শিরোনাম
বুধবার, ৩১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ টা

দ্বিতীয় ঢেউয়ে লাগামহীন করোনা

সংক্রমণ রোধে ১৮ দফা নির্দেশনা, কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে মাঠে নামছে প্রশাসন, ইউরোপ ফেরত যাত্রীদের ১৪ দিন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন, ঝুঁকিপূর্ণ ২৯ জেলা

জয়শ্রী ভাদুড়ী

দ্বিতীয় ঢেউয়ে লাগামহীনভাবে বাড়ছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। গত বছর জুলাইতে সর্বোচ্চ সংক্রমণের রেকর্ড ভেঙে বেপরোয়াভাবে ছড়াচ্ছে এই ভাইরাস। দুই দিনে ধরে ১০ হাজারের বেশি মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন ৯০ জন। করোনার গতিরোধে ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

এই নির্দেশনা বাস্তবায়নে মাঠে নামছে প্রশাসন। এর মধ্যেই সংক্রমণের হার বিবেচনায় ২৯ জেলাকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। যুক্তরাজ্য ফেরত ও ইউরোপ ফেরত যাত্রীদের ১৪ দিন বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে বলে জানিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।   

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পুনরায় বেড়ে যাওয়ায় ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়ে গত সোমবার প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, এসব সিদ্ধান্ত এখন থেকে সারা দেশে কার্যকর হবে এবং আগামী দুই সপ্তাহ পর্যন্ত তা কার্যকর থাকবে। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আহমদ কায়কাউস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এসব নির্দেশনা জানানো হয়েছে। নির্দেশনাগুলো হলো-

সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয়সহ যে কোনো উপলক্ষে জনসমাগম সীমিত করার কথা বলা হয়েছে। প্রয়োজনে উচ্চ সংক্রমণ এলাকায় জনসমাগম নিষিদ্ধ থাকবে। মসজিদসহ সব ধর্মীয় উপাসনালয়ে স্বাস্থ্যবিধি পালন নিশ্চিত করার কথাও বলা হয়েছে। পর্যটন, বিনোদন কেন্দ্র, সিনেমা হল, থিয়েটারে জনসমাগম সীমিত করতে হবে এবং সব ধরনের মেলার আয়োজন নিরুৎসাহিত করা হবে। গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং ধারণক্ষমতার অর্ধেকের বেশি যাত্রী পরিবহন করা যাবে না। সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় আন্তজেলা যান চলাচল সীমিত করতে হবে, প্রয়োজনে বন্ধ করতে হবে। বিদেশফেরত যাত্রীদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী খোলা ও উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বেচাকেনা করতে হবে। স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোয় মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে। শপিং মলে ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়েরই যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা বাধ্যতামূলক। দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে। অপ্রয়োজনে রাত ১০টার পর ঘর থেকে বের হওয়া নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। প্রয়োজনে বাইরে গেলে স্বাস্থ্যবিধি পুরোপুরি মানতে হবে। এ ক্ষেত্রে মাস্ক না পরলে বা স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চললে আইন অনুসারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বা করোনার লক্ষণ রয়েছে এমন ব্যক্তির আইসোলেশন নিশ্চিত করতে হবে এবং আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে আসা অন্যদের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে হবে। জরুরি সেবায় নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব সরকারি-বেসরকারি অফিস, প্রতিষ্ঠান, শিল্পকারখানা ৫০ শতাংশ লোকবল দিয়ে পরিচালনা করতে হবে। অন্তঃসত্ত্বা, অসুস্থ, ৫৫ বছরের অধিক বয়সী ব্যক্তিদের বাসায় থেকে কাজের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সভা, সেমিনার, প্রশিক্ষণ, কর্মশালা যথাসম্ভব অনলাইনে আয়োজন করতে হবে। সশরীরে উপস্থিত হতে হয় এমন যে কোনো ধরনের গণপরীক্ষার ক্ষেত্রে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে। হোটেল, রেস্তোরাঁয় ধারণক্ষমতার অর্ধেক মানুষ প্রবেশ করতে পারবে। কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ ও অবস্থানের পুরোটা সময়ই বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এই নির্দেশনার ব্যাপারে ঢাকা জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই আমরা সচেতনতা তৈরি, কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করাসহ প্রয়োজনীয় দায়িত্ব পালন করছি। মাঝে সংক্রমণ হার কমে আসায় কার্যক্রম কিছুটা ঢিমেতালে চলছিল। গত ১৬ মার্চ নির্দেশনা আসার পরে কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। গত সোমবার দেওয়া ১৮ দফা নির্দেশনা আমরা কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করব। তিনি আরও বলেন, কমিউনিটি সেন্টার, পার্কে ১০০ জনের বেশি জমায়েত হলে আমাদের অনুমতি নিতে হবে। মাস্ক ব্যবহার না করলে, সামাজিক দূরত্ব না মেনে ভিড় বাড়ালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে শাস্তির আওতায় আনা হবে। কাঁচাবাজারে ভিড় কমাতে খোলা জায়গায় দূরত্ব মেনে বাজার বসানোর পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।

যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপ ফেরত যাত্রীদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইন : যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ থেকে আসা সব যাত্রীকে সরকার নির্ধারিত প্রতিষ্ঠানে বা হোটেলে নিজ খরচে ১৪ দিন বাধ্যতামূলকভাবে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। এসব দেশ থেকে আসা যাত্রীদের করোনাভাইরাসের টিকা নেওয়া থাকলেও বাধ্যতামূলকভাবে কোয়ারেন্টাইনের এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। আজ থেকেই এ নিয়ম কার্যকর হবে বলে গতকাল এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সরকার ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করার পর নতুন এই নিয়ম জারি করল বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যে কোনো দেশ থেকে বাংলাদেশে আসার সময় সে দেশের বিমানবন্দর এবং বাংলাদেশের বিমানবন্দরে যাত্রীদের সঙ্গে অবশ্যই কভিডমুক্ত সনদ দেখাতে হবে। বিমানে ওঠার ৭২ ঘণ্টা বা তার কম সময়ের মধ্যে নমুনা দিয়ে পিসিআর টেস্টের মাধ্যমে এই কভিডমুক্ত সনদ পেতে হবে। টিকা দেওয়া থাকলেও এ নিয়ম প্রযোজ্য হবে। আর যারা যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপের কোনো দেশ থেকে আসবেন, তাদের ১৪ দিন বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। ১৪ দিন পার হওয়ার পর আরটিপিসিআর নমুনা পরীক্ষায় কভিড-১৯ নেগেটিভ হলে কোয়ারেন্টাইনমুক্ত হবেন। লক্ষণ-উপসর্গ না থাকলে তাদের বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। তবে বিমানবন্দরে কারও লক্ষণ-উপসর্গ দেখা গেলে তাকে বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হবে এবং সেই খরচ তাকেই বহন করতে হবে। এ ব্যাপারে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মো. মশিউর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ১৮ দফা নির্দেশনা বাস্তবায়নে আমরা সিলেট বিভাগের সব জেলার পরিবহন মালিক সমিতি, দোকান মালিক সমিতি এবং ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। নির্দেশনা অনুযায়ী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য তাদের বলা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, যুক্তরাজ্য ফেরত যাত্রীদের এতদিন সাত দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হতো। কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরণে সিভিল এভিয়েশনের কর্মকর্তা, চিকিৎসক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সমন্বয়ে টিম রয়েছে। এই টিমের মাধ্যমে নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী ইউরোপ ফেরত যাত্রীদের ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হবে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ২৬ হাজার ৬২০ জনের নমুনা টেস্ট করে ৫ হাজার ৪২ জনের শরীরে করোনার জীবাণু পাওয়া গেছে। গতকাল মারা গেছেন ৪৫ জন, সংক্রমণ হার ছিল ১৮.৯৪ শতাংশ। গত সোমবার ২৮ হাজার ১৯৫ জনের নমুনা টেস্ট করে ৫ হাজার ১৮১ জনের শরীরে করোনার জীবাণু পাওয়া যায়। মারা গেছেন ৪৫ জন, সংক্রমণ হার ছিল ১৮.৩৮ শতাংশ। করোনার এই দ্বিতীয় ঢেউয়ে প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের হার। মার্চ মাসের শুরু থেকে বাড়তে শুরু করেছে করোনা আক্রান্ত রোগী। মার্চের শেষে গিয়ে গত বছর আক্রান্তের রেকর্ড পর্যন্ত ছাড়িয়ে গিয়েছে। সারা দেশে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে সংক্রমণ। এর মধ্যে ২৯টি জেলার সংক্রমণ ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

গত সোমবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদি সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, ঢাকা, চট্টগ্রাম, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, ফেনী ও চাঁদপুর রয়েছে এই ২৯ জেলার মধ্যে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের এমআইএস শাখায় ২৪ মার্চ পর্যন্ত আসা তথ্য বিশ্লেষণ করে এসব জেলাকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে বলে জানান ডা. ফ্লোরা। এ ব্যাপারে ঢাকা জেলার সিভিল সার্জন ডা. আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ঢাকা জেলার বেশ কিছু জায়গায় সংক্রমণ অনেক বেশি। এর মধ্যে কামরাঙ্গীরচর ও নবাবগঞ্জে সংক্রমণ হার অনেক বেশি। হাসপাতালগুলো তাদের সক্ষমতা অনুযায়ী সেবা দিয়ে যাচ্ছে। সবাই সচেতন হলে এবং স্বাস্থ্যবিধি মানলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব।

সর্বশেষ খবর