শুক্রবার, ১৪ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ টা
বর্জ্য ট্রাকের চাপায় নিহত

দুই পক্ষকে দায়ী ও আট সুপারিশ করে তদন্ত প্রতিবেদন

নিজস্ব প্রতিবেদক

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) বর্জ্যবাহী ট্রাক এবং মোটরসাইকেলের দুর্ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ডিএনসিসির ট্রাকচালক ও মোটরসাইকেলচালককে দোষী সাব্যস্ত করা এবং নিহত মোটরসাইকেল আরোহীর পরিবারের দায়িত্ব নেওয়াসহ আটটি সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি। গতকাল এ প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। রাজধানীর তেজগাঁও পান্থপথ এলাকায় গত বছরের ২৫ নভেম্বর ডিএনসিসির একটি ময়লার গাড়ির ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী আহমেদ কবির মারা যান। বিষয়টি তদন্তে ডিএনসিসি ওই দিনই প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমডোর এস এম শরিফ-উল ইসলামকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) আবুল হাসনাত মো. আশরাফুল আলম, মহাব্যবস্থাপক (পরিবহন) মো. মিজানুর রহমান। ঘটনা তদন্ত করে আটটি সুপারিশ করেছে কমিটি। সুপারিশগুলো হলো- হালকা গাড়ির লাইসেন্স নিয়ে ভারী গাড়ি চালানো এবং ট্রাকের গতি নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় চালক মো. হানিফকে দোষী সাব্যস্ত করা যেতে পারে। মোটরসাইকেল চালক নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় আরোহী ডানদিকে পড়ে ডাম্প ট্রাকের পেছনের চাকায় পিষ্ট হয়ে নিহত হওয়ায় মোটরসাইকেলচালককে দোষী সাব্যস্ত করা যেতে পারে। ডিএনসিসি নিহতের পরিবারের দায়িত্ব নিতে পারে। চালকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। চালকদের হালনাগাদ লাইসেন্স থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করা যেতে পারে।

হালকা লাইসেন্সধারীদের দিয়ে ভারী গাড়ি চালানো নিষিদ্ধ করা, ফিটনেস নিয়মিত হালনাগাদ করা, নতুন চালক নিয়োগ দেওয়া যেতে পারে। ভারী গাড়িতে প্রয়োজনীয় সংখ্যক হেলপার রাখা যেতে পারে। ডিএনসিসির সব গাড়িতে ড্যাশবোর্ড ক্যামেরা এবং ভিটিএস-এর ব্যবস্থা করা যেতে পারে। সব গাড়ি ও চালকদের একটি বিভাগের (পরিবহন পুল) মাধ্যমে পরিচালনা করা যেতে পারে এবং বর্জ্যবাহী গাড়ি সন্ধ্যার পর থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত চালানো যেতে পারে বলে তদন্ত প্রতিবেদনে সুপারিশ করা হয়েছে।

সর্বশেষ খবর