বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২ ০০:০০ টা

আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে বাংলাদেশে নির্বাচন দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

মার্কিন রাষ্ট্রদূত

নিজস্ব প্রতিবেদক

আন্তর্জাতিক মানদণ্ডে বাংলাদেশে নির্বাচন দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র

ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেছেন, বাংলাদেশসহ বিশ্বময় আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুসরণের মাধ্যমে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনে যেন জনগণ তাদের সরকার নির্বাচিত করতে পারে- এটাই যুক্তরাষ্ট্রের সর্বজনীন নীতি।

মঙ্গলবার (২৪ মে) রাজধানীর ধানমন্ডির ইএমকে সেন্টারে মার্কিন দূতাবাস আয়োজিত ‘ওয়ার্ল্ড প্রেস ফ্রিডম ডে’ উদযাপন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সাবেক সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল। আলোচনায় অংশ নেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস, কানাডিয়ান হাইকমিশনার লিলি নিকোলস, ব্রিটেনের উপ-হাইকমিশনার জাভেদ প্যাটেল, জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি এবং প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান। অনুষ্ঠানে অভিন্ন সুরে বাংলাদেশের ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট (ডিএসএ) নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন, কানাডা এবং জাপানের রাষ্ট্রদূত। প্রভাবশালী এই চার রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়ে গণমাধ্যম সংশ্লিষ্ট আইনগুলোর নিবর্তনমূলক ধারাসমূহের কড়া সমালোচনা করেন দেশের জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকরা। বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন অংশীদার বন্ধু রাষ্ট্রগুলোর রাষ্ট্রদূতরা নিজ নিজ দেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা এবং সীমাবদ্ধতার কথাও তুলে ধরেন। সেই সঙ্গে তাগিদ দেন যে কোনো মূল্যে বাংলাদেশ তথা বিশ্বে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিতের। তারা বলেন, একটি দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নকে টেকসই করতে হলে তার ভুলভ্রান্তি আলোচনা-পর্যালোচনায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি নিশ্চিত করতে ক্ষমতাবানদেরই মুখ্য ভূমিকা রাখতে হয়। বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে গণমাধ্যমের আরও বেশি স্বাধীনতার ওপর জোর দিয়ে তারা বলেন, গণমাধ্যমের টুঁটি চেপে ধরা হলে গণতন্ত্রই ধাক্কা খাবে। অনুষ্ঠানে মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেন, একটি আইনসম্মত ও অবাধ গণতন্ত্রের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হচ্ছে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা সুরক্ষিত রাখার পাশাপাশি সাংবাদিকরা যাতে কোনো রকম ভয়ভীতি, হয়রানি বা সেন্সরশিপ ছাড়া সত্য প্রকাশ করতে পারেন তা নিশ্চিত করা আমাদের সবার দায়িত্ব। বর্তমান বিশ্বে সাংবাদিকতা করা কঠিন হয়ে যাচ্ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জ ও কক্সবাজারে সাংবাদিকদের ওপর হামলা হয়েছে। তারপরও প্রতিদিন দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সাংবাদিকরা সাহসিকতার পরিচয় দিচ্ছেন। একটি অবাধ ও মুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠায় গণমাধ্যমকর্মীদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, গণমাধ্যম শক্তিশালী ব্যক্তিদের জবাবদিহি নিশ্চিত করতে সাহায্য করে। তাই তারা যাতে অবাধে কাজ করতে পারেন এবং সত্যকে সামনে নিয়ে আসতে পারেন সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের বার্ষিক মানবাধিকার প্রতিবেদনে এবং বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে আলোচনায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন (ডিএসএ) নিয়ে উদ্বেগের বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র স্পষ্ট করেছে জানিয়ে রাষ্ট্রদূত বলেন, আমরা এ নিয়ে খুবই উদ্বিগ্ন। ডিজিটাল, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এবং ওটিটি নীতিমালা, ডাটা সুরক্ষাবিধি এবং গণমাধ্যমকর্মী আইনের বিষয়েও আমাদের উদ্বেগ রয়েছে। এগুলো এখনো পাস হয়নি। তবে আমাদের ভয়, এগুলোতে এমন কিছু বিধান রয়েছে যা সাংবাদিক এবং অন্যদের মতপ্রকাশের ক্ষেত্রে ভয়ভীতি দেখানোর হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হতে পারে। বাংলাদেশের অত্যাসন্ন নির্বাচনে গণমাধ্যমের আরও বেশি সংবাদ প্রত্যাশা করেন তিনি। মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিজের দেশের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, অবাধ গণমাধ্যমের ক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্র যে ঠিক পথে আছে তা কিন্তু নয়। রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার্সের সাম্প্রতিক সমীক্ষা অনুযায়ী ১৮২টি দেশের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ৪২তম। অর্থাৎ শীর্ষ তালিকার কাছাকাছি যুক্তরাষ্ট্র নেই। তাই যুক্তরাষ্ট্রের পরিস্থিতিরও উন্নতি প্রয়োজন। ওই সমীক্ষায় বাংলাদেশের অবস্থান ১৬২তম। গত বছরের তুলনায় বাংলাদেশের ১০ ধাপ অবনতি হয়েছে। অবাধ গণমাধ্যমের সূচকে বাংলাদেশের নিম্নমুখিতার অন্যতম কারণ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন (ডিএসএ)। ওই প্রতিবেদনে ডিএসএ-কে গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য একটি অন্যতম মধ্যযুগীয় আইন হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান তার দীর্ঘ বক্তব্যে বাংলাদেশের গণমাধ্যমে নানামুখী চ্যালেঞ্জের উদাহরণ তুলে ধরেন। সেই সঙ্গে দেশ স্বাধীনের পর মাত্র চারটি পত্রিকা রেখে সব বন্ধ করে দেওয়া, এরশাদ আমলে গণমাধ্যমের টুঁটি চেপে ধরে রাখা এবং পরবর্তীতে বিএনপি এবং আওয়ামী লীগের মধ্যে ক্ষমতা অদল-বদল হলেও গণমাধ্যমের নিয়ন্ত্রণ প্রশ্নে গুণগত পরিবর্তন না হওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেন তিনি। ব্রিটেনের ডেপুটি হাইকমিশনার জাবেদ প্যাটেল বলেন, বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচনে ভোটাররা রাজনৈতিক দলগুলোর ব্যাপারে আরও বেশি তথ্য পেতে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা জরুরি। কারণ ওই নির্বাচনের ওপর বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে তার দেশের উদ্বেগের কথাও জানান জাভেদ।

কানাডার হাইকমিশনার লিলি নিকোলস বলেন, ভুয়া তথ্য যাতে না ছড়ায় সেদিকে সাংবাদিকদের নজর দিতে হবে। তবে কোনো অজুহাতেই সাংবাদিকদের কণ্ঠ রোধ করার চেষ্টা উচিত নয়। তিনি বলেন, গণতন্ত্রে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। নানামুখী চাপ এড়িয়ে গণমাধ্যমের কর্মীরা সাহসিকতার সঙ্গে তাদের দায়িত্ব পালন করে থাকেন। অনুষ্ঠানে জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের সঙ্গে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা অপরিহার্য। নির্ভয়ে সংবাদ প্রচারকে জাপান সব সময় সমর্থন করে জানিয়ে তিনি বলেন, ৩০ বছর আগে জাপানে একজন সাংবাদিক নিহত হয়েছিলেন। স্বস্তির বিষয় এরপর আর কোনো সাংবাদিকের এমন ভাগ্যবরণ করতে হয়নি। বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি। ইতো নাওকি বলেন, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা গণতন্ত্রের ভিত্তি, এটা সমুন্নত রাখা উচিত। অনুষ্ঠানে সাংবাদিক এবং যুক্তরাষ্ট্রের জেফারসন ফেলো মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, বাংলাদেশে সাংবাদিকতা করা আর কুমিরভর্তি পুকুরে সাঁতার কাটা একই বিষয়। অবস্থা এমন যে সাঁতার কাটতে হবে, কিন্তু আপনি কুমিড়ের লেজ ছুঁতে পারবেন না, মুখেও পড়তে পারবেন না। জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক বুলবুল তার প্রবন্ধে বাংলাদেশে বর্তমান ও অতীতের বিভিন্ন আইন তুলে ধরে বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমের স্বাধীনতা হরণের ক্ষেত্রে বিভিন্ন সরকার কীভাবে তা ব্যবহার করে সেটি তুলে ধরেন। পাশাপাশি মত প্রকাশের স্বাধীনতার ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জ ও সুপারিশ তুলে ধরেন। বাকস্বাধীনতায় বড় প্রতিবন্ধকতা ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট (ডিএসএ) এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, আইনমন্ত্রী বলেছেন ডিএসএর অধীনে সাংবাদিকদের অনুমতি ছাড়া গ্রেফতার করা যাবে না। তাহলে কি আমরা মনে করব যে, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মন্ত্রীর ইচ্ছা অনুযায়ী চলবে?

সর্বশেষ খবর