শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ১৯ মে, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৮ মে, ২০১৯ ২৩:০০

অষ্টম কলাম

নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের বিরুদ্ধে অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক

নিষিদ্ধ ৫২ পণ্যের বিরুদ্ধে অভিযান

হাই কোর্টের আদেশ অনুযায়ী বাজারে বিক্রি নিষিদ্ধ হওয়া ৫২ পণ্যের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ও দোকানে এ অভিযান পরিচালনা করে সংস্থাটির সাতটি দল। এ সময় নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রির অভিযোগে     কারওয়ান বাজার ও নিউমার্কেট এলাকায় তিনটি দোকানকে জরিমানা করা হয়। অধিদফতরের উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ারের নেতৃত্বে মূল অভিযান চলে কারওয়ান বাজার, ধানমন্ডি এবং নিউমার্কেট এলাকায়। এ সময় ছিলেন অধিদফতরের সহকারী পরিচালক মাসুম আরেফিন, আফরোজা রহমান এবং ইন্দ্রাণী রায়সহ ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা। মোহাম্মদপুর এবং আদাবর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন সহকারী পরিচালক আবদুল জব্বার মন্ডষ্টল। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিক্রি নিষিদ্ধ পণ্যের বেশিরভাগ পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ফেরত নিয়ে গেছে। অভিযানে বেশিরভাগ দোকানে নিষিদ্ধ ঘোষিত ৫২টি পণ্যের কোনোটিই পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন অভিযানে অংশ নেওয়া কর্মকর্তারা। তবে কারওয়ান বাজার ও নিউমার্কেটের কয়েকটি দোকানে নিষিদ্ধ তালিকায় থাকা মোল্লা সল্ট এবং ডুডল ব্র্যান্ডের নুডলস বিক্রির জন্য মজুদ রাখা অবস্থায় পাওয়া যায়। এ সময় নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি বন্ধে হাই কোর্টের নির্দেশনা না মানায় কারওয়ান বাজারের নাসির স্টোরকে ১০ হাজার টাকা এবং নিউমার্কেটে জব্বার স্টোর ও বিসমিল্লাহ স্টোরকে ২ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়। এ ছাড়া আমদানি অনুমোদন না থাকলেও বিদেশি পণ্য অনুমোদন এবং সেগুলোতে প্রয়োজনীয় তথ্য সংবলিত লেবেল না থাকায় দুটি প্রতিষ্ঠানকে ১০ হাজার টাকাসহ ১৪ প্রতিষ্ঠানকে মোট ৬১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

আজ রবিবার থেকে এসব পণ্য বিক্রি করা হলে সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে কঠোর আইন প্রয়োগ করা হবে বলে জানিয়েছেন ভোক্তা অধিকারের কর্মকর্তারা। প্রয়োজনে কারাদ ও দেওয়া হবে।

এ বিষয়ে অধিদফতরের উপপরিচালক মনজুর মোহাম্মদ শাহরিয়ার বলেন, আমরা বিএসটিআই এবং নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে গণবিজ্ঞপ্তি প্রচার করে এসব পণ্য বিক্রি নিষেধ করতে বলেছি। এরপরে ব্যবসায়ীদের আর এসব পণ্য বিক্রির পেছনে কোনো অজুহাত থাকতে পারে না। আগামীকাল (আজ রবিবার) ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে আমাদের কার্যালয়ে একটি সভা হবে। এরপরেও যদি এসব পণ্য বিক্রি হয় তাহলে আইনের কঠোর প্রয়োগ করা হবে।


আপনার মন্তব্য