শিরোনাম
প্রকাশ : ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১১:০৩
আপডেট : ১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১১:৩০
প্রিন্ট করুন printer

দেশে ফেরার পর সু চিকে রাজসিক অভ্যর্থনা

অনলাইন ডেস্ক

দেশে ফেরার পর সু চিকে রাজসিক অভ্যর্থনা
সংগৃহীত ছবি

সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে অভিযোগ হলেও সব দায়িত্ব নিজের কাঁধে নিয়ে তিনি দেশের হয়ে আদালতে লড়েছেন। সে জন্য দেশের ফেরার পর অং সান সু চিকে অভ্যর্থনা জানানো হয়েছে। দেশে পৌঁছানোর পর সু চির কালো গাড়ি যখন ধীরে ধীরে গন্তব্যের দিকে যাচ্ছিল তখন সড়কের দু'পাশে উপস্থিত ছিলেন শত শত মানুষ। তাদের হাতে ছিল পতাকা, সু চির ছবি এবং এসময় তারা সু চিকে জোর গলায় অভিনন্দন জানান। সু চিও গাড়ি জানালা খুলে তাদের অভিনন্দনের জবাব দেন। এসময় তার মুখে ছিল হাসি। 

আন্তর্জাতিক আদালতে রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা চালানোর অভিযোগ এনে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে মামলা করেছে গাম্বিয়া। তবে আদালতে দেয়া দীর্ঘ বক্তব্যে সু চি সে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। মিয়ানমারের ওপর অন্তবর্তীকালীন আদেশ চেয়ে গাম্বিয়া যে আবেদন জানিয়েছে তারও বিরোধিতা করেছেন দীর্ঘদিন স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে লড়াই করে নোবেল পাওয়া সু চি। সূত্র: রয়টার্স   

বিডি প্রতিদিন/ফারজানা


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ০৩:০৪
প্রিন্ট করুন printer

নিষিদ্ধ হলো তুরস্কের বিখ্যাত সেই 'শয়তানের চোখ' তাবিজ

অনলাইন ডেস্ক

নিষিদ্ধ হলো তুরস্কের বিখ্যাত সেই 'শয়তানের চোখ' তাবিজ
ফাইল ছবি

প্রায় ৫ হাজার বছর ধরে প্রচলিত একটি তাবিজকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে তুরস্কের ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়। তাবিজটির স্থানীয় নাম 'নজর বোনচু', যা মূলত 'শয়তানের চোখ' বলে পরিচিত।। 

'নজর বনজু'-কে নিষিদ্ধ ঘোষণা করার বিষয়ে তুরস্কের ধর্ম মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, বহুল প্রচলিত এ বস্তুটি আসলে কি কাজ করে তা জানা যায়নি। কিন্তু জনগণের মধ্যে এটির ব্যাপক ব্যবহার ধর্ম বিশ্বাসে আঘাত হানতে পারে। কারণ ইসলাম ধর্মে আল্লাহ ছাড়া আর কেউ বা কোনো বস্তু ভালো বা খারাপ করার ক্ষমতা রাখে না। একমাত্র আল্লাহ ছাড়া অন্য কোনো কিছুর ওপর বিশ্বাস এবং তার ব্যবহার একেবারেই নিষিদ্ধ। 

'নজর বনজু' নামে এ তাবিজটি মূলত বর্তমানে অলঙ্কার হিসেবেই বেশি ব্যবহৃত হয়। অলঙ্কারটি দেখতে নীল রঙের বৃত্ত ও তার মাঝে সাদা চোখ সদৃশ। প্রাচীনকাল থেকে তুর্কিদের বিশ্বাস, এ তাবিজ দুষ্ট নজর থেকে সুরক্ষা দেয়। তুরস্কে তুমুল জনপ্রিয় এ তাবিজ। আর এমন জনপ্রিয় প্রতীককে এক ফতোয়ার মাধ্যমে নিষিদ্ধ করেছে তুর্কি ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়।


বিডী-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১ ০১:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

দুই মেয়েকে হত্যার পর মায়ের দাবি 'ওদের বাঁচিয়ে তুলতে পারব'

অনলাইন ডেস্ক

দুই মেয়েকে হত্যার পর মায়ের দাবি 'ওদের বাঁচিয়ে তুলতে পারব'

বাড়িতে মা-বাবার হাতে খুন হলেন দুই বোন। গত রবিবার (২৪ জানুয়ারী) ভয়ঙ্কর এই ঘটনা ঘটেছে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের চিত্তুর জেলার মাদানাপাল্লে মণ্ডলে। পুলিশ মনে করছে, এই ঘটনার পিছনে অন্ধবিশ্বাস জড়িত কোনও কারণ রয়েছে। পুলিশ যখন ঘটনাস্থলে পৌঁছায়, তখন নিহত দুই তরুণীর মা দাবি করেন, একদিন সময় পেলেই তারা বাঁচিয়ে তুলতে পারবেন তাদের মেয়েদের।

নিহত ওই দুই তরুণীর নাম আলেখ্যা (২৭) এবং দিব্যা (২৩)। পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে দেখে, তারা দু’জনেই লাল শাড়ি পরা অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে রয়েছেন। তাদের মাথা থেকে করে রক্ত বের হচ্ছে। জানা গেছে, ডাম্বল দিয়ে মাথায় আঘাত করে খুন করা হয়েছে তাদের।

নিহত আলেখ্যা এমবিএ শেষ করে ভোপালের ফরেস্ট ম্যানেজমেন্ট নামক প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতেন। ছোট বোন সাই দিব্যা বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশনে স্নাতক শেষ করেছেন। তিনি গান শিখছেন ভারতের বিখ্যাত গায়ক ও কম্পোজার এ আর রহমানের চেন্নাই মিউজিক একাডেমিতে। লকডাউনের কারণে গত কয়েক মাস ধরে তারা বাবা-মায়ের সাথে বাড়িতেই ছিলেন।

পুলিশ জানায়, এই খুনের সঙ্গে অন্ধবিশ্বাস জড়িয়ে রয়েছে। কারণ দুই মেয়েকে খুনের আগে বাড়িতে পূজা হয়েছিল। ওই দম্পতি মনে করতেন, তাদের মেয়েদের মধ্যে কোনও অশুভ শক্তি বাসা বেঁধেছে। এজন্য দুই মেয়েকে নির্মমভাবে খুন করেন তাদের মা। ওই বাড়িতে চারজনই থাকতেন। পদ্মজা মেয়েদের মারার সময় তার স্বামী পুরষোত্তম কোনও বাধা দেননি। 

পদ্মজার মানসিক অবস্থা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে পুলিশের। কেননা পুলিশ ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর নিহতদের মা পুলিশকে বলেন- একদিন সময় দিলে তিনি তার মৃত মেয়েদের বাঁচিয়ে তুলবেন। তাদের ধারণা, মেয়েদের খুন করার পর আত্মহত্যা করার পরিকল্পনা ছিল ওই দম্পতির।

মেয়েদের খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত বাবা-মা ভি পদ্মজা এবং ভি পুরষোত্তম নাইডুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। দু’জনেই উচ্চশিক্ষিত এবং শিক্ষকতা পেশার সঙ্গে জড়িত। নিহতদের মা ভি পদ্মজা এমএসসিতে গণিতে স্বর্ণপদক পেয়েছিলেন এবং তিনি মাস্টারমাইন্ড আইআইটি স্কুলের প্রিন্সিপাল। অন্যদিকে, বাবা পুরষোত্তম একটি সরকারি ডিগ্রি কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল ও রসায়ণের শিক্ষক। তবে উচ্চশিক্ষাও  দু’জনের মনের মধ্যে গেঁথে থাকা অন্ধবিশ্বাসকে দূর করতে পারেনি।


বিডী-প্রতিদিন/সিফাত আব্দুল্লাহ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:৪৪
প্রিন্ট করুন printer

এবার এভারেস্ট রক্ষার উদ্যোগ নিল নেপাল

অনলাইন ডেস্ক

এবার এভারেস্ট রক্ষার উদ্যোগ নিল নেপাল

লক্ষ্য আর্টওয়ার্ক নয়। লক্ষ্য পরিবেশকে বর্জ্যমুক্ত করা। শিল্পের মধ্যে দিয়ে মাউন্ট এভারেস্টকে বর্জ্যমুক্ত করার প্রকল্প নিল নেপাল।

প্রতি বছর মাউন্ট এভারেস্ট জয়ের লক্ষ্যে অসংখ্য পর্বতারোহী সেখানে অভিযানে যান। তাদের যাত্রাপথে পড়ে থাকে খাবারের পাত্র, ছেঁড়া দড়ি, ছেঁড়া তাঁবু, অক্সিজেনের বোতল, প্লাস্টিকের বোতল, মই এবং আরও নানা রকম জিনিস। এর ফলে ক্রমশ দূষিত হচ্ছে এভারেস্টের পরিবেশ। নেপাল এবার এভারেস্ট বাঁচানোর উদ্যোগ নিল। 

উদ্যোগটা নিছক জঞ্জাল পরিষ্কার করা নয়। পর্যটকদের ফেলে আসা বিভিন্ন জিনিস দিয়ে শিল্প সৃষ্টির পরিকল্পনা করেছে নেপাল। যে কাজের দায়িত্বে রয়েছেন টমি গুস্তাফসন। 

তিনি জানান, এই কাজে স্থানীয় বাসিন্দাদের পাশাপাশি বিদেশি শিল্পীদের সাহায্যও নেয়া হবে। রয়েছে একটি সংগ্রহশালা বানানোর ভাবনাও।

তবে বর্জ্য দিয়ে আর্টওয়ার্ক তৈরির প্রকল্পের আগেই অন্য একটি প্রকল্পের বাস্তবায়ন আগে করতে হবে বলে মনে করছে নেপাল। নেপাল ঠিক করেছে, প্রত্যেক এভারেস্ট অভিযাত্রীকে কম করে এক কেজি বর্জ্য ফেরত আনার অনুরোধ করা হবে। 

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, অভিযাত্রীদের এই প্রকল্পে যুক্ত করা গেলে এভারেস্টের পরিবেশ অনেকটাই রক্ষা করা যাবে। সূত্র: জি নিউজ

বি ডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:৪০
প্রিন্ট করুন printer

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম মুসলিম অ্যাটর্নি হচ্ছেন সায়মা

অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে প্রথম মুসলিম অ্যাটর্নি হচ্ছেন সায়মা

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এই প্রথম নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে মুসলিম অ্যাটর্নি। আর এতে নিয়োগ পেতে যাচ্ছেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত সায়মা মোহসিন। তিনি মিশিগানের ডেট্রয়েটের বর্তমান অ্যাটর্নি ম্যাথু সিনডারের স্থলাভিষিক্ত হবেন। খবর পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডন'র।

যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগানের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ডেট্রয়েট ফ্রি প্রেস জানিয়েছে, আগামী ২ ফেব্রুয়ারি নিজের দায়িত্ব বুঝে নেবেন ৫২ বছর বয়সী সায়মা মোহসিন। সংবাদমাধ্যমটি তাকে নিয় বলেছে, এশীয় বংশোদ্ভূত একজন অভিবাসী হিসেবে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে তিনি বৈচিত্র্য নিয়ে আসবেন। রাজ্যের পূর্বাঞ্চলের প্রধান আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তা হবেন তিনি।

এর আগে মার্কিন অ্যাটর্নি অফিসের সহিংস ও সংঘবদ্ধ অপরাধ ইউনিট, ড্রাগ টাস্কফোর্স, সাধারণ অপরাধ ইউনিট ও মার্কিন বিচার মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন সায়মা। স্থায়ী অ্যাটর্নি হিসেবে মনোনীত হতে সিনিটের অনুমোদন লাগবে সায়মা মোহসিনের।

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিটি জেলার প্রধান কেন্দ্রীয় আইন প্রয়োগকারী কর্মকর্তা হলেন অ্যাটর্নিরা।

বিডি প্রতিদিন/হিমেল


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ জানুয়ারি, ২০২১ ২১:২৪
প্রিন্ট করুন printer

বাইডেনও মনে করেন না সিনেটে ট্রাম্পকে অভিযুক্ত করা সম্ভব হবে

অনলাইন ডেস্ক

বাইডেনও মনে করেন না সিনেটে ট্রাম্পকে অভিযুক্ত করা সম্ভব হবে
জো বাইডেন-ডোনাল্ড ট্রাম্প

মার্কিন সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন বিচার অত্যন্ত জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর এই প্রথমবারের মতো পূর্বসূরী ডোনাল্ড ট্রাম্পের অভিশংসন বিচার প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন জো বাইডেন।

সোমবার মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্পের বিচার প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘আমি মনে করি, এটা হতেই হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘যদি এটা অর্থাৎ ট্রাম্পের অভিশংসন বিচার না হয় তাহলে এর খুব বাজে প্রভাব পড়বে।’

তবে বাইডেন মনে করেন না যে ট্রাম্পকে অভিযুক্ত করার পক্ষে ১৭ রিপাবলিকান ভোট দেবে। তিনি বলেন, ‘আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর সিনেটে অনেক পরিবর্তন হয়েছে ঠিকই তবে এতোটা পরিবর্তন হয়নি।’

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটল হিলে উগ্র ট্রাম্প-সমর্থকদের হামলার পর বিদায়ী প্রেসিডেন্টকে নির্ধারিত সময়ের আগেই পদ থেকে সরাতে ডেমোক্র্যাটরা প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসন প্রস্তাব উত্থাপন করে।

১৩ জানুয়ারি ২৩২-১৯৭ ভোটে পাস হয় প্রস্তাবটি। চূড়ান্ত অভিশংসনের জন্য প্রস্তাবটি সোমবার সিনেটে পাঠানো হয়েছে। সেখানে বিচারপ্রক্রিয়ার পর দুই-তৃতীয়াংশ ভোটে পাস করাতে হবে এটি। এর জন্য প্রস্তাবের পক্ষে ডেমোক্র্যাটদের পাশাপাশি ১৭ জন রিপাবলিকানের ভোটও প্রয়োজন হবে।

বি ডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

এই বিভাগের আরও খবর