শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:২৬

লকডাউনের তৃতীয় দিন রাস্তা ফাঁকা বাজারে ভিড়

জয়পুরহাটে ট্রাফিক পুলিশকে মারধর আটক ৪

নিজস্ব প্রতিবেদক

লকডাউনের তৃতীয় দিন রাস্তা ফাঁকা বাজারে ভিড়
লকডাউনের তৃতীয় দিনে গতকাল রাজধানীর নিউমার্কেটের সামনে রাস্তা ছিল ফাঁকা, মার্কেটের ভিতরে ছিল সুনসান নীরবতা -জয়ীতা রায়
Google News

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে চলমান সর্বাত্মক লকডাউনের তৃতীয় দিনে গতকাল রাজধানীসহ সারা দেশের মূল সড়কগুলো অনেকটা ফাঁকা থাকলেও ভিড় দেখা গেছে বাজার ও অলি-গলির দোকানগুলোয়। সূর্যের প্রখর তাপ ও রোজার কারণে দিনের প্রথম ভাগে মানুষ ঘর থেকে কম বের হলেও বিকালের দিকে ভিড় বাড়তে থাকে। সন্ধ্যার পর অনেক এলাকার চিত্র দেখে বোঝার উপায় ছিল না দেশে লকডাউন চলছে। স্বাস্থ্যবিধি মানতেও দেখা যায়নি লকডাউন ভেঙে রাস্তায় বের হওয়া অধিকাংশ মানুষকে। এ ছাড়া জয়পুরহাটে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লকডাউনের বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকা তিন ট্রাফিক পুলিশকে মারধরের ঘটনাও ঘটেছে। এ ঘটনায় আটক করা হয়েছে চার যুবককে। লকডাউন বাস্তবায়নে গতকাল জেলায় জেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে অনেককে জরিমানা করেছে স্থানীয় প্রশাসন। গণপরিবহন, বিপণিবিতান ও বাণিজ্যিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় রাজধানীর মূল সড়কগুলো গতকাল ফাঁকা থাকলেও অলি-গলিতে স্বাভাবিক সময়ের মতোই ভিড় দেখা গেছে। গতকাল দুপুরের পর সরেজমিন রাজধানীর ভাটারা, বাড্ডা ও রামপুরা এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, অলি-গলির অধিকাংশ দোকানপাটই খোলা। পুলিশ এলে শাটার টেনে দেওয়া হচ্ছে। পুলিশ গেলে দোকান খুলছে। ইফতার কিনতে ও বাজার করতে শত শত মানুষ রাস্তায় নামলেও অনেকের মুখেই ছিল না মাস্ক। কেউ আবার মাস্ক লাগিয়ে রেখেছিলেন থুতনিতে। সন্ধ্যার পর প্রতিটি চায়ের দোকানে দেখা গেছে উপচে পড়া ভিড়। এ ছাড়া বিভিন্ন শহর এলাকায় কঠোর লকডাউন পালন হলেও মফস্বলে লকডাউনের তেমন কোনো প্রভাব পড়েনি বলে জানা গেছে। এদিকে লকডাউন ও রোজার প্রভাব পড়েছে রাজধানীসহ সারা দেশের বাজারগুলোতে। বেড়ে গেছে নিত্যপণ্য, মাছ-মাংস ও সবজির দাম। রোজার দ্বিতীয় দিনেই ঢাকায় তরমুজের দাম এক লাফে ২০-২৫ টাকা বেড়েছে কেজিতে। গতকাল ঢাকায় প্রতি কেজি তরমুজ বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকায়। ১৪ এপ্রিলও প্রতি কেজি তরমুজ বাজারভেদে ২৫-৩৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এ ছাড়া সব ধরনের সবজির দামই কেজিতে ৫ থেকে ২০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। লকডাউনে পণ্য পরিবহন বন্ধ না থাকলেও ব্যবসায়ীরা বলছেন, তরমুজ আসতে পারছে না। তাই দাম বাড়তি। অন্যদিকে দিনাজপুরে বিভিন্ন সবজির দাম দুই থেকে পাঁচ গুণ বৃদ্ধির খবর পাওয়া গেছে। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা পাঠিয়েছেন বিভিন্ন এলাকার লকডাউনের খবর।

জয়পুরহাটে পুলিশকে মারধরে আটক ৪ : করোনায় জয়পুরহাটে লকডাউনের বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকা তিন ট্রাফিক পুলিশকে মারধরের অভিযোগে সান্টু, চঞ্চল, সাগর ও আশিকুর রহমান নামে চার যুবককে আটক করেছে পুলিশ। জয়পুরহাট সদর থানার ওসি আলমগীর জাহান জানান, লকডাউনের বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে ছিল পুলিশ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিআইডিসি মোড়ে পুলিশের চেকপোস্টের সামনে দিয়ে মুখে মাস্ক ও মাথায় হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালিয়ে যাচ্ছিলেন সান্টু নামের এক যুবক। তাকে থামিয়ে কাগজপত্র দেখতে চাইলে সান্টুসহ স্থানীয় কয়েকজন তিন ট্রাফিক পুলিশকে মারধর করে। এ ব্যাপারে একটি মামলা হয়েছে। 

দিনাজপুরে সবজির দাম তিন গুণ : লকডাউনের অজুহাতে দিনাজপুরে কোনো কোনো সবজির দাম তিন গুণের বেশি বেড়েছে। বিপাকে পড়েছে নিম্ন আয়ের ও খেটে খাওয়া মানুষ। গতকাল সকালে দিনাজপুরের হিলি বাজারে দেখা যায়, লকডাউনের আগের দিনের তুলনায় প্রতিটি সবজির দাম দ্বিগুণ বেড়েছে। দুই দিনের ব্যবধানে ৩০ টাকা কেজি দরের বেগুন এখন বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। ৮ টাকা কেজির শসা বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায় ও ৪০ টাকার পটোল বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। এ ছাড়া ১০ টাকা পিসের বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়।

সিলেটে রাস্তা ফাঁকা, বাজারে ভিড় : গতকাল সিলেটের রাস্তায় কঠোর অবস্থানে ছিল পুলিশ। প্রয়োজন ছাড়া কেউ বের হলে তাকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আইন ভঙ্গ করায় যানবাহনের বিরুদ্ধে মামলাও দিতে দেখা গেছে। পুলিশি তৎপরতায় রাস্তায় মানুষের চলাচল কম থাকলেও বাজারগুলোতে ছিল উপচে পড়া ভিড়। স্বাস্থ্যবিধিও ছিল উপেক্ষিত। জুমার নামাজের পর রাস্তাঘাটে মোটরসাইকেল ও সিএনজি অটোরিকশার সংখ্যা দ্রুত বাড়তে থাকে। ফুটপাথেও হকাররা বসা শুরু করে। সবজি কিনতে নগরীর ব্রহ্মময়ীবাজার, লালবাজার, আম্বরখানা, সুবিদবাজার, রিকাবিবাজার ও সিলেট প্রধান ডাকঘরের সামনের রাস্তায় মানুষের ঢল নামে। বাজারগুলোতে ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে স্বাস্থ্যবিধির কোনো বালাই ছিল না। বিকাল ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে কাঁচাবাজার চালু থাকার কথা থাকলেও সন্ধ্যা পর্যন্ত মানুষকে বাজার করতে দেখা গেছে।

বগুড়ায় খোলা রেস্টুরেন্ট ও দোকানপাট : বগুড়ায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানের মধ্যেও নানা অজুহাতে ঘর থেকে বাইরে আসছে মানুষ। কেউ বাজার করার নাম করে, আবার কেউ প্রেসক্রিপশন ছাড়া ওষুধ কেনার কথা বলে বাইরে আসছে। শহরের প্রধান মার্কেটগুলো ও বিপণিবিতান বন্ধ থাকলেও কিছু কিছু এলাকায় রেস্টুরেন্ট ও দোকানপাট রয়েছে খোলা। মূল শহরের মধ্যে মাছের বাজার, সবজির বাজার বসানোর কারণে আরও বেশি বেড়েছে মানুষ। শহরের ঠনঠনিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় দোকানপাট খোলা থাকছে রাত পর্যন্ত। ভ্রাম্যমাণ আদালত গিয়ে দেখছে হোটেল বন্ধ। অথচ হোটেলের শাটার বন্ধ রেখেই ঠনঠনিয়া বাসস্ট্যান্ডের সামনে চলছে বাসি খাবার বিক্রি। গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও সড়ক-মহাসড়কে ট্রাক, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, ইজিবাইক, ব্যক্তিগত পরিবহন চলাচল করেছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ শহরে কঠোর, মফস্বলে ঢিলেঢালা লকডাউন : আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কারণে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শহরাঞ্চলে কঠোর লকডাউন চলছে। তবে মফস্বল এলাকায় ঢিলেঢালা লকডাউন পালিত হচ্ছে। গতকাল শহরের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের চেকপোস্ট বসানো হয়। শহরে মার্কেটসহ দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। তবে সকালে শহরের বড় ইন্দারা ও পুরাতন বাজার এলাকায় কয়েকটি ইলেকট্রনিক্স, ইলেকট্রনিক্স, হার্ডওয়্যার ও কাপড়ের দোকান অর্ধেক খোলা রেখে ব্যবসা করতে দেখা গেছে।

