Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ৯ নভেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ৯ নভেম্বর, ২০১৬ ০৩:২৪

বেসরকারি স্কুলে ভর্তি

এবারও ৪০ ভাগ এলাকা কোটা

নিজস্ব প্রতিবেদক

এবারও ৪০ ভাগ এলাকা কোটা

ঢাকা মহানগরীর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ভর্তিতে এবারও ৪০ ভাগ এলাকা কোটার বিধান রেখে গতকাল নীতিমালা জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এর আওতায় ঢাকা মহানগরী ছাড়াও দেশের সব বেসরকারি স্কুল-কলেজে প্রাথমিক, নিম্নমাধ্যমিক ও মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষার্থী ভর্তি করাতে হবে। এছাড়া ভর্তির ফরম ও ভর্তির ফি নির্ধারণ করে বলেছে, কেউ বেশি টাকা আদায় করলে এমপিও বাতিলসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির জন্য আবশ্যিকভাবে লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী নির্বাচন করতে হবে। আর দ্বিতীয় থেকে অষ্টম শ্রেণির শূন্য আসনে লিখিত পরীক্ষার মাধ্যমে ভর্তির জন্য শিক্ষার্থী বাছাই করতে হবে। নবম শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করতে হবে জেএসসি-জেডিসির ফলের ভিত্তিতে। গত বছর থেকে ঢাকা মহানগরীর সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ভর্তিতে ৪০ শতাংশ এলাকা কোটা চালু করে সরকার। নীতিমালায় বলা হয়েছে, ঢাকা মহানগরীর বেসরকারি স্কুলগুলোয় ভর্তির ক্ষেত্রে স্কুলসংলগ্ন ক্যাচমেন্ট এলাকার শিক্ষার্থীদের জন্য ৪০ ভাগ কোটা সংরক্ষণ করতে হবে। অবশিষ্ট আসন সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। একই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পঞ্চম থেকে ষষ্ঠ শ্রেণিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের ভর্তিতে এলাকা কোটা প্রযোজ্য হবে না। নীতিমালা অনুযায়ী, একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান একই ক্যাচমেন্ট এলাকায় থাকলে শিক্ষার্থীরা উভয় প্রতিষ্ঠানেই ভর্তির আবেদন করতে পারবে। পরিচালনা পর্ষদের সহায়তা নিয়ে ঢাকা মহানগরীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান-প্রধানদের স্কুলের ক্যাচমেন্ট এরিয়া নির্ধারণ করতে বলেছে মন্ত্রণালয়।

নীতিমালা অনুযায়ী ক্যাচমেন্ট এলাকা নির্ধারণে একাধিক স্কুলের মধ্যে জটিলতা দেখা দিলে থানা/উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তার সমাধান করবেন।

মন্ত্রণালয় বলছে, ক্যাচমেন্ট এলাকা নির্ধারণে কোনো এলাকা যেন বাদ না পড়ে সেদিকে সতর্ক থাকতে হবে। ক্যাচমেন্ট এলাকা নিয়ে থানা/উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার আদেশে কেউ অসন্তুষ্ট হলে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে আবেদন করা যাবে। জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার আদেশই চূড়ান্ত।

নীতিমালায় আরও বলা হয়, ঢাকা মহানগরসহ এমপিওভুক্ত (মাসিক বেতন বাবদ সরকারি অনুদান), আংশিক এমপিওভুক্ত এবং এমপিওবহির্ভূত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির আবেদন ফরমের জন্য সর্বোচ্চ ২০০ টাকা নেওয়া যাবে।

আর সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি সব মিলিয়ে মফস্বল এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সর্বোচ্চ ভর্তি ফি ৫০০ টাকা, পৌর (উপজেলা) এলাকায় এক হাজার টাকা, পৌর (জেলা সদর) এলাকায় দুই হাজার টাকা এবং ঢাকা ছাড়া অন্যান্য মহানগর এলাকায় তিন হাজার টাকার বেশি নেওয়া যাবে না।

ঢাকা মহানগর এলাকায় অবস্থিত এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থী ভর্তিতে পাঁচ হাজার টাকার বেশি নেওয়া যাবে না। আর ঢাকার আংশিক এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন ও এমপিওবহির্ভূত শিক্ষকদের বেতন-ভাতা দেওয়ার জন্য ভর্তির সময় মাসিক বেতন, সেশন চার্জ ও উন্নয়ন ফিসহ বাংলা মাধ্যমে সর্বোচ্চ আট হাজার এবং ইংরেজি ভার্সনে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা নেওয়া যাবে। একই প্রতিষ্ঠানে বার্ষিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এক শ্রেণি থেকে পরবর্তী ক্লাসে ভর্তিতে সেশন চার্জ নেওয়া গেলেও পুনঃভর্তির ফি নেওয়া যাবে না।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর