শিরোনাম
বৃহস্পতিবার, ২৬ মে, ২০২২ ০০:০০ টা

যুক্তরাষ্ট্রের বন্দুক আইন বদলানো সময়ের দাবি

যুক্তরাষ্ট্রের বন্দুক আইন বদলানো সময়ের দাবি

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বেড়েই চলছে বন্দুক হামলা ও মৃত্যুর ঘটনা। দেশটির বিভিন্ন ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য মতে, চলতি বছর পাঁচ মাসেই প্রাণ গেছে ২ শতাধিক মানুষের। আহত হয়েছেন অন্তত ১ হাজার। একের পর এক বন্দুক হামলায় উদ্বেগে সাধারণ মানুষ। এ অবস্থায় ব্যক্তিগত অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইন সংস্কারের দাবি জানিয়েছে আইনপ্রণেতাসহ বিশেষজ্ঞরা। যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক সহিংসতা দীর্ঘ দিনের সামাজিক সমস্যা। এর সমাধানে নানাভাবে চেষ্টা করছে দেশটির সরকার। কিন্তু কোনো ভালো কিছু আসছে না।

শুধু চলতি বছরের মে মাসের সর্বশেষ ১৫ দিনে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থানে গুলিতে ৮০০ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। সর্বশেষ যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার টেক্সাসের একটি স্কুলে গুলির ঘটনা ঘটে। এতে এখন ২১ জনের নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। প্রাণহানির সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। শুধু গতকাল দিনের শুরু থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত দেশটির বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের ৩৩টি স্থানে গুলির ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় মোট ২৮ জন নিহত হয়েছেন। আহত ৩১ জন। আগের দিন সোমবার গুলিতে নিহত হয়েছেন ২৯ জন। আহত ৮৩ জন। এদিন দেশটির ৯০টির বেশি স্থানে গুলির ঘটনা ঘটে। গত রোববার গুলির ঘটনা ঘটে ১৫৮টি স্থানে। এতে নিহত হন ৭২ জন। আহত ১৩৩ জন।

টেক্সাসের একটি স্কুলে বন্দুক হামলার ঘটনায় ফের আলোচনায় যুক্তরাষ্ট্রের বন্দুক আইন। গান ভায়োলেন্স আর্কাইভের বরাত দিয়ে ২০২২ সালে এ পর্যন্ত ২১২ দফায় মাস শুটিং বা নির্বিচারে গুলিবর্ষণের কথা জানিয়েছে সিএনএন। এ তালিকায় সর্বশেষ সংযোজন টেক্সাসের রব এলিমেন্টারি স্কুল। 

অ্যাসল্ট রাইফেল বা উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ম্যাগাজিনে নিষেধাজ্ঞা আরোপসহ বন্দুক আইন সংশোধনের প্রস্তাবগুলো নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল পর্যায়ে বেশ কিছু প্রতিকূলতা রয়েছে। বিষয়টি নিয়ে চূড়ান্তভাবে আইন প্রণয়নের মতো সমঝোতা বা ঐকমত্য ক্ষমতাসীন ডেমোক্র্যাটিক এবং বিরোধী রিপাবলিকান পার্টির মধ্যে এখনো পর্যন্ত নেই।

ফাঁকফোকর বন্ধ করা : প্রতিনিধি পরিষদের সদস্য দক্ষিণ ক্যারোলিনার ডেমোক্র্যাটিক দলীয় একজন রাজনীতিক জিম ক্লাইবার্ন। তার উদ্যোগে প্রতিনিধি পরিষদে পাস হওয়া একটি বিল এইচআর ১৪৪৬; যা ‘চার্লেস্টন লুফহোল’ নামে পরিচিত। এতে চলমান আইনের একটি ফাঁক বন্ধ করার কথা বলা হয়েছে। যা ফাঁক গলে অস্ত্র ক্রেতা সম্পর্কে তথ্য যাচাই করার আগে বন্দুক বিক্রির সুযোগ রয়েছে।

নির্দিষ্টভাবে এই বিলটি আইনে পরিণত হলে অস্ত্র কিনতে তিন দিনের বদলে ন্যূনতম দশ কর্মদিবস অপেক্ষা করতে হবে। এই সময়ে অস্ত্র ক্রেতার পূর্ণাঙ্গ তথ্য পাওয়ার জন্য বিক্রেতাকে অপেক্ষা করতে হবে। এই ফাঁক ব্যবহার করে ২০১৫ সালে একজন শ্বেতাঙ্গ বন্দুকধারী দক্ষিণ ক্যারোলিনার চার্লসটনে কৃষ্ণাঙ্গদের একটি ঐতিহাসিক চার্চে নয়জনকে হত্যা করার জন্য বৈধ প্রক্রিয়ায় আইনগতভাবে আগ্নেয়াস্ত্র কিনতে সমর্থ হয়েছিল। ডেমোক্র্যাট দলের সিনেটররা মঙ্গলবার রাতে ভোটাভুটির তালিকার অন্তর্ভুক্তির জন্য ২০২১ সালের ‘এনহান্সড ব্যাকগ্রাউন্ড চেকস অ্যাক্ট’ নামে পরিচিত একটি বিল উত্থাপনের উদ্যোগ নেয়। যাতে প্রস্তাবটি ভোটাভুটির তালিকায় আসে। তবে কবে এই ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হতে পারে অনিশ্চিত। এক্ষেত্রে বিলটি নিয়ে বিতর্ক বন্ধ হতে হবে। আর এর জন্য প্রয়োজন অন্তত ৬০ জন সিনেটরের সমর্থন। এটি স্পষ্ট যে বর্তমানে এই সংখ্যক সমর্থন বিলটির পক্ষে নেই। এমনকি ডেমোক্র্যাটিক দলের সব সিনেটরও বিলটিকে সমর্থন করছেন না।

কানেকটিকাটের ডেমোক্র্যাটিক সিনেটর রিচার্ড ব্লুমেন্থাল। প্রায় ১০ বছর আগে তার রাজ্যে স্যান্ডি হুকের গুলিবর্ষণের পর থেকে তিনি বন্দুক নিয়ন্ত্রণ আইনের জন্য চাপ দিয়ে আসছেন। মঙ্গলবার সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, পাস হতে ব্যর্থ হলেও ভোটাভুটি হওয়া উচিত। রিচার্ড ব্লুুমেন্থাল বলেন, ‘আমি মনে করি আমাদের কংগ্রেসের প্রতিটি সদস্যকে জবাবদিহি করতে হবে। আমাদের ভোট দিতে হবে যাতে জনগণ আমাদের প্রত্যেকের অবস্থান সম্পর্কে জানতে পারে।’

অস্ত্র নিয়ে প্রতিটি অঙ্গরাজ্যের আইনে ভিন্নতা রয়েছে। আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণে বেশিরভাগ পদক্ষেপ অঙ্গরাজ্য পর্যায়ে নেওয়া হচ্ছে। সিএনএন

সর্বশেষ খবর