শ্রীপুরে সুনসান নীরবতা : গাজীপুরের শ্রীপুরের সড়কগুলো গতকাল অনেকটাই ফাঁকা ছিল। কিছু সময় পর পর পণ্যবাহী ট্রাক ও কয়েকটি যাত্রীবাহী অটোরিকশা এবং মোটরসাইকেল চলাচল করতে দেখা গেছে। সড়কের মোড়ে  মোড়ে পুলিশ ছাড়া লোকজনের চলাচল তেমন দেখা যায়নি। মাওনা কাঁচা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, সুনসান নীরবতা। বাজারে সবজি, ডিম, মাছ, মুরগি সবই আছে। কিন্তু ক্রেতা নেই। সবজি বিক্রেতা মোহাম্মদ ফারুক শেখ বললেন, বাজারে তেমন লোকজন আসে না। কাঁচা বাজারের ব্যবসায়ীদের অবস্থা খুব খারাপ। দিনের জিনিস দিনে বিক্রি করতে না পারলে পচে নষ্ট হয়ে যায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৭ জনকে জরিমানা : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ঢিলেঢালা লকডাউন চলছে। সকাল থেকেই শহরের সড়কগুলোতে সাধারণ মানুষের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। মানুষের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে সচেতনতা লক্ষ্য করা যায়নি। লকডাউন ঘিরে বন্ধ রয়েছে দোকানপাট, শপিং মলসহ সরকারি নির্ধারিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। শহরে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ ছোট আকারের যান চলাচল করছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলা এবং যানবাহনের কাগজপত্র না থাকায় গতকাল ১৭ জনকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নাটোরে দুজনের জরিমানা : নাটোর সদর উপজেলায় গতকাল মাস্ক না পরায় তরমুজের আড়তদারকে ৫০০ টাকা ও ওজনে কম দেওয়ায় এক মাংসের দোকানদারকে ১ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ছাড়া জনসাধারণের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়।

ফেরি চলাচল স্বাভাবিক : পণ্য পরিবহনের জন্য রাতে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল স্বাভাবিক রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম। এ ছাড়া সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের এজিএম মো. ফিরোজ শেখ বলেন, লকডাউনের কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে দিনের বেলায় অ্যাম্বুলেন্স ও মরদেহ পারাপারের জন্য মাঝে মাঝে দুটি ফেরি চলাচল করছে। রাতে পণ্যবাহী ট্রাক চলাচলের জন্য ফেরি চলাচল করছে।

নারায়ণগঞ্জে বাজারে উপচে পড়া ভিড় : গতকাল নারায়ণগঞ্জের সড়ক ফাঁকা  দেখা গেলেও বাজার ও খাবারের দোকানগুলোতে উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। শহরের মার্কেট ও বিপণিবিতানগুলো বন্ধ ছিল। শহরে যানবাহন ও মানুষের চলাচল কম থাকলেও সবগুলো বাজারে ছিল উপচে পড়া ভিড়।

রূপগঞ্জে স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলায় লকডাউন চলছে অনেকটা ঢিলেঢালাভাবে। পাড়া-মহল্লার চায়ের দোকান, কাঁচা বাজার ও রাস্তায় সাধারণ মানুষের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে।  বেশির ভাগ মানুষকেই মানতে দেখা যায়নি স্বাস্থ্যবিধি। লকডাউনে উপজেলার কোথাও বাস চলাচল না করলেও গণপরিবহন হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে লেগুনা, সিএনজি, ইজিবাইকসহ থ্রি হুইলার যানবাহন। এসব যানবাহনে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি।

গাদাগাদি করে যানবাহনে চড়ছেন যাত্রীরা। প্রশাসন ও স্থানীয় প্রভাবশালী দলের নেতা-কর্মীদের ম্যানেজ করে লেগুনা, সিএনজি, ইজিবাইক চলছে বলে জানা যায়। এসব যানবাহনে গন্তব্যে যেতে তিন গুণ ভাড়া গুনতে হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

এই বিভাগের আরও খবর