শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ মে, ২০২১ ২৩:২৮

দীর্ঘ হচ্ছে মৃত স্বাস্থ্যকর্মীদের তালিকা

জয়শ্রী ভাদুড়ী

দীর্ঘ হচ্ছে মৃত স্বাস্থ্যকর্মীদের তালিকা

করোনা মহামারীর দেড় বছরে আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিতে গিয়ে প্রাণ দিয়েছেন ১৫৫ জন চিকিৎসক। এ ছাড়া দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মারা গেছেন ১২ জন নার্সসহ অন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা। সম্মুখসারির এ স্বাস্থ্যকর্মীরা হাসপাতালে সেবা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন। মারা যাওয়া চিকিৎসকদের মধ্যে ছয়জনের পরিবারকে এ পর্যন্ত ৫০ লাখ টাকা করে দেওয়া হয়েছে সরকারের পক্ষ থেকে। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘কভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে গিয়ে এ পর্যন্ত ১৫৫ জন চিকিৎসক মারা গেছেন। এ ছাড়া নার্সসহ মারা গেছেন আরও ১১২ জন স্বাস্থ্যকর্মী। মানুষের সেবায় জীবন দিয়েছেন এই স্বাস্থ্যকর্মীরা। এ পর্যন্ত মৃত চিকিৎসকদের ছয়জনের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ৫০ লাখ টাকা করে সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া আশার কথা, করোনা রোগীদের চিকিৎসায় দায়িত্ব পালন করছেন এমন স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে ১৫০ জনকে প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। বাকিদের পর্যায়ক্রমে দেওয়া হচ্ছে। করোনার সম্মুখযোদ্ধা সর্বশেষ চিকিৎসক পর্যন্ত প্রণোদনার অর্থ পৌঁছালে তবেই আমরা সন্তুষ্ট হব।’ এই চিকিৎসক নেতা আরও বলেন, ‘বেসরকারি হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসকদের সরকার প্রণোদনা না দেওয়ায় আমরা আশাহত হয়েছি। কারণ দেশের মানুষের সেবায় বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। তারাও করোনা রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তুলছেন। অথচ প্রণোদনার তালিকায় তাদের নাম না থাকা আমাদের হতাশ করে। একইভাবে অ্যাম্বুলেন্সচালক ও হাসপাতালের ট্রলি বহন করে এমন পেশাজীবীদের ডাবল বোনাসের টাকা দেওয়া হচ্ছে না। অথচ রোগীকে হাসপাতাল পর্যন্ত নিয়ে আসেন এই অ্যাম্বুলেন্সচালকরা, রোগী নামিয়ে ওয়ার্ডে নিয়ে যান এই ট্রলিম্যানরা। আমাদের দাবি, তাদের এই প্রাপ্য বোনাস দেওয়া হোক।’ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর খুব কাছের মানুষগুলোও যখন চলে যায়, তখন পাশে থাকেন চিকিৎসকেরা। গত এক বছরে হাসপাতালগুলোয় তারা দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে নিজেরা আক্রান্ত হয়েছেন, পরিবারকেও আক্রান্ত করেছেন। তবু দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়াননি চিকিৎসকেরা। অন্যকে বাঁচাতে গিয়ে অনেকে মারাও গেছেন। চিকিৎসকদের মৃত্যু তালিকার সেই সংখ্যা এখন দাঁড়িয়েছে ১৫৫ জনে। করোনাকালে বেশির ভাগ মানুষ যখন ঘরবন্দী, তখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিরামহীন রোগীদের সেবা দিয়ে গেছেন চিকিৎসকেরা। গত বছর করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রথম দিকে হাসপাতালগুলোয় পর্যাপ্ত সুরক্ষাব্যবস্থা ছিল না। সে সময় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে একের পর এক চিকিৎসক আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন।

দেশে করোনায় প্রথম চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছিল গত বছর ১৫ এপ্রিল। সেদিন মারা গিয়েছিলেন সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মঈন উদ্দীন আহমেদ (৪৭)। মঈন উদ্দীন আহমেদ করোনায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা করতে গিয়েই সংক্রমিত হয়েছিলেন। ঢাকার একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুর খবরে চিকিৎসক সমাজসহ সব পেশাজীবী শ্রেণি ও সাধারণ মানুষের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে।

গত বছর জুন মাসটি ছিল চিকিৎসক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের জন্য দুঃসহ। জুনে প্রতিদিনই দেশের কোনো না কোনো এলাকা থেকে আসত চিকিৎসকের মৃত্যুর খবর। বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএর) তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালের জুনে মারা গেছেন ৪৫ জন চিকিৎসক। সবচেয়ে বেশি চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে ৪ জুন। ওই দিন পাঁচজন চিকিৎসক মারা যান, যা এক দিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক চিকিৎসকের মৃত্যুর ঘটনা। গত বছর সেপ্টেম্বরের পর থেকে চিকিৎসকদের মৃত্যুর হার অবশ্য কিছুটা কমে। তবে তা এ বছরের এপ্রিলে এসে আবার বেড়ে যায়। এ বছরের জানুয়ারিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান তিন চিকিৎসক। ফেব্রুয়ারিতে মারা যান একজন। মার্চে মারা যান তিনজন।

করোনা সংক্রমণের শুরুতে ও গেল বছরের জুনে সংক্রমণ প্রতিরোধে নানা ধরনের অব্যবস্থাপনা ছিল। পর্যাপ্ত পরিমাণে ব্যক্তিগত নিরাপত্তাসামগ্রী (পিপিই) ও মানসম্মত মাস্কের সংকট ছিল। পাশাপাশি এগুলো ব্যবহারেও অসচেতনতা ছিল। যে কারণে বেশিসংখ্যক চিকিৎসক আক্রান্ত হয়েছেন এবং মৃত্যুর ঘটনাও বেশি ঘটে। এর মধ্যেই দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হচ্ছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অ্যানেসথেশিওলজিস্ট ডা. রাজীব শাহরিয়ার গত বছর এপ্রিলে প্রথম করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। এ বছর ২২ মার্চ তিনি পুনরায় করোনা আক্রান্ত হন। ডা. রাজীব শাহরিয়ার বলেন, ‘গত বছর আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে পুনরায় আইসিইউ ডিউটি থেকে শুরু করে সার্বিক কাজ করছিলাম। আমি বাসা থেকে এন৯৫ মাস্ক পরে হাসপাতালে যেতাম আর বাসায় এসে খুলতাম। এর মধ্যে পিপাসা লাগলে পানিও খেতাম না। কিন্তু এক দিন মাস্ক খুলে হালকা নাস্তা করি। এর পরই করোনা টেস্টে পুনরায় পজিটিভ আসে।’ তবে টিকা নেওয়ায় জটিলতা কমেছে উল্লেখ করে এ চিকিৎসক বলেন, ‘উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস ও স্থূলতা- এ তিন স্বাস্থ্যগত জটিলতা থাকা সত্ত্বেও আমাকে আইসিইউতে যেতে হয়নি। ৭ ফেব্রুয়ারি চিকিৎসকদের মধ্যে প্রথমে টিকা নিয়েছিলাম। এর এক মাস ১৫ দিন পরই করোনা আক্রান্ত হই। এক ডোজ টিকাতেই আমার অ্যান্টিবডি পিকে ছিল। এ জন্য করোনা আমাকে কাবু করতে পারেনি। স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে আক্রান্ত বাড়ছে। আমার আরও তিন চিকিৎসক সহকর্মী দ্বিতীয়বার করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।’ দেশে করোনায় দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হওয়ার এটি প্রথম বা একমাত্র ঘটনা নয়। গত বছর এ ধরনের ঘটনা আরও শোনা গিয়েছিল। অতিসম্প্রতি সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে করোনায় দ্বিতীয়বার আক্রান্ত হওয়ার খবরও পাওয়া যাচ্ছে। ঘটছে তৃতীয়বার আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা।