শিরোনাম
প্রকাশ : ১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ১৭:৩১
আপডেট : ১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ২০:৩৩
প্রিন্ট করুন printer

বাইডেনের শপথের দুদিন আগেই ট্রাম্প সমর্থকদের বিক্ষোভ শুরু

অনলাইন ডেস্ক

বাইডেনের শপথের দুদিন আগেই ট্রাম্প সমর্থকদের বিক্ষোভ শুরু

দুই দিন পরেই ওয়াশিংটনে পরবর্তী মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন জো বাইডেন। তার আগে দেশজুড়ে প্রতিবাদ মিছিল শুরু করলেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা। রবিবার আমেরিকার বেশ কিছু রাজ্যে তারা প্রতিবাদ দেখিয়েছেন। তবে পুলিশ জানিয়েছে, রবিবার সকলেই মোটের ওপর শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ দেখিয়েছেন তারা। কোথাও কোনো অশান্তির ঘটনা ঘটেনি। তবে কোনো কোনো অঞ্চলে প্রতিবাদীদের হাতে আগ্নেয়াস্ত্র ছিল। কয়েকটি জঙ্গি সংগঠনের সমর্থকদেরও রাস্তায় দেখা যায় বলে গোয়েন্দারা জানিয়েছেন।

মার্কিন ন্যাশনাল সিকিওরিটি গার্ড আগে থেকেই ৫০টি রাজ্যে পাঠানো হয়েছে। গত সপ্তাহে এফবিআই যে রিপোর্ট দিয়েছিল প্রশাসনকে, তাতে স্পষ্ট বলা হয়েছিল, জো বাইডেনের শপথ গ্রহণের আগে দেশজুড়ে বিক্ষোভ প্রদর্শনের পরিকল্পনা করছেন ট্রাম্প সমর্থকরা। শুধু তাই নয়, ক্যাপিটলের মতো ফের বড়সড় কাণ্ড ঘটাতে পারেন তারা। 

গত ৬ জানুয়ারি ওয়াশিংটনের ক্যাপিটল বিল্ডিংয়ে হামলা চালিয়েছিল ট্রাম্প সমর্থকরা। চারজনের মৃত্যুও হয়েছিল। ওই দিনের ঘটনা মার্কিন ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায় হয়ে থাকবে। তারপরেই দেশজুড়ে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ১৫ হাজার ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েন করা হয়েছে। বিভিন্ন রাজ্যের রাজধানীতে এবং ওয়াশিংটনে তারা পাহারার দায়িত্ব নিয়েছেন। বেশকিছু এলাকায় তারা ফ্ল্যাগ মার্চ করেছেন।

ট্রাম্প সমর্থকদের এখনো দাবি, নির্বাচনে ট্রাম্প বিজয়ী হয়েছেন। কারচুপি করে তাকে হারানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে গোটা দেশের একাধিক আদালতে মামলা হয়েছিল। কিন্তু কোথাও কোনো তথ্যপ্রমাণ দিতে পারেননি ট্রাম্প সমর্থকরা। তা সত্ত্বেও তারা প্রতিবাদ বজায় রেখেছেন। রবিবার ওহিয়ো, সাউথ ক্যারোলিনা, টেক্সাস এবং মিশিগানে বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে। কয়েকটি জায়গায় বিক্ষোভকারীদের হাতে অস্ত্র ছিল। গোয়েন্দারা জানিয়েছেন, চরমপন্থী গোষ্ঠী বুগালুর সদস্যদের কোনো কোনো মিছিলে দেখতে পাওয়া গেছে। তাদের হাতে অটোমেটিক রাইফেল ছিল। এই গোষ্ঠী আমেরিকার আরও একটি গৃহযুদ্ধ ঘটিয়ে সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চায়।

রবিবার থেকেই বিভিন্ন রাজ্যে ন্যাশনাল গার্ড ধরপাকড়ও শুরু করেছে। বেশকিছু চরমপন্থী গোষ্ঠীর সদস্যদের বাড়িতে থাকতে বলা হয়েছে। বাইরে বেরলেই তাদের গ্রেফতার করা হবে। বেশ কয়েকটি রাজ্যে চরমপন্থী গোষ্ঠী বিক্ষোভ কর্মসূচি বাতিল করেছে বলেও গোয়েন্দারা জানিয়েছেন।

