শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৮ নভেম্বর, ২০২০ ২৩:২১

চিকিৎসক যখন ব্যবসায়ী

সরকারি হাসপাতালে সময় নেই ব্যস্ত ক্লিনিক-প্রাইভেট চেম্বারে, কমিশন নিতে দীর্ঘ টেস্ট তালিকা অনেকেই বসাচ্ছেন ইচ্ছামতো ডিগ্রি, পকেট কাটছেন অসহায় রোগীদের

মাহমুদ আজহার ও জয়শ্রী ভাদুড়ী

চিকিৎসক যখন ব্যবসায়ী

কিছুদিন ধরে উচ্চ রক্তচাপ, খুব বেশি ঘামসহ নানা সমস্যার কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছে যান মনিরুল ইসলাম। ওই চিকিৎসকের প্রাইভেট চেম্বারে দেখানোর পর তাকে বলা হয় দ্রুত রাজধানীর বনশ্রীর একটি প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি হতে। সমস্যা জানতে চাইলে ওই চিকিৎসক বলেন, শরীরে সোডিয়াম-পটাশিয়াম কমে গেছে। প্রেসক্রিপশনে রেফারেন্স হিসেবে তার নাম ও হাসপাতালের ঠিকানা লিখে দেন তিনি।

বনশ্রীর ওই হাসপাতালে যাওয়ার পরের ঘটনার বর্ণনা দেন মনিরুল ইসলাম। বলেন, ‘আমি আমার স্ত্রীকে নিয়ে ওই হাসপাতালে গিয়ে এই প্রেসক্রিপশন দিলে তারা আমাকে জানান, এখনই আইসিইউতে ভর্তি হতে হবে। আমি নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে আছি, বেশ সুস্থ, তবু আইসিইউতে কেন যাব জানতে চাইলে বলা হয়, চিকিৎসক বলে দিয়েছেন। আমাকে আইসিইউতে ভর্তি করে ঘুমের ইনজেকশন দিয়ে রাখা হয়। ঘুম ভাঙলে আবার ইনজেকশন দেওয়া হয়। পরদিন স্ত্রীকে বলা হয় আমার করোনাভাইরাস পজিটিভ, অবস্থা খুব খারাপ। আমি আমার স্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চাইলে দেওয়া হয় না। আমাকে কোনো চিকিৎসাই করা হয়নি, শুধু ঘুমের ওষুধ দিয়ে রাখা হয়েছিল। চতুর্থ দিন আমাকে ঘুমের ইনজেকশন দিতে এলে আমি বিছানা থেকে উঠে দরজা খুলে দৌড়ে বের হয়ে আসি। বাইরে আমার স্ত্রী ও ভাতিজা ছিল। ওদের নিয়ে তখনই হাসপাতাল থেকে বের হয়ে শান্তিনগরে একটি ক্লিনিকে গিয়ে হাতের ক্যানালো খোলাই। তিন দিনে ১ লাখ ৯৫ হাজার টাকা নিয়েছে বনশ্রীর ওই হাসপাতাল।’

শুধু মনিরুল ইসলামই নন, তার মতো সারা দেশেই অনেক ভুক্তভোগী রোগী রয়েছেন, যারা এমন ব্যবসায়ী চিকিৎসকের খপ্পরে পড়েছেন। সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকদের বড় একটি অংশই নিজের চেম্বার নানা কৌশলে রোগীকে ভাগিয়ে নিয়ে যান। অনেকেই নিজের নামে ক্লিনিকও খুলে বসেছেন। কমিশনের লোভে রোগীকে বিভিন্ন ক্লিনিকে পাঠান কোনো কোনো চিকিৎসক। রোগীদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিতে তাদের হাতে তুলে দেন টেস্টের দীর্ঘ তালিকা। অনেকেই নিজের নামে নানা ডিগ্রি বানিয়ে চিকিৎসাসেবার নামে ব্যবসা করছেন। এতে প্রতারিত হচ্ছেন সাধারণ রোগীরা। অনেকে ভিটেমাটি বিক্রি করে চিকিৎসা করতে এসে প্রতারিত হচ্ছেন।

এ প্রসঙ্গে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী গতকাল সন্ধ্যায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘সরকারি চিকিৎসকরা প্রাইভেট প্র্যাকটিসে বেশি ব্যস্ত হয়ে পড়ার জন্য দায়ী আমাদের সরকার। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উচিত হবে সরকারি চিকিৎসকদের ওই হাসপাতালের বাইরে চেম্বার বন্ধের নির্দেশ দেওয়া। প্রয়োজনে নির্ধারিত সময়ের পর ওই সরকারি হাসপাতালেই চেম্বার করতে পারেন চিকিৎসকরা। এতে রোগীদের অর্থ অপচয় কম হবে, সেবাও পাবেন। সরকার শুধু এ আইনটা করে দিলেই চিকিৎসকদের প্রাইভেট প্র্যাকটিস বন্ধ হবে। তখন আর তারা আর্থিক লোভের দিকে ঝুঁকবেন না। আর যারা ইচ্ছামতো নিজেদের নামের আগে ডিগ্রি বসিয়ে চিকিৎসাসেবা দেওয়ার বদলে প্রতারণা করছেন, তাদের বিরুদ্ধে সরকারকেই কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে।’

রাজধানীর কলাবাগান এলাকার বাসিন্দা আফরোজা বেগম। চিকিৎসকের বিরুদ্ধে দুর্ভোগের কথা জানালেন তিনি। গর্ভবতী এই নারী বলেন, ‘আমি গর্ভবতী হওয়ার পর থেকে নিয়মিত একজন গাইনি বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিই। সাত মাস সময়ে অন্যান্য শারীরিক সমস্যা দেখা দিলে ওই গাইনি বিশেষজ্ঞ একজন মেডিসিনের ডাক্তার দেখাতে বলেন। একজন সহযোগী অধ্যাপকের কাছে প্রাইভেট চেম্বারে সিরিয়াল দিয়ে দেখাতে যাই। তিনি দেখেই প্রথমে আলট্রাসনোগ্রাম করে আনতে বলেন। আমি এক দিন আগেই মাত্র আলট্রাসনোগ্রাম করিয়েছি। কিন্তু তিনি আবার করতে বলেন এবং শ্যামলীর একটি হাসপাতাল নির্দিষ্ট করে দেন। এ পরিস্থিতিতে দূরে যাওয়া সমস্যার বিষয় বলে তাকে জানাই। তবু তিনি বলেন, ওখান থেকেই করাতে হবে। আশপাশের হাসপাতালগুলোর নাকি মেশিন ভালো না। ওখান থেকে আলট্রাসনোগ্রাম না করালে তিনি দেখবেন না। পরে আমি আর ওই ডাক্তারের কাছে যাইনি।’

অফিস চলাকালে সরকারি হাসপাতালের কোনো চিকিৎসক বেসরকারি স্বাস্থ্যপ্রতিষ্ঠানে থাকতে পারবেন না। কোনো কারণে কর্মরত অবস্থায় থাকলে টাস্কফোর্স ও সংশ্লিষ্টদের বিষয়টি জানাতে হবে। এ বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় একটি সিদ্ধান্ত নেয়। ১৮ নভেম্বর স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের জনস্বাস্থ্য-১ অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব এবং টাস্কফোর্স কমিটির আহ্বায়ক মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় ওই সিদ্ধান্ত ছাড়াও সর্বসম্মতিক্রমে আরও কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এগুলো হলো- হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ল্যাব ও ক্লিনিকগুলোয় স্পষ্টভাবে লাইসেন্স নিবন্ধন নম্বর উল্লেখ থাকতে হবে। সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক পরিদর্শনের সময় অবৈধ কার্যক্রমের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করবে টাস্কফোর্স।

ওই দিনই স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বেসরকারি হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিকসমূহের সেবা বিষয়ে আরেকটি পর্যালোচনা সভা হয়। সভায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক ফি নির্ধারণ-সংক্রান্ত পরিকল্পনার কথা জানান। তিনি বলেন, বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারে স্বাস্থ্যসেবা-সংক্রান্ত চিকিৎসা ফি, টেস্ট ফিসহ অন্যান্য ফি সরকারিভাবে নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করে দেওয়া হবে। এ জন্য মন্ত্রণালয় থেকে কিছু দিনের মধ্যেই একটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করা হবে। এ কমিটির রিপোর্ট অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। গত বছর ১৯ নভেম্বর কমিশন নিয়ে প্রেসক্রিপশনে বিভিন্ন কোম্পানির ওষুধ লেখার কারণে ডাক্তারি পেশা নষ্ট হচ্ছে বলে জানিয়েছে হাই কোর্ট। বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের বেঞ্চ এ কথা জানায়। এ সময় ভেজাল ওষুধ বিক্রির শাস্তি মৃত্যুদন্ড বা যাবজ্জীবন হওয়া দরকার বলেও মন্তব্য করে আদালত। অল্প সাজা দেওয়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের সুফল পাওয়া যাচ্ছে না ফলে ভেজাল ওষুধ বিক্রিও বন্ধ হচ্ছে না বলে জানায় হাই কোর্ট।

সম্প্রতি ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালের জরিপে দেখা যায়, বাংলাদেশে রোগীপ্রতি গড়ে মাত্র ৪৮ সেকেন্ড সময় দেন চিকিৎসকরা। মিনিটের কাঁটায়ও পৌঁছায় না চিকিৎসকের সময়। চিকিৎসকের মনোযোগ পেতে বেশ বেগ পেতে হয় রোগীদের। এ ছাড়া দেশের চিকিৎসকদের মধ্যে অনেককেই প্রেসক্রিপশন ও ভিজিটিং কার্ডে বিচিত্র সব ডিগ্রি লিখতে দেখা যায়। এর মধ্যে পিজিটি, বিএইচএস, এফআরসিপি, এফআরএইচএস, এফআইসিএ, এফআইসিএস, এফএএমএস, এফআইএজিপির মতো ডিগ্রি ও ট্রেনিং কোর্স রয়েছে। এসব ডিগ্রি ও কোর্সকে প্রতারণামূলক উল্লেখ করে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে।

এ ধরনের ভুয়া ডিগ্রি রোধে ২০১৪ সালের ১৭ এপ্রিল বিএমডিসি থেকে একটি সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এতে বলা হয়ে, কোনো কোনো নিবন্ধিত চিকিৎসক/দন্ত চিকিৎসক তাদের সাইনবোর্ড, প্রেসক্রিপশন প্যাড, ভিজিটিং কার্ডে পিজিটি, বিএইচএস, এফসিপিএস (পার্ট-১), (পার্ট-২), এমডি (ইনকোর্স) (পার্ট-১)-(পার্ট-২), (থিসিস পর্ব) (লাস্ট পার্ট), কোর্স কমপ্লিটেড (সিসি) লিখছেন। এসব ডিগ্রি কোনো চিকিৎসকের শিক্ষাগত যোগ্যতা কিংবা বিএমডিসি স্বীকৃত নয়।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ বলেন, ‘চিকিৎসকদের সনদ দেখভালের দায়িত্ব বিএমডিসির। তাদের উচিত ভুয়া চিকিৎসকদের দৌরাত্ম্য কমাতে সন্দেহভাজনদের সনদের তদারক করা। এ জন্য তাদের জনবল বাড়াতে হবে। প্রয়োজনে এদের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা নিতে হবে। সারা দেশেই এ অভিযান চালানো জরুরি বলে আমি মনে করি।’


আপনার মন্তব্য