বৃহস্পতিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

সরকার গঠনে মরিয়া তালেবান

জালালাবাদে আফগান পতাকা সরানোয় বিক্ষোভ, গুলিতে নিহত ২, চলছে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভে তৎপরতা, কাজ দিয়ে তালেবানকে বিচার করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন

নিজস্ব প্রতিবেদক

সরকার গঠনে মরিয়া তালেবান

আফগানিস্তান ছাড়তে কাবুল বিমানবন্দরে ভিড় -এএফপি

সরকার গঠনে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেওয়া তালেবান। এরই মধ্যে দোহা থেকে দেশে ফিরেছেন সংগঠনের রাজনৈতিক শাখার প্রধান মোল্লা আবদুল গনি বারাদার। কাতারের দোহা থেকে একটি বিশেষ বিমানে করে আরও কয়েকজন সিনিয়র তালেবান নেতাকে নিয়ে তিনি কান্দাহারে পৌঁছেন। এরপর তারা গতকাল কাবুলে পৌঁছান। প্রথমবারের মতো সংবাদ সম্মেলন করে তালেবান বলেছে, ‘আমরা আজ বিশ বছর আগের তালেবান নই।’

এরই মধ্যে তালেবানের সঙ্গে জড়িত হাক্কানি নেটওয়ার্কের ঊর্ধ্বতন নেতা ও সামরিক কমান্ডার আনাস হাক্কানি আফগানিস্তানের সাবেক প্রেসিডন্ট হামিদ কারযাইয়ের সঙ্গে কথা বলেছেন। আফগানিস্তানের সাবেক সরকারের শান্তি দূত আবদুল্লাহ আবদুল্লাহ কাবুলের ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। তালেবান একটা সরকার গঠনের জন্য তাদের প্রয়াস আরও জোরদার করেছে। সামাজিক মাধ্যমে এই বৈঠকের ছবি ছড়িয়ে পড়েছে, তবে তাদের মধ্যে কী নিয়ে আলোচনা হয়েছে তা জানা যায়নি। বিবিসি ও আলজাজিরা এ তথ্য জানায়।

এ দিকে আফগানিস্তানের জালালাবাদ শহরে আফগান জাতীয় পতাকা সরিয়ে তালেবান পতাকা স্থাপনকে কেন্দ্র করে হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করেছে। এ সময় সেখানে গুলিবিদ্ধ হয়ে দুজনের মৃত্যু এবং আরও ১২ জন আহত হয়েছেন। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরার প্রতিবেদনে জানা যায়, আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর তালেবান এখন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভের চেষ্টা করছে। সংগঠনটি দেশ পরিচালনা করতে চায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখে। ক্ষমতা দখলের পর সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছে তালেবান। সেই সঙ্গে নারীদেরও তাদের সরকারে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে তারা।

আলজাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়, জালালাবাদের বাসিন্দাদের একটি বড় অংশ ওই বিক্ষোভে যোগ দিয়েছেন। দেশটির জাতীয় পতাকা পরিবর্তন করে তালেবানের পতাকা উত্তোলন করার পরেই বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে ওই বিক্ষোভের ভিডিও মুহূর্তেই ভাইরাল হয়েছে। এতে দেখা গেছে, হাজার হাজার মানুষ আফগানিস্তানের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে বিক্ষোভে অংশ নিচ্ছেন। তারা জালালাবাদের একটি চত্বরে জাতীয় পতাকা উত্তোলনের চেষ্টা করেন। তবে সেখানে বাধা দেয় তালেবান যোদ্ধারা। গত রবিবার রাজধানী কাবুল দখল করে নেয় সংগঠনটি। এ নিয়ে পুরো আফগানিস্তানজুড়েই চাপা আতঙ্ক বিরাজ করছে। গতকালও দেশ ছেড়ে যাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। তবে এবারই প্রথম কোনো শহরে প্রতিবাদ জানাতে দেখা গেল। অন্যদিকে আফগানিস্তানে বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মাদ বিন আবদুল রাহমান আল-থানি তালেবানের রাজনৈতিক দফতরের প্রধানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। মঙ্গলবার উপসাগরীয় দেশটির রাজধানী দোহায় বৈঠক চলাকালে শেখ মোহাম্মাদ বিন আবদুল রাহমান এ আহ্বান জানান। এ দিকে গতকালও ইউরোপিয়ানদের কাবুল ছাড়ার হুড়োহুড়ি ও বিমানবন্দরে বিশৃঙ্খলা লক্ষ্য করা গেছে। কয়েক ঘণ্টায় কিছু ফ্লাইট সফলভাবে কাবুল বিমানবন্দর ছেড়েছে, কিন্তু ইউরোপিয়ান দেশগুলো তাদের নাগরিকদের বিমানবন্দর এলাকায় নিয়ে যেতে হিমশিম খাচ্ছে। ফরাসি, জার্মান, ডাচ এবং চেক বিমান টারম্যাক থেকে উড়েছে, কিন্তু দেশ ছাড়ার চেষ্টায় মানুষ বিমানবন্দরের গেটে ঢোকার চেষ্টা করলে গুলি ছোড়া হয়েছে বলে খবর আসছে।