অন্যদিকে ওয়াশিংটনকে কার্যত দুর্গে পরিণত করা হয়েছে। বাইডেনের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যাতে কোনোরকম বিশৃঙ্খলা না হয়, তার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সূত্র: ডয়চে ভেলে, রয়টার্স, এপি 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ 

 

 


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৬:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

উত্তাল মিয়ানমার, সেনাবাহিনীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ

অনলাইন ডেস্ক

উত্তাল মিয়ানমার, সেনাবাহিনীর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ

সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখলের পর থেকেই উত্তাল মিয়ানমার। দেশটিতে গত কয়েক সপ্তাহের বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত তিনজন আন্দোলনকারী এবং একজন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক। সংস্থাটির পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার নিশ্চিত করা হয়েছে।

ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আমরা বিশ্বাস করি মিয়ানমার সেনাবাহিনী ফেসবুক এবং ইনস্টাগ্রামে থাকার অনুমতি দেয়া হলে তা হবে বেশ ঝুঁকিপূর্ণ।

২০২০ সালের মিয়ানমার নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছিলো মিয়ানমার সেনাবাহিনী।


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৫:৫৭
প্রিন্ট করুন printer

এবার ধর্ষণ মামলায় বিপাকে ট্রাম্প!

অনলাইন ডেস্ক

এবার ধর্ষণ মামলায় বিপাকে ট্রাম্প!

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিপদ যেন পিছু ছাড়ছে না। সিনেটে অভিশংসনের হাত থেকে রক্ষা পেলেও সুপ্রিম কোর্টে আয়কর রিটার্নের মামলায় হেরে গেছেন। এবার ধর্ষণ মামলায়ও তাকে আদালতে যেতে হচ্ছে। লেখিকা ই জিন ক্যারোলের করা ধর্ষণ মামলায় ট্রাম্পকে আদালতে গিয়ে জবাব দিতে হবে। ব্রিটিশ পত্রিকা দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট এমনটাই জানিয়েছে।

ক্যারোলের আইনজীবীরা মামলাটি পুনরায় সচল করতে জোর তত্পরতা শুরু করছেন। ১৯৯০-এর দশকে নিউ ইয়র্কের ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে ট্রাম্প কর্তৃক ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন ক্যারোল। ২০১৯ সালের নভেম্বরে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এ নিয়ে মানহানির মামলা করেছিলেন ক্যারোল।

তখন ট্রাম্প এই তথ্যকে মিথ্যা দাবি করেছিলেন। আর তার আইনজীবীরা দাবি করেছিলেন, প্রেসিডেন্ট হওয়ায় ট্রাম্প এসব অভিযোগ থেকে মুক্ত। কিন্তু এখন ট্রাম্প আর প্রেসিডেন্ট পদে নেই। তাই ক্যারোলের আইনজীবীরা জানিয়েছেন, তারা শিগগিরই এ নিয়ে জোর তত্পরতা শুরু করছেন। এমনকি ক্যারোলের সেই পোশাক ও ট্রাম্পের ডিএনএ পরীক্ষা করারও দাবি করেছেন আইনজীবীরা। ক্যারোল সেই পোশাক এখনো সংরক্ষিত রেখেছেন।

 

বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০৫:৪৪
প্রিন্ট করুন printer

ভারত-চীন সীমান্ত পরিস্থিতিতে নজর রাখছে যুক্তরাষ্ট্র

অনলাইন ডেস্ক

ভারত-চীন সীমান্ত পরিস্থিতিতে নজর রাখছে যুক্তরাষ্ট্র
ফাইল ছবি

ভারত ও চীনের সীমান্ত পরিস্থিতি ওপর নজর রাখছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। লাদাখের প্যাংগং লেক এলাকা থেকে প্রতিবেশী দুই দেশ সরিয়ে নেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর এ মন্তব্য করলো।

পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস জানান, শান্তিপূর্ণ সমাধানে দুই দেশের কাজ নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করবে যুক্তরাষ্ট্র।

তিনি বলেন, ‘আমরা সেনা প্রত্যাহারের খবর নিবিড়ভাবে দেখছি এবং পরিস্থিতি প্রশমণের চলমান প্রচেষ্টাকে আমরা স্বাগত জানাই। উভয়পক্ষ শান্তিপূর্ণ সমাধানে কাজ করায় আমরা পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ অব্যাহত রাখব।’


বিডি প্রতিদিন/ ওয়াসিফ


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:৩৮
প্রিন্ট করুন printer

আলোচনার প্রয়োজন নেই, নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করুন: ইরান

অনলাইন ডেস্ক

আলোচনার প্রয়োজন নেই, নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করুন: ইরান
মাজিদ তাখতে রাভাঞ্চি

জাতিসংঘে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত মাজিদ তাখতে রাভাঞ্চি বলেছেন, ২০১৫ সালে সই হওয়া পরমাণু সমঝোতায় আমেরিকার সম্ভাব্য ফেরা নিয়ে নতুন করে কোনো আলোচনার প্রয়োজন নেই। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থা বা আইএইএ'র মহাপরিচালকের সঙ্গে তেহরানের যে সমঝোতা সংযুক্ত হয়েছে সে অনুযায়ী ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের মাধ্যমে আগামী তিন মাসের মধ্যে ওয়াশিংটনকে অবশ্যই এই সমঝোতায় ফিরে আসতে হবে। 

কাতারভিত্তিক স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল আল-জাজিরার আরবি বিভাগকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মাজিদ তাখতে রাভাঞ্চি এসব কথা বলেন। তিনি সুস্পষ্ট করে বলেছেন, পরমাণু সমঝোতা বাস্তবায়নের ধারায় আমেরিকার ফেরার জন্য কোনো আলোচনার প্রয়োজন নেই। 

তিনি বলেন, আমেরিকা পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর একতরফাভাবে ইরানের উপর যেসব নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে তা যদি আগামী তিন মাসের মধ্যে ওয়াশিংটন প্রত্যাহার করে নেয় তাহলে ইরানও তার প্রতিশ্রতি অনুযায়ী কাজ করবে। মাজিদ তাখতে রাভাঞ্চি বলেন, ২০১৮ সালের মে মাসে আমেরিকা পরমাণু সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর ইরান যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে তাতে উত্তেজনা বাড়ার কোনো কারণ নেই।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর

প্রকাশ : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:১২
প্রিন্ট করুন printer

লিবিয়া উপকূলে জাহাজডুবিতে ৪১ অভিবাসীর মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

লিবিয়া উপকূলে জাহাজডুবিতে ৪১ অভিবাসীর মৃত্যু

লিবিয়া উপকূলে একটি জাহাজডুবির ঘটনায় কমপক্ষে ৪১ অভিবাসীর মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয় সময় বুধবার আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) ও শরণার্থী বিষয়ক জাতিসংঘ হাইকমিশনার (ইউএনএইচসিআর) এ কথা জানিয়েছে।

ইউএনএইচসিআর ও আইওএমের বিবৃতিতে বলা হয়, বাণিজ্যিক একটি জাহাজের সাহায্যে উদ্ধার করা ৭৭ অভিবাসন প্রত্যাশীর ভাষ্য অনুযায়ী, নৌযানটিতে মোট ১২০ জনের বেশি যাত্রী ছিল। এদের মধ্যে ছয় নারী ও চার শিশু রয়েছে।

ছয় নারীর মধ্যে একজন গর্ভবতী বলে জানা যায়। নৌযানটি গত ১৮ ফেব্রুয়ারি লিবিয়া থেকে রওনা দেয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘লিবিয়া হয়ে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে এ পথে ভ্রমণ করা হাজার হাজার মানুষকে মানব পাচারকারী চক্রের ও মিলিশিয়াদের হাতে পড়ে অবর্ণনীয় নিষ্ঠুরতার শিকার হতে হয়।’

২০১১ সালে লিবিয়ার নেতা মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতনের পর উত্তর আফ্রিকার এ দেশের রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তাহীনতা ও বিশৃঙ্খলার কারণে হাজার হাজার অভিবাসী লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপের কোনো দেশে চলে যেতে চান । এসব অভিবাসন প্রত্যাশীর বেশির ভাগই আফ্রিকান।

বিবৃতিতে বলা হয়, চলতি বছরের এ পর্যন্ত ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিতে গিয়ে প্রায় ১৬০ জন অভিবাসী প্রাণ হারিয়েছে এবং তিন হাজার পাঁচশ’র বেশি মানুষকে উদ্ধার করে লিবিয়ায় ফেরত পাঠানো হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/আরাফাত


আপনার মন্তব্য

পরবর্তী খবর