Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৪৬

ভাঙনে নিমিষেই তলিয়ে গেল তিন ভবন

প্রতিদিন ডেস্ক

ভাঙনে নিমিষেই তলিয়ে গেল তিন ভবন

শরীয়তপুরের নড়িয়ায় গতকাল পদ্মা নদী চোখের নিমিষে গ্রাস করে নিয়েছে পাকা তিন তলাসহ দুটি এক তলা ভবন। এ ভাঙন চলছেই। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর স্রোতও বেড়েছে। অন্যদিকে বগুড়ায় যমুনা নদী এবং গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানিও বেড়েছে। এসব এলাকার মানুষও গভীর শঙ্কায় দিন কাটাচ্ছেন। আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

তলিয়ে গেল তিন ভবন : শরীয়তপুরের নড়িয়ায় পদ্মার ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। গতকাল পৌরসভার পূর্ব নড়িয়া এলাকায় একটি তিন তলা ভবন, দুটি এক তলা ভবন পদ্মার গ্রাসে চলে গেছে। এদিন পদ্মা নদীর পানি ১০ মিটার বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে করে সে াতও বেরেছে। সে াতের কারণে ভাঙনের তীব্রতা ছিল। বুধবার ও গতকাল নড়িয়ার কেদারপুর, উত্তর কেদারপুর, শুভগ্রাম, বাঁশতলা ও নড়িয়া পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব নড়িয়া গ্রামে ভাঙন হয়েছে। তিনটি গ্রামের ৩০টি পরিবার তাদের বসতবাড়ির জিনিসপত্র সরিয়ে নিয়েছেন। অনেক পরিবার তাদের বসতঘরও সরিয়ে নিচ্ছেন। এদিকে ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড নড়িয়া এলাকায় পদ্মা নদীর চর খননের উদ্যোগ নিলেও সে াতের কারণে খনন কাজ শুরু করা যায়নি। গতকাল দুপুরে নড়িয়ার মূলফত্গঞ্জ বাজারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবদুল হেকিম খনন কাজের ঠিকাদার ও নদীর জরিপকারী দলের সঙ্গে সভাও করেছেন। শেষে পাউবোর শরীয়তপুর কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রকাশ কৃষ্ণ সরকার বলেন, পদ্মা নদীতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। সুরেশ্বর পয়েন্টে পদ্মা নদীর পানি ৩ দশমিক ৮২ মিটার প্রবাহিত হয়েছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে সে াত বেড়েছে। ফলে খনন কাজ শুরু করা যাচ্ছে না। সরেজমিনে দেখা গেছে, গতকাল পূর্ব নড়িয়া, বাঁশতলা ও উত্তর কেদারপুর গ্রামের, মানুষ তাদের বসতঘরের জিনিসপত্র সরিয়ে নিচ্ছিলেন। কেউ কেউ বাড়ির গাছও কেটে নিচ্ছিলেন। সকালে এ গ্রামের পূর্ব নড়িয়ার সবুজ হাওলাদারের একটি তিন তলা ভবন, ইউসুফ খানের এক তলা ভবন ও হাসান খানের একটি এক তলা ভবন  চোখের নিমিষে নদীতে ধসে পড়ে। এই সঙ্গে ঝরনা খানের তিন তলা ভবন ও হযরত খাজা মইন উদ্দিন চিশতির মেহমান খানা যে কোনো সময় নদীর পেটে চলে যাওয়ার অবস্থায় রয়েছে। এ ছাড়া এদিন নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ক্যাম্পাসের পাঁচ মিটার জায়গা ধসে গেছে। ৫০ শয্যা বিশিষ্ট নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নতুন ভবনটি অর্ধেকের বেশি নদীগর্ভে চলে গেছে। কেদারপুর ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য আবদুল মান্নান খান বলেন, পদ্মার ভাঙনে আমরা নিঃস্ব হয়ে গেলাম। আমাদের বাড়ি ১২ একর ফসলি জমি, নয়টি দোকান বিলীন হয়ে গেছে। শুধু তাই নয় আমার বাবা আলহাজ আবদুর জাব্বার খানের দোতলা বাড়িটিও গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নদীতে চলে গেছে। পূর্ব নড়িয়া গ্রামের হাসান খান বলেন, সাত দিন আগে ভাঙন আতঙ্কে বাড়ি থেকে চলে এসেছি। আজ বাড়ির পাকা ভবনটি চোখের সামনে নদীতে তলিয়ে গেল। ১০ কিলোমিটার দূরে একটি ভাড়া করা বাসায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আশ্রয় নিয়েছি। নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা ইয়াছমিন বলেন, গতকাল সকালে পদ্মা নদীতে ১০ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ৩ দশমিক ৮২ মিটার পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

গাইবান্ধায় ভোগান্তিতে ১৩ হাজার পরিবার : গাইবান্ধায় গতকাল ব্রহ্মপুত্র নদের পানি এক সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। তবে সার্বিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। জেলার ১৩ হাজার পরিবার ও নদী ভাঙনে দুই সহস াধিক গৃহহীন পরিবার ভোগান্তিতে দিন যাপন করছে। পানিতে তলিয়ে গেছে প্রায় ১৮০০ হেক্টর জমির আমন খেত ও বীজতলাসহ বিভিন্ন ফসল। পানি ওঠায় পাঠদান বন্ধ রয়েছে জেলার ৭১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। গাইবান্ধা জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা ইদ্রিস আলী জানান, নদ-নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে নিমজ্জিত সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সদর উপজেলার ১৯টি ইউনিয়নের ৮৪টি গ্রামের ১২ হাজার ৮১০টি পরিবার বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে উঠেছেন। তাদের বিশুদ্ধ পানি, খাবারসহ সব ধরনের সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। এ ছাড়া এ পর্যন্ত এই চার উপজেলায় নদীভাঙনে গৃহহীন হয়েছে ২ হাজার ১৬৫ পরিবার। গাইবান্ধা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক রুহুল আমীন বলেন, বন্যায় গাইবান্ধা সদর, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলার নিম্নাঞ্চল ও চরাঞ্চলের প্রায় ১৭৬৮ হেক্টর জমির আমন খেত ও বীজতলাসহ বিভিন্ন ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। তার মধ্যে আমন ধান ১৭৩২ হেক্টর, বীজতলা ২১ হেক্টর ও শাকসবজি ১৫ হেক্টর। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম মণ্ডল জানান, পানি উঠায় ৭১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদানসহ কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত রাখা হয়েছে। এর মধ্যে সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় ৩৪টি, ফুলছড়িতে ২২টি, সাঘাটায় ১০টি ও গাইবান্ধা সদর উপজেলায় ৫টি বিদ্যালয় রয়েছে।

ধুনটে ঘরবাড়ি ছাড়ছেন মানুষ : বগুড়ার ধুনটে যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। বন্যাকবলিত এলাকার বসতবাড়িতে পানি ওঠায় ঘর ছেড়ে নিরাপদে চলে যাচ্ছে মানুষ। উপজেলার ভাণ্ডারবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল জানান, যমুনা নদীর অভ্যন্তরের গ্রাম ও চরের নিম্নাঞ্চল বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। বুধবার কয়েকটি গ্রামের বসতবাড়ীর ভিতর পানি প্রবেশ করেছে। এসব পরিবার বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে আশ্রয় নিয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন প্রায় ১০ হাজার মানুষ। গতকাল ভোর থেকে নদী এলাকার বসতবাড়িতে হাঁটু পর্যন্ত পানি উঠে যায়। পানিবন্দী বৈশাখী চর, রাধানগর চর ও নদী তীরের সহড়াবাড়ী, শিমুলবাড়ী, কৈয়াগাড়ী, বানিয়াজান ও ভাণ্ডারবাড়ীর গ্রামের আংশিক মানুষের জন্য নিরাপদ খাবার পানিও প্রয়োজন হয়ে পড়েছে। বগুড়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী হাসান মাহমুদ জানান, যমুনায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত আছে। তবে পানি কমার সম্ভাবনা রয়েছে। শুরুতে যেভাবে পানি বেড়েছে তার গতি কমেছে। গতকাল বগুড়ায় যমুনার পানি ১৬.৮৮ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর