শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৯ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ মে, ২০২১ ২৩:৩৮

জন্মনিয়ন্ত্রণে বিশ্বাসী নয় রোহিঙ্গারা

পরিবার পরিকল্পনা কর্মীদেরকে অসহযোগিতা

মাহমুদ আজহার, ভাসানচর থেকে ফিরে

জন্মনিয়ন্ত্রণে বিশ্বাসী নয় রোহিঙ্গারা
Google News

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের মংদু এলাকা থেকে আসা হালিমা বেগম। কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং হয়ে সর্বশেষ আশ্রয়স্থল হয়েছে ভাসানচরে। তার মোট আট সন্তান। এর মধ্যে সবচেয়ে ছোট হারিছের বয়স ১০ মাস। ওমরের বয়স দুই বছর ও রফিকের বয়স তিন বছর। বাকিদের বয়স ৫ থেকে ১৩ বছরের মধ্যে। তার কাছে জানতে চাওয়া হয়, জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করেন কি না। কিছুটা লজ্জা পেয়ে মুখ ঢেকে জানালেন, এটা ধর্মীয় দৃষ্টিতে পাপ। তাছাড়া তার স্বামীও এটা চায় না। ভাসানচরে আসা রহিমা খাতুনও সাত সন্তানের জননী। তার স্বামী শফিকুল ইসলাম জানালেন, তাদের লাঠিয়াল বাহিনীও দরকার আছে। তাছাড়া যত লোক তত রেশনিং কার্ডও পাওয়া যায়। শুধু হালিমা বা রহিমা খাতুনই নন, ভাসানচরে আসা ৩ হাজার ৪৪০টি দম্পত্তির বড় অংশই জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতিতে বিশ্বাসী নন। কনডম, টিকা বা ট্যাবলেটের মতো স্বল্পমেয়াদি জন্মবিরতিকরণ পদ্ধতিতে রোহিঙ্গা নারী-পুরুষের অনীহা। ধর্মীয় যুক্তি দাঁড় করানোর পাশাপাশি যত সন্তান তত রেশন কার্ড, পারিবারিকভাবে প্রভাব বিস্তারে সন্তান নেওয়ার অজুহাতও দেখান তারা।

ভাসানচরে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, শিক্ষার অভাবে রোহিঙ্গারা তেমন সচেতন নয়। মুসলিম জনগোষ্ঠী হওয়ায় ধর্মীয় বিশ্বাসকেও তারা গুরুত্ব দেন বেশি। তাই প্রত্যেকের পরিবারেই গড়ে পাঁচ থেকে ১০ জন সন্তান-সন্ততি রয়েছে। জন্ম নিয়ন্ত্রণ বিষয়েও তাদের সচেতনতা কম। তাদের ধারণা, বেশি সন্তান নিতে পারলে খাবার সংগ্রহ করাসহ নানা সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যাবে। ভাসানচরে আসা রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের দেখা মেলে হাসপাতালগুলোতে। জ্বর, কাশিসহ বিভিন্ন অসুখে ভুগছে অনেক শিশু। কোনো কোনো ঘরে নবজাতকের কান্নাও শোনা যায়।

ভাসানচর রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এমন এক নারীকে পাওয়া গেছে, যার ১০ জনের বেশিও ছেলে-মেয়ে রয়েছে। রোজিনা বেগম নামে ৫০ বছর বয়সী রোহিঙ্গা নারী জানালেন, এত বেশি সন্তান-সন্ততি থাকলেও তাদের কোনো সমস্যা হয় না। মিয়ানমারের আকিয়াব জেলার বুছিডং এলাকার ভাসানচর ক্যাম্পে আশ্রয় নেওয়া সাইফুল্লাহ জানালেন, ছেলে-মেয়ে সবাই কাজ করত তার সঙ্গে। তাই কখনো বোঝা মনে হয়নি। জন্ম নিয়ন্ত্রণ ইসলামসম্মত নয়। তাছাড়া বেশি সন্তান থাকলে নিত্যকার লড়াই চালাতে সুবিধা হয়। ভাসানচরে পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক অনুপম চন্দ্র দাস বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, শিক্ষার অভাবে কেউ কেউ জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণ করতে চান না। তার পরও আমরা ৯ জন পরিবার পরিকল্পনা কমর্কতা-কর্মচারী কাজ করছি। গত সপ্তাহে জন্মনিয়ন্ত্রণে ৮২ জনকে ইনজেকশন দিয়েছি। তবে পুরুষরা কনডম ব্যবহার করতে চায় না। নারীরা এখন জন্ম নিয়ন্ত্রণ পিল গ্রহণ করতে আগ্রহ দেখাচ্ছে। তবে রোহিঙ্গাদের শিক্ষিত করে তুলতে পারলে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি গ্রহণে কোনো সমস্যা হবে না।

জানা যায়, সরকারিভাবে পরিবার পরিকল্পনার একজন ভিজিটর, একজন পরিদর্শক এবং সাতজন পরিবার পরিকল্পনা সহকারী ভাসানচরে কাজ করছেন। এ ছাড়াও বেসরকারিভাবে ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতালের কিছু মাঠকর্মী কাজ করছে। তবে ভাসানচরে আরও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ করা জরুরি বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। নইলে যে হারে রোহিঙ্গারা সন্তান নেন, তাতে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ব্যাপক মাত্রায় বৃদ্ধি পাবে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলোতে এমনিতেই মানুষের সংখ্যা বেশি। আর নতুন শিশুর জন্ম হতে থাকলে তা আরও বেড়ে গিয়ে পরিস্থিতিকে জটিল করে তুলতে পারে। তাছাড়া ভাসানচরে আরও বেশি এনজিওকর্মী আসা জরুরি বলে মনে করেন কেউ কেউ।

ভাসানচরে সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে অন্তত প্রাথমিক শিক্ষা দিতে হবে। তবে তাদের বাংলা ভাষায় না রাখাইনের ভাষায় শিক্ষা দেওয়া হবে তা নিয়েও দ্বিধাদ্বন্দে¦ রয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। তাছাড়া রোহিঙ্গাদের জন্য পৃথক একটি আইন জরুরি। তারা কী করতে পারবে না পারবে, অপরাধ করলে তাদের বিরুদ্ধে কী ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে তার সুনির্দিষ্ট কিছু বিধিবিধান থাকা জরুরি। নইলে রোহিঙ্গারা অপরাধ করলেও তাদের শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা যায় না। এ জন্য ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জীবনমান উন্নয়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট আরও বেশি এনজিওকে কাজ করার অনুমতি দেওয়া উচিত।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে স্বাস্থ্যসেবা কাজে জড়িত কর্মীরা জানান, রোহিঙ্গারা যৌন মিলনের সময় কোনো ধরনের পদ্ধতি ব্যবহার করতে রাজি নন। গত দুই মাস ধরে অনেক চেষ্টার পর মাত্র সাড়ে ৫০০ প্যাকেট কনডম বিতরণ করা হয়েছে। তবে তা-ও ব্যবহারে অনীহা রয়েছে তাদের। এই পরিস্থিতিতে পুরুষদের জন্য স্থায়ী জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ভ্যাসেকটমি আর নারীদের জন্য স্থায়ী পদ্ধতি টিউবেকটমি চালু করছে সরকার। এদিকে ভাসানচরে সরকারি বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে খোঁজ নিয়ে দেখা যায় নারী-পুরুষ ও শিশুদের লম্বা লাইন। রোহিঙ্গাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে এসব হাসপাতালে। চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সার্জিক্যাল বা ডেলিভারি সমস্যায় পাঠিয়ে দেওয়া হয় নোয়াখালী সদর হাসপাতালে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় রোহিঙ্গাদের চিকিৎসা নিশ্চিত করা হয়। ভাসানচর সরকারি হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায় দুজন এমবিবিএস চিকিৎসক ডা. ফেরদৌস-উর রহমান ও ডা. কামরুল হাসান রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের চিকিৎসা দিচ্ছেন। তারা দুজনই জানান, বড় ধরনের কোনো জটিল রোগ না হলে তারাই সব ধরনের রোগীর চিকিৎসা দিচ্ছেন। রোহিঙ্গাদের বিনামূল্যে চিকিৎসা খরচ ও ওষুধপত্র দেওয়া হচ্ছে। জটিল কোনো রোগীকে নোয়াখালী বা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় বলে জানান তারা।

ভাসানচর সরকারি হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. ফেরদৌস-উর রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ কেউই সচেতন নয়। তাদের শিক্ষিত করে তুলতে পারলে জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি নিজে থেকেই তারা গ্রহণ করবে। তাছাড়া অনেক অপরাধ প্রবণতা কমে যাবে। অনেক রোহিঙ্গা নারী মুখের নেকাব খুলতে চান না। এ ক্ষেত্রেও চিকিৎসাসেবা দিতে সমস্যা হয়।