শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১২ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ জুন, ২০২১ ২৩:৫৫

বিচারকাজ স্বাভাবিক না হলে মামলাজট ভয়াবহ রূপ নেবে

আরাফাত মুন্না

বিচারকাজ স্বাভাবিক না হলে মামলাজট ভয়াবহ রূপ নেবে
ড. মোমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী
Google News

সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক ও সাধারণ আইনজীবী ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক ড. মোমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী বলেছেন, করোনাভাইরাসের কারণে এক বছরেরও বেশি সময় ধরে আদালতের কার্যক্রম চলছে সীমিত পরিসরে। ফলে অনেক বিচারপ্রার্থীই মামলা নিয়ে দীর্ঘসূত্রতায় পড়েছেন। তিনি বলেন, বিচার কাজ যদি স্বাভাবিক না হয় তাহলে দেশের আদালতগুলোতে বিচারাধীন মামলার জট আরও ভয়াবহ রূপ নেবে। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, আদালত বন্ধ থাকায় বিচারপ্রার্থীরা যেমন ভোগান্তিতে রয়েছেন,  ঠিক একইভাবে আইনজীবীরাও সমস্যায় পড়েছেন। বিচার কাজ স্বাভাবিকভাবে না চলায় আইনজীবীরা তাদের ক্লায়েন্টকে আইনগত সহায়তা দিতে পারছেন না। ফলে তাদের আয়ের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। অধিকাংশ আইনজীবী চরম আর্থিক সংকটে পড়েছেন। মেহেদী বলেন, বিচারপ্রার্থীরা প্রাপ্ত আইনগত অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এক বছর তিন মাস ধরে নিম্ন আদালতে শুধু জামিন ও আত্মসমর্পণ আবেদনের শুনানি হচ্ছে। সাক্ষ্যগ্রহণসহ বাকি সব বন্ধ। ফলে বিচারাধীন মামলাগুলো থমকে আছে। এমন পরিস্থিতি থেকে দ্রুত বেরিয়ে আসা প্রয়োজন উল্লেখ করে সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক এ সম্পাদক বলেন, এই মুহূর্ত থেকে যে কোনো উপায়ে আদালতের কার্যক্রম স্বাভাবিক করতে হবে। উচ্চ আদালতে সশরীরে উপস্থিতি ও ভার্চুয়াল পদ্ধতি মিলিয়ে ৫৩টি বেঞ্চ সচল করতে হবে। আর নিম্ন আদালতে সশরীরে উপস্থিতির মাধ্যমে আদালতের কার্যক্রম স্বাভাবিক করতে হবে। তিনি বলেন, উচ্চ আদালতে ভার্চুয়াল ব্যবস্থা সহজলভ্য হলেও নিম্ন আদালতে তা দুষ্প্রাপ্য। গ্রামাঞ্চলে ইন্টারনেট সেবা ততটা উন্নত নয়। তাই নিম্ন আদালতে সশরীরে উপস্থিতির বিকল্প নেই। সশরীরে আদালতে স্বাস্থ্যবিধি কী হবে, এমন প্রশ্নে মেহেদী বলেন, প্রত্যেক জেলা আইনজীবী সমিতির দায়িত্ব হবে আদালত এলাকার স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা। এ ক্ষেত্রে সরকার বিষয়টি কঠোর মনিটরিংয়ে রাখতে পারে। আইনজীবীদের উচিত হবে প্রয়োজন না হলে ক্লায়েন্টকে আদালতে না আনা। এ ছাড়া বিচারক, আইনজীবী ও আদালতের কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়া অন্য কারও আদালত এলাকায় প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করেও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা যায় বলে মনে করেন এই আইনজীবী নেতা।

এই বিভাগের আরও খবর