শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৬ জানুয়ারি, ২০১৯ ২২:৪৪

এক-তৃতীয়াংশ কর্মীই যৌন হয়রানির শিকার জাতিসংঘে

এক-তৃতীয়াংশ কর্মীই যৌন হয়রানির শিকার জাতিসংঘে

জাতিসংঘে এক-তৃতীয়াংশ কর্মী ও চুক্তিতে কর্মরতরা যৌন হয়রানির শিকার। আর এটা হয়েছেন তাদের সহকর্মীদের কাছে। এই ঘটনা গত দুই বছরের। জাতিসংঘের বিভিন্ন অফিসে অথবা ইভেন্টে গিয়ে নারী কর্মীরা অনাকাক্সিক্ষত স্পর্শ অথবা অশালীন গল্পের বিষয়বস্তু হয়েছেন। মঙ্গলবার জাতিসংঘের প্রকাশিত এক জরিপের ফলাফলে এমন তথ্য উঠে এসেছে। গত বছরের নভেম্বরে জাতিসংঘ ও এর অন্যান্য সহযোগী সংস্থার প্রায় ৩০ হাজার ৩৬৪ কর্মীর ওপর এই অনলাইন জরিপ পরিচালনা করে বিশ্বের বৃহত্তম পেশাদার পরিষেবা নেটওয়ার্ক ডিলয়েট। জাতিসংঘের সব সংস্থার মোট ১৭ শতাংশ কর্মী এই জরিপে অংশ নেয়। এএফপি

এক চিঠিতে জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস কর্মীদের সাড়াদানের এই হারকে ‘কম মাঝারি’ মাত্রার বলে উল্লেখ করেছেন। যৌন হয়রানি ও নিপীড়নের বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আন্দোলন মি-টু নিয়ে যখন ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা চলছে ঠিক তখনই এই জরিপের ফল প্রকাশ করল জাতিসংঘ। জরিপের ফলাফলে বলা হয়েছে, জরিপে অংশ নেওয়া জাতিসংঘের ২১ দশমিক ৭ শতাংশ কর্মী বলেছেন, তারা আপত্তিকর কৌতুক অথবা যৌন ইঙ্গিতপূর্ণ গল্পের বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছেন, ১৪ দশমিক ২ শতাংশ তাদের শারীরিক গঠন, শরীর অথবা যৌন কার্যকলাপের ব্যাপারে আপত্তিকর মন্তব্য পেয়েছেন। ১৩ শতাংশ কর্মী যৌনতা নিয়ে আলোচনায় আগ্রহী না হওয়া সত্ত্বেও তাদের সেই আলোচনায় টেনে আনা হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন যারা, তাদের অর্ধেকের বেশি বলেছেন, এসব হয়েছে অফিস পরিবেশে; অন্যদিকে, ১৭ দশমিক ১ শতাংশ বলেছেন, তাদের কাজ সম্পর্কিত সামাজিক ইভেন্টে যৌন হয়রানির মুখোমুখি হয়েছেন তারা। মার্কিন এই সংস্থার জরিপ বলছে, যৌন হয়রানিকারীদের তিনজনের মধ্যে দুজনই পুরুষ।

তবে জরিপে অংশগ্রহণকারীদের এক-তৃতীয়াংশ বলেছেন, যৌন হয়রানির শিকার হওয়ার পর তারা ব্যবস্থা নিয়েছেন। জরিপের গুরুতর এই প্রতিবেদন জাতিসংঘের কর্মক্ষেত্রে পরিবর্তন আনাকে জোরালো করে তুলছে বলে মন্তব্য করেছেন অ্যান্তনিও গুতেরেস। এএফপি


আপনার মন্তব্য