা প্যাকেজের তুলনায় পলিসিগত সহায়তা বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করে সংস্থা দুটি। এমনকি এই করোনাকালে সামাজিক নিরাপত্তা খাতের যেসব কার্যক্রম ছিল সেগুলোও সঠিকভাবে কাজে আসেনি।

কেস স্টাডি-১ : জাফরিন আহমেদ ছিলেন শেভরনের মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। করোনার কারণে তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তিনি পরিবার-পরিজন নিয়ে টিকে থাকতে গড়ে তুলেছেন কার রেন্টাল সার্ভিস। সেখানে কয়েকজনকে চাকরিও দিয়েছেন। কার রেন্টাল সার্ভিসে সদ্য নিয়োগ পাওয়া একজন চালকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তিনি আগে একটি বেসরকারি কোম্পানিতে হিসাবরক্ষণ বিভাগে চাকরি করতেন। করোনার ধাক্কায় তাদের কোম্পানির লোকবল কমানো হয়েছে। ফলে ছাঁটাইয়ের শিকার হয়েছেন ওই যুবক। স্নাতক ডিগ্রিধারী হয়েও তিনি এখন গাড়িচালকের কাজ করছেন। জাফরিন আহমেদ বলেন, আগের কিছু জমানো টাকা থাকায় তিনি রেন্ট-এ কারের ব্যবসা শুরু করতে পেরেছেন। এই ব্যবসাও খুব একটা ভালো যাচ্ছে না। তারপরও টিকে থাকার জন্য এটাই করতে হচ্ছে। অন্যথায় বেকারই থাকতে হতো। হয়তো কাজ পাওয়া যেত কিন্তু তার জন্য অপেক্ষা করতে হতো।

কেস স্টাডি-২ : সাদেকুল ইসলামের বাড়ি ঠাকুরগাঁও। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বিদেশে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন তিন বছর ধরে। এতে প্রায় ৫ লাখ টাকা খরচ করেন। সবকিছু রেডিও হয়ে গিয়েছিল। গত বছরের নভেম্বরে ভিসা পাওয়ার কথা ছিল। এ জন্য টিকিটও বুকিং দেওয়া হয়। কিন্তু এরই মধ্যে শুরু হয় করোনাভাইরাসের অচলাবস্থা। থেমে যায় ওই সৌদি কোম্পানির নিয়োগ প্রক্রিয়া। সাদেকুল এখন গ্রামের বাড়িতেই থাকেন। বাবার নামে থাকা কিছু জমিজমা বন্ধক দিয়ে বিদেশ গমনের টাকা জোগাড় করেছিলেন তিনি। কার্যত তিনি এখন বেকার। সূত্র জানায়, সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও চাকরির বাজার গুটিয়ে আসছে। বেসরকারি খাতের পাশাপাশি সরকারি সংস্থা, ব্যাংক-বীমা, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের নিয়োগও চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। ফলে নতুন চাকরির সুযোগ একেবারেই সীমিত হয়ে গেছে। একই সময়ে প্রতিষ্ঠিত অনেক প্রতিষ্ঠান করোনার কারণে চাকরিচ্যুতি করছে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। এতে বেকারত্ব বাড়ার সঙ্গে বিরূপ প্রভাব পড়ছে সর্বক্ষেত্রে। শিক্ষিত ও স্বল্প শিক্ষিত দুই শ্রেণির চাকরিজীবীরাই বাধ্য হচ্ছেন ঢাকা ছাড়তে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, দেশে যে পরিমাণ ছাত্র-ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে উচ্চ শিক্ষিত হয়ে বের হচ্ছে, সে পরিমাণ কর্মক্ষেত্র নেই। ফলে উচ্চ শিক্ষিতদের বেকারত্বের হার সবচেয়ে বেশি। অন্যদিকে এসএসসি পাস বা এর নিচে থাকা জনগোষ্ঠী শ্রমিক হিসেবে বা কারিগরি বিভিন্ন খাতে কাজ করার সুযোগ পাচ্ছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্র্যাকের চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, কভিড-১৯-এর কারণে আমাদের এখানে কর্মসংস্থানের ওপর বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের সঙ্গে জড়িতরা। দেশের বাইরের শ্রমবাজারও সংকুচিত হয়ে এসেছে। এ অবস্থার পরিবর্তন হতে যথেষ্ট সময়ের প্রয়োজন হবে। বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, করোনার কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাত। এ খাতেই সবচেয়ে বেশিসংখ্যক মানুষ জড়িত। অথচ এ খাতটি সেভাবে হিসাবেই আসে না। পুরনো বেকারদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে নতুন করে চাকরি হারানোরা। এখানে সরকারের কিছু কাজ করা উচিত ক্লাস্টার পদ্ধতিতে। যেমন যাদের বিকাশ অ্যাকাউন্ট আছে তাদের ঋণ দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। দুর্যোগ ও সংকটকালে যেমন ১০০ দিনের কর্মসূচি নেওয়া হয় তা চালু করা উচিত গরিব মানুষের জন্য। এ ছাড়া দেশে ফিরে আসা প্রবাসীদের জন্য যে ঋণ প্রকল্প নেওয়া হয়েছে সে প্রকল্পগুলোর কাজে গতি আনা জরুরি বলে তিনি মনে করেন। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনায় বাংলাদেশের তরুণদের মধ্যে বেকারত্বের হার দ্বিগুণ হয়েছে। করোনার আগে ১৫ থেকে ২৪ বছর বয়সী তরুণদের মধ্যে প্রতি ১০০ জনে গড়ে ১২ জন বেকার ছিলেন। এখন তা বেড়ে প্রায় ২৫ জন হয়েছে। এর সঙ্গে আছে পুরনো ২৭ লাখ বেকার। আগস্ট মাসে প্রকাশিত ‘ট্যাকলিং দ্য কভিড-১৯ ইয়ুথ এমপ্লয়মেন্ট ক্রাইসিস ইন এশিয়া অ্যান্ড দ্য প্যাসিফিক’ শিরোনামে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনার স্বল্প মেয়াদী প্রভাবে বাংলাদেশে কর্মসংস্থান হারাতে পারে ১১ লাখ ১৭ হাজার যুব শ্রমশক্তি। এদিকে কর্মসংস্থান বৃদ্ধির জন্য গত ৩০ জুন ১ হাজার কোটি টাকা ছাড় করেছে অর্থবিভাগ, যা কর্মসংস্থান ব্যাংক, প্রবাসীকল্যাণ ব্যাংক ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক এবং পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ)-এর মাধ্যমে বিতরণ করা হবে। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান আড়াইশ কোটি টাকা করে বিতরণ করবে। এ অর্থ বিদেশ থেকে ফিরে আসা যুবক ও অন্য বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানে ঋণ হিসেবে দেওয়া হচ্ছে। চলতি অর্থবছরের বাজেটে কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য দুই হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ফিরে আসা প্রবাসীদের যারা ক্ষুদ্র ব্যবসা করতে আগ্রহী তাদের মাঝে ঋণ বিতরণ শুরু করেছে তিনটি বিশেষায়িত ব্যাংক এবং সরকারি সংস্থা পিকেএসএফ।


আপনার মন্তব্য