শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৪৩

ক্র্যাকডাউন চালিয়ে নির্বিচারে গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক

ক্র্যাকডাউন চালিয়ে নির্বিচারে গ্রেফতার

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, করোনাকালে লকডাউনের সুযোগ নিয়ে ‘ক্র্যাকডাউন’ চালিয়ে নির্বিচারে আলেম-ওলামাদের গ্রেফতার করা হচ্ছে। সরকার টিকে থাকার জন্য পুলিশকে ব্যবহার করছে। এ জন্য পুলিশও ক্ষমতার অপব্যবহার করছে। ধর্মীয় নেতাদের এ গ্রেফতার-হয়রানি দেশের ধর্মপ্রাণ জনগণ মেনে নেবে না। অবিলম্বে তাদের মুক্তি দিতে হবে। গতকাল এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এ অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব বাঁশখালীতে শ্রমিকদের গুলি করে হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে নির্মম এ হত্যাকান্ডের বিচার দাবি করেন। এ সময় তিনি করোনাকালে ‘মানুষের জীবন রক্ষায়’ ব্যর্থ হওয়ায় সরকারের পদত্যাগ দাবি করেন। একই সঙ্গে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও স্বাস্থ্য অধিদফতরের দুর্নীতিবাজ ব্যক্তিদের শাস্তি দাবি করেন তিনি। চলমান ধারাবাহিক এ লকডাউনে অসহায় ও দরিদ্র মানুষ বিশেষ করে দিনমজুরদের নগদ টাকা সহায়তা দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান বিএনপি মহাসচিব। একই সঙ্গে গার্মেন্ট কারখানার পাশাপাশি অন্যান্য সেক্টরেও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের আর্থিক প্রণোদনা দেওয়ার অনুরোধ জানান তিনি। মির্জা ফখরুল বলেন, লকডাউনকে ব্যবহার করে ক্র্যাকডাউনে ইতিমধ্যে বিএনপির ৩ শতাধিক নেতা-কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদিকে ধর্মীয় নেতা আলেম-ওলামাদের নির্বিচারে গ্রেফতার করা হচ্ছে। অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনকভাবে, যারা ধর্মীয় নেতৃস্থানীয় মানুষ, শ্রদ্ধার পাত্র তাদের গ্রেফতার করে অসংখ্য মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে। বিএনপির এই মুখপাত্র বলেন, লকডাউনের সময় আরও বৃদ্ধি করা হবে। কিন্তু শ্রমিক ও কৃষকের জন্য কোনো ব্যবস্থা না করেই এ লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। ফলে সাধারণ মানুষ অনেক কষ্টে আছে। ‘দিন আনে দিন খায়’ এমন মানুষকে জরুরি ভিত্তিতে নগদ অর্থ প্রদান করতে হবে। এর জন্য প্রয়োজনে বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ স্থগিত রেখে সেখানে টাকা ব্যয় না করে সমাজের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের কাছে আর্থিক প্রণোদনা পৌঁছাতে হবে। মির্জা আলমগীর বলেন, কোনো রাজনীতির জন্য নয় মানুষকে বাঁচানোর জন্য এসব বিষয় সামনে নিয়ে আসতে হবে। এখন মানুষকে বাঁচানো ছাড়া আর কী করার আছে? অন্যান্য দেশ প্রথমে যেটা করেছে সেটা হলো তারা বিপুল পরিমাণ নগদ অর্থ গরিব ও সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিয়েছে। আর নগদ টাকা যদি সাধারণ মানুষের কাছে না পৌঁছায় তাহলে অর্থনীতিই অচল হয়ে যাবে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে গত বছরের মতো এবারও বিএনপির পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি প্রস্তাব দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর