শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

ফুটপাতে মাদকের নারী ফেরিওয়ালা

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর মিরপুরে শাহআলী (রহ.) মাজারের গেটে অন্য সময়ের মতো বৃহস্পতিবার রাতেও সেখানে তিন-চারজন পুলিশ টহল দিচ্ছিল। গেট-লাগোয়া চায়ের দোকানটি খোলা থাকে সারা রাত। সেখান থেকে উত্তরে ঢিল ছোড়া দূরত্বে একটি গলি। গলির মুখেই ফুটপাতে দাঁড়ানো পাঁচ-ছয়জন পুরুষের সঙ্গে এক নারীও হাঁটাহাঁটি করছেন। তার পাশ দিয়ে তরুণ কিংবা যুবক বয়সের কেউ কেউ হেঁটে যাচ্ছিল। নারীর সামনে থেমেই আবার হাঁটতে শুরু করছেন। এ দৃশ্য চোখে পড়ার পর ওই নারীর পাশ ঘেঁষে হেঁটে যান এ প্রতিবেদকও। ওই নারী তখন প্রতিবেদককে বললেন- ‘কয়টা লাগবে? গাঁজার পুরিয়া বা ইয়াবা।’ বুঝতে বাকি নেই, ওই নারী সেখানকার মাদকের ফেরিওয়ালা। এই নারী ফুটপাতের যে স্থানটিতে দাঁড়িয়ে, সেখান থেকে উত্তর দিকে মিরপুরের সর্ববৃহৎ কাঁচা বাজার। কাঁচা বাজারের দিকে প্রায় ১৫ কদম হেঁটে যেতেই মার্কেটের সিঁড়িতে বসা আরও তিন নারী। কিছু দূরে আরও দুজন লোক বসে গল্প করছেন। তারা জানালেন, ওই নারীর নাম সালেহা, তবে ওই নারীর নামের অভাব নেই। কোনটি তার প্রকৃত নাম সেটি তিনিই জানেন। কাঁচা বাজারের সামনে গভীর রাতেও ভ্যানে কম দামে সবজি বিক্রি করছিলেন এক দোকানি। তিনি বললেন, সালেহার মতো আরও বেশ কয়েকজন নারী মাজার ঘিরে ওইসব ব্যবসা করছেন। আবার দিনের বেলায় কাঁচা বাজারের সামনে শাকসবজিও বিক্রি করেন। সবুজ নামের এই সবজি বিক্রেতার কথা বলতেও মনে পড়ে গত বছরের ২৮ এপ্রিলের একটি ঘটনার। মিরপুর মডেল থানার তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন জানিয়েছিলেন, মিরপুরে ইয়াবা বিক্রির অভিযোগে রুস্তম কসাই (৩৯) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশ। দিনের বেলায় তিনি মাংস বিক্রি করতেন, রাতে ইয়াবার কারবার করেন। মিরপুর টেকনিক্যাল মোড় থেকে তাকে আটকের সময় ১ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। আর রুস্তম মোহাম্মদপুরের জেনেভা ক্যাম্পের জানে আলম ওরফে কালুর ছেলে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর ও পুলিশের তথ্যানুযায়ী, মিরপুর ঘিরে মাদক ব্যবসা বেশি জমজমাট। মিরপুরে ঘনবসতি ও বস্তি এলাকা বেশি থাকাটা এর অন্যতম কারণ। এখানে চিহ্নিত মাদকের স্পট রয়েছে ৫৬টি। এসব স্পটে ব্যবসা চালান ৬২ মাদক ব্যবসায়ী। মিরপুর মডেল থানা এলাকায় ৮টি, পল্লবীতে ২৪টি, কাফরুলে ১০টি, শাহআলী থানায় চারটি এবং রূপনগর, ভাসানটেক ও দারুস সালাম থানা এলাকায় রয়েছে ১০টি মাদকের স্পট। এদিকে মঙ্গলবার রাত ৮টায় রাজধানীর কারওয়ান বাজারে হোটেল সোনারগাঁওয়ের সামনে আরেকটি ঘটনা ঘটে। বাংলামোটরের দিক থেকে পায়ে হেঁটে কারওয়ান বাজার মেট্রোরেল স্টেশনের দিকে আসছিলেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এক নারী। সোনারগাঁও হোটেলের দক্ষিণ পাশের কোনায় কিছুটা অন্ধকার ফুটপাতে পৌঁছাতে ওই নারীর পথ রোধ করেন এক হিজড়া। এ সময় তার কাছে ১০০ টাকা দাবি করেন, নয়তো যেতে দেবেন না। এক পর্যায়ে ওই নারীর ব্যাগ ধরেও টানাটানি শুরু করেন। সুনসান এ স্থানটিতে উপায়ন্তু না পেয়ে ৫০ টাকা দিয়ে দ্রুত চলে যান ওই নারী। নাম জানাতে অনিচ্ছুক ওই নারী বলেন, বিষয়টি আশপাশের কোনো টহল পুলিশকে জানানোর মতো কাউকে খুঁজে পাননি তিনি।

সর্বশেষ খবর