বুধবার, ১৬ জুন, ২০২১ ০০:০০ টা

এলপিজির মূল্যহার নিয়ে হুমকিতে ৩০ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ

ক্ষতিগস্ত ব্যবসায়ী ভোগান্তিতে গ্রাহক

নিজস্ব প্রতিবেদক

তরলীকৃত পেট্রোলিয়াম গ্যাস বা এলপিজির নতুন ঘোষিত খুচরা মূল্যহার চালুর পর থেকে দেশের বেসরকারি পর্যায়ের উৎপাদনকারী অপারেটর, ডিস্ট্রিবিউটর ও রিটেইলাররা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। এর আগে বিভিন্ন সময় এলপিজির দাম নির্ধারণের জন্য এলপিজি অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (লোয়াব) নেতারা বেশ কয়েকবার বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) সঙ্গে আলোচনা করেছেন। কিন্তু বিইআরসি যে দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে এর কোনো ভিত্তি নেই বলে অভিযোগ করেন লোয়াব নেতারা। দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে মামলার ভয়ে অনেক খুচরা বিক্রেতা এখন এলপিজি সিলিন্ডার কিনছেন না। এতে এসব অঞ্চলের ভোক্তারা ভোগান্তিতে পড়েছেন। আর এজন্য লোয়াব নেতারা বিইআরসিকে দায়ী করছেন। একই সঙ্গে অটোগ্যাসের  খুচরা মূল্যহার বছরে মাত্র একবার নির্ধারণ করার জন্য বিইআরসিকে অনুরোধ করেন তারা। গতকাল রাজধানীর এক হোটেলে ‘এলপি গ্যাসের মূল্যহার এবং এলপি গ্যাস শিল্প, বাজার ও ভোক্তাসাধারণের ওপর ঘোষিত মূল্যহারের প্রভাব’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে লোয়াব নেতারা এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা জানান, দেশে বিভিন্ন জ্বালানির মধ্যে একমাত্র এলপিজি খাতেই সরকারকে কোনো ভর্তুকি দিতে হয় না। কিন্তু নতুন ঘোষিত মূল্যহার নিয়ে জটিলতা তৈরি হওয়ায় ৩০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগের এ খাতটি হুমকিতে পড়েছে। এ সিদ্ধান্তে অনেকের ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে তারা বাস্তবসম্মত দাম ঠিক করে দেওয়ার আহ্বান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে লোয়াব প্রেসিডেন্ট আজম জে চৌধুরী বলেন, দেশের এলপিজি সেক্টরের ব্যবসায়ীরা ৩০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন, যা মোট জিডিপির ৭ শতাংশ। এলপি গ্যাস ব্যবহারের ফলে ৫০ হাজার কিউবিক মিটার প্রাকৃতিক গ্যাস বেঁচে গেছে। বিইআরসি এলপিজির যে দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে তাতে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বৈষম্য সৃষ্টি হয়েছে। বরং এ সিদ্ধান্তে অনেকের ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে হলে বাস্তবসম্মত দাম ঠিক করে দিতে হবে। বসুন্ধরা এলপি গ্যাসের হেড অব সেলস প্রকৌশলী জালাল জাকারিয়া বলেন, ‘দেশে বিভিন্ন জ্বালানির মধ্যে একমাত্র এলপিজি খাতে সরকারকে কোনো ভর্তুকি দিতে হয় না। নতুন যে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে তা দিয়ে এলপিজি ব্যবসায়ীদের বেঁচে থাকা কষ্টকর। নতুন দাম বাস্তবতার আলোকে নির্ধারণ করা হয়নি। ব্যবসা করার জন্য এলপিজি ব্যবসায়ীদেরই শুধু ১৩টি প্রতিষ্ঠান থেকে লাইসেন্স নিতে হয়। এ অবস্থায় এ ধরনের মূল্য নির্ধারণ করে দেওয়ায় ব্যবসায়ীরা আরও সমস্যায় পড়েছেন। বসুন্ধরা এলপি গ্যাস কর্তৃপক্ষ শুধু সিলিন্ডারের জন্যই ২ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। মূল্যহার নিয়ে জটিলতা তৈরি হওয়ায় ঝিনাইদহ, পাবনা ও নওগাঁয় এখন ডিস্ট্রিবিউটররা মামলার ভয়ে সিলিন্ডার নিচ্ছেন না। বেসরকারিভাবে দেশের প্রত্যন্ত এলাকাগুলোয় বিকল্প এই জ্বালানির ব্যবস্থা করে দেওয়ার পর নতুন করে এ অযৌক্তিক মূল্য ঘোষণা করে আমাদের ব্যবসা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। আমরা এলপি গ্যাসের জন্য একটি নির্দিষ্ট মূল্য নির্ধারণ করার বিষয়টিকে সাধুবাদ জানাই। কিন্তু এটি বাস্তবসম্মত হতে হবে।’ ওমেরা এলপিজি কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শামসুল হক আহমেদ বলেন, ‘আমরা বিইআরসিকে সবকিছু জানানোর পর যৌক্তিক দাম নির্ধারণ করতে বলেছি। এ অবস্থায় আমাদের ব্যবসা টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে পড়েছে।’ লোয়াব নেতারা বলেন, বেসরকারি উদ্যোক্তারা এ খাতে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান থেকে বিপুল পরিমাণ ঋণ নিয়ে হাজার হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। এতে দেশের সাড়ে ৪ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। প্রায় ৩ কোটি মানুষ এলপি গ্যাস থেকে লাভবান হচ্ছেন। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে ঘোষিত এলপি গ্যাসের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্যহার ত্রুটিপূর্ণ হওয়ায় এ শিল্পে বিরূপ প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এলপি গ্যাসের মূল্যহার নির্দিষ্ট করার জন্য দেশে কোনো প্রবিধানমালা নেই। একটি বাস্তবসম্মত প্রাইসিং ফরমুলা নির্দিষ্ট করার জন্য বিইআরসি ও বেসরকারি এলপি গ্যাস অপারেটররা বেশ কয়েকবার আলোচনাও করেন। কিন্তু এরপর ১২ এপ্রিল বিইআরসি যে মূল্যহার ঘোষণা করেছে তাতে খরচ ও মুনাফার প্রকৃত হিসাব প্রতিফলিত হয়নি। বরং ভ্যালু চেইনের প্রতিটি স্তরে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছে। বিইআরসি-ঘোষিত মূল্যহার প্রকৃত উৎপাদন ব্যয়ের চেয়েও কম এবং ডিস্ট্রিবিউটর ও রিটেইলারদের যে ব্যয় ধরা হয়েছে তা সরকারি এলপি গ্যাসের তুলনায় অনেক কম। সরকারি এলপি গ্যাসের ডিস্ট্রিবিউটরের জন্য বিইআরসি নির্দিষ্ট করেছে ৫০ টাকা, অন্যদিকে বেসরকারি এলপি গ্যাসের ডিস্ট্রিবিউটরদের জন্য নির্দিষ্ট করা হয়েছে মাত্র ২৪ টাকা। এরই মধ্যে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের কর্মচারী ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ঘোষিত মূল্যহারে এলপি গ্যাস বিক্রির জন্য অভিযান শুরু করলে অনেক ডিলার ও রিটেইলার এলপি গ্যাসের কেনাবেচা বন্ধ করে দেন। বিশেষ করে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম ও উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে ডিস্ট্রিবিউটর ও রিটেইলাররা এলপি গ্যাস বিক্রি বন্ধ করায় সেখানে ভোক্তারা ভোগান্তিতে পড়েছেন। এ অবস্থায় সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, মানসম্পন্ন ব্যবসার জন্য ১২ কেজির একটি সিলিন্ডার রিফিলের ক্ষেত্রে ৩২.৫ শতাংশ করপোরেট ট্যাক্স কাটার পর কমপক্ষে ৫০.৬২ টাকা মুনাফা হওয়া যৌক্তিক। আবার কমিশন মূল্যহার নির্ধারণে প্লান্ট থেকে ডিস্ট্রিবিউটর ওয়্যারহাউস পর্যন্ত এলপিজি সিলিন্ডারের পরিবহন ব্যয় ধরা হয়নি। কমিশন এ কম্পোনেন্টে ৪৬ টাকার অতিরিক্ত ব্যয় ধরে মোট ব্যয় ৯১ টাকায় উন্নীত করবে বলে লোয়াব আশা করছে। এ ছাড়া প্রতি তিন বছরে একবার সিলিন্ডার পেইন্ট বাবদ ২০০ এবং প্রতি ভাল্ব পরিবর্তনে ২৭৫ টাকা রুটিন দায়িত্ব। সব খরচ সঠিকভাবে নেওয়া হলে বিইআরসি অনুমোদিত ২৮.৪০ টাকার সঙ্গে অতিরিক্ত ২৮ টাকা যোগ করে মোট চার্জ ৫৬.৪০ টাকা নির্ধারণ প্রয়োজন। বিইআরসি বর্তমানে এক মাস পর মূল্যহার ঘোষণা করছে, যা নিয়ে ভুল ঝোঝাবুঝির সৃষ্টি হচ্ছে বলে তারা জানান। আবার অটোগ্যাসের মূল্য প্রতি মাসে পরিবর্তন করা হলে গ্রাহক পর্যায়ে অসন্তোষ দেখা দেবে। তাই অটোগ্যাসের মূল্য বছরে একবার নির্ধারণের জন্য তারা বিইআরসির কাছে অনুরোধ করেন। প্রয়োজনে বিইআরসিকে সরকারের সঙ্গে এ খাতে ভর্তুকি দেওয়ার বিষয়ে আলোচনা করার আহ্বান জানান তারা। সংশ্লিষ্টরা বলেন, ভবিষ্যতে দেশে গভীর সমুদ্রবন্দর হলে তখন এলপিজি সংরক্ষণ করা সম্ভব হবে। সে সময় দাম কিছুটা কমতে পারে। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, জাইকার এক গবেষণা অনুযায়ী ২০৪১ সালে এলপি গ্যাসের ব্যবহার ৪০ লাখ টনে পৌঁছাবে। এদিকে দেশের চাহিদা মিটিয়ে এলপি গ্যাস পাশের দেশগুলোয় রিএক্সপোর্ট করা হচ্ছে। এলপিজি সিলিন্ডার দেশের বাইরেও রপ্তানি করা হচ্ছে। দেশজুড়ে এখন চার শর বেশি অটোগ্যাস স্টেশনে ব্যবহৃত হচ্ছে এলপিজি।

এই বিভাগের আরও খবর