শিরোনাম
বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২২ ০০:০০ টা

আর্জেন্টিনার ম্যাচ ঘিরে স্টেডিয়ামে উত্তেজনা

আর্জেন্টিনার ম্যাচ ঘিরে স্টেডিয়ামে উত্তেজনা

লিওনেল মেসির বাঁ পায়ের জাদুতে মেক্সিকোর বিপক্ষে দুরন্ত জয় পায় আর্জেন্টিনা। সেই জয়ের সুখস্মৃতি সঙ্গে নিয়েই গতকাল নাইন সেভেন ফোর স্টেডিয়াম অভিমুখে ছুটতে শুরু করেন আর্জেন্টাইন সমর্থকরা। খেলা ছিল স্থানীয় সময় রাত ১০টায়। তবে বিকাল গড়ানোর আগেই তারা ভিড় জমান মেট্রোতে। দোহার মেট্রোতে চড়ে ছুটে যান প্রিয় দলের মরণপণ লড়াই দেখার অপেক্ষায়। লিওনেল মেসির নামে স্লোগান দিতে থাকেন তারা। সঙ্গে ম্যারাডোনার নাম। আর্জেন্টিনা কী আজ (গতকাল) পোল্যান্ডের বিপক্ষে পারবে? আর্জেন্টাইন নারী সমর্থক লিওডোরাসকে জিজ্ঞেস করতে কেবল দুটো শব্দ উচ্চারণ করলেন, লিওনেল মেসি। এরপর স্মিত হাসি। আর কিছু আসলেই বোঝাবার নেই। লিওনেল মেসি যে দলে আছেন তাদের চিন্তা কীসের! যার বাঁ পায়ের একটা জাদুকরি স্পর্শেই বাঁক বদল হয় ম্যাচের গতি-প্রকৃতির। তাকে দলে পেলে আর ভয় কীসের! আর্জেন্টিনা এক কঠিন পরিস্থিতিতে গতকাল পোল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে নামে। পরাজিত হলেই দেখতে হবে বিদায়ের পথ। সি গ্রুপে নিজেদের প্রথম খেলায় সৌদি আরবের কাছে ২-১ গোলে হেরে বেশ বিপদেই পড়ে গিয়েছিল আর্জেন্টিনা। পরের ম্যাচে মেক্সিকোর বিপক্ষে ২-০ গোলের জয় আলবেসিলেস্ত শিবিরে অনেকটাই স্বস্তি নিয়ে আসে। তবে শঙ্কার কালো মেঘ তখনো কাটেনি। রবার্ট লেবানডস্কির পোল্যান্ড ছিল সামনে। গতকাল নাইন সেভেন ফোর স্টেডিয়ামের পথ ধরার আগে দুপুর রোদ মাথায় করে আর্জেন্টাইন সমর্থকরা কাতারের রাজধানী দোহার সওক ওয়াকিফ এলাকায় ভিড় জমায়। সওক ওয়াকিফ এলাকাটা অনেকের কাছে ইরানি মার্কেট হিসেবেও পরিচিত। আরব উপসাগরের তীরে প্রায় ১০০ বছর আগে গড়ে উঠা এই মার্কেটের চারদিকে তাকালে চোখে পড়ে নানা পুরনো স্থাপনা। কোথাও কোথাও কালের সাক্ষী হয়ে আছে সেগুলো। কোথাও মিনার। কোথাও বা পুরনো কোনো সরাইখানা। যেখানে দূর দেশ থেকে এসে বণিকেরা প্রশান্তি খুঁজতেন। এখনো আছে সরাইখানা। তবে তা আধুনিক সাজে। সওক ওয়াকিফ এলাকায় কাতারের ঐতিহ্যবাহী নানা জিনিস পাওয়া যায়। বিশ্বকাপ উপলক্ষে সারা দুনিয়া থেকে ছুটে আসা ফুটবলভক্তরা সেসব জিনিস কিনে নিচ্ছেন স্মৃতির স্মারক হিসেবে। কেবল আর্জেন্টাইন সমর্থকরাই নন, গতকাল সওক ওয়াকিফে বিশ্বকাপের সুভ্যেনির কিনতে ভিড় জমান নানা দেশ থেকে ছুটে আসা ফুটবল সমর্থকরা।

 

সর্বশেষ খবর