কাজ দিয়ে তালেবানকে বিচার করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেন : ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্র বলছে আফগানিস্তানের বিষয়ে একটি সমন্বিত কৌশল ঠিক করার বিষয়ে তারা অন্য দেশগুলোর সঙ্গে কাজ করবে এবং তালেবান কীভাবে দেশ পরিচালনা করবে সে সম্পর্কে তাদের কাজটাই গুরুত্বপূর্ণ। ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্র বলছে আফগানিস্তানের বিষয়ে একটি সমন্বিত কৌশল ঠিক করার বিষয়ে তারা অন্য দেশগুলোর সঙ্গে কাজ করবে এবং তালেবান কীভাবে দেশ পরিচালনা করবে সে সম্পর্কে তাদের কাজটাই গুরুত্বপূর্ণ।

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন গতকাল ব্রিটিশ সংসদ সদস্যদের উদ্দেশ করে বলেন, এই শাসকরা কী উপায় বেছে নেয় এবং কী পদক্ষেপ গ্রহণ করে তা দিয়েই আমরা তাদের বিচার করব, তাদের কথা দিয়ে নয়। আমরা দেখব, সন্ত্রাসবাদ, অপরাধ ও মাদক ব্যবসার ব্যাপারে তাদের দৃষ্টিভঙ্গি আর সেই সঙ্গে মানবিকতা ও মেয়েদের শিক্ষার বিষয়ে তাদের কাজ।

এর আগে মঙ্গলবার জনসন ফোনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন। হোয়াইট হাউসের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মিত্রদের মধ্যে অব্যাহত ভাবে ঘনিষ্ঠ সমন্বয় এবং আফগানিস্তান বিষয়ক নীতিতে গণতান্ত্রিক সহযোগীদের এগিয়ে যাওয়া নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তা ছাড়া ঝুঁকির মুখে পড়ে যাওয়া আফগান ও আফগান শরণার্থীদের মানবিক সাহায্য ও সহযোগিতা দিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উপায় সম্পর্কেও আলোচনা করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে তাঁরা আগামী সপ্তাহে জি-সেভেনের বৈঠক অনুষ্ঠানের বিষয়েও সহমত পোষণ করেন। যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেইক সালিভান গণমাধ্যমকে বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় তালেবানের কাছে আশা করে যে তারা, মৌলিক মানবাধিকার এবং জনগণের মর্যাদার বিষয়ে তাদের দায়িত্ব পালন করবে। তিনি বলেন, বাইডেন প্রশাসন সরাসরি তালেবানকে জানাবে যে কোনো ধরনের কার্যকলাপের কী মূল্য দিতে হতে পারে কিংবা নিরুৎসাহিত করা হবে এবং আমাদের প্রত্যাশাই বা কী। এই বিবৃতির আগে তালেবান কর্মকর্তারা “ইসলামিক আইনের অধীনে” নারীদের অধিকারের প্রতি সম্মান প্রদর্শনের সংকল্প ব্যক্ত করেন। আফগানিস্তানে এই উগ্রবাদী আন্দোলন যখন নিজেদের অবস্থান পাকাপোক্ত করছে তখন তারা একটি “সমন্বিত ইসলামী” সরকার গঠনেরও প্রত্যয় প্রকাশ করে।

আফগান সংকট নিয়ে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট বিতর্ক : আফগান সংকট নিয়ে জরুরি বিতর্ক শুরু হয়েছে ব্রিটেনের পার্লামেন্টে। ২০ হাজার আফগান শরণার্থী গ্রহণের পরিকল্পনা নিয়ে এর মধ্যেই ব্রিটিশ সরকার সমালোচনার মুখে পড়েছে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, প্রথম পাঁচ হাজার শরণার্থী এই বছরের শেষ নাগাদ এসে পৌঁছবে। পরবর্তী পাঁচ বছর ধরে বাকিদের ব্যবস্থা করা হবে। সাবেক কনজারভেটিভ মন্ত্রী ডেভিড ডেভিসসহ সমালোচকরা বলছেন, যতজনের দায়িত্ব নেওয়া উচিত, এই সংখ্যা তার কাছে কিছুই না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রীতি প্যাটেল বিবিসিকে বলেছেন, পুরো কর্মসূচি শুরু এবং চালাতে আরও কিছুটা সময়ের প্রয়োজন।

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর