শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ২৩:৪২

ঢাকার যানজট নিরসনে কারিগরি সহায়তা দিতে রাজি চীন

রফিকুল ইসলাম রনি, নানজিং চীন থেকে

ঢাকার যানজট নিরসনে কারিগরি সহায়তা দিতে রাজি চীন

ঢাকার যানজটের প্রতিকারে চীন কারিগরি সহায়তা দিতে রাজি হয়েছে। গতকাল দেশটির জিয়াংশু প্রদেশের রাজধানী নানজিংয়ে ট্রাফিক কন্ট্রোল সেন্টার পরিদর্শনের সময় সফররত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলের প্রস্তাবে তারা তাদের এই সম্মতি জানায়। এ সময় তারা জানান, সুবিধা মতো সময়ে ঢাকায় গিয়ে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা পর্যবেক্ষণ করবেন এবং পরবর্তীতে কী কী ধরনের কারিগরি সহযোগিতা প্রয়োজন তা নির্ধারণ করবেন। গতকাল স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় নগরীর ট্র্রাফিক কন্ট্রোল রুমে পৌঁছায় আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দল। তাদের স্বাগত জানান সেন্টারের মহাপরিচালক জিন লিয়ান। নিয়ন্ত্রণ কক্ষে ব্রিফিং করা হয় প্রতিনিধি দলকে। এতে দেখানো হয়, এক জায়গায় বসে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে কীভাবে গোটা নগরীর পুরো শহরের ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ করা হয়, সেসব চিত্র। আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দলের প্রধান আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশে ব্যাপক উন্নয়নের কাজ চলছে। রাজধানীকে আধুনিক নগরী হিসেবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ঢাকার ট্র্রাফিক সিস্টেম উন্নয়নে চীনের কারিগরি সহায়তা প্রয়োজন। জবাবে সেন্টারের মহাপরিচালক জিন লিয়ান বলেন, চীন বাংলাদেশকে সব ধরনের সহায়তা দিয়ে আসছে। রাজধানীর ট্রাফিক উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনে আমরা সহায়তা দেব। সুবিধা মতো সময়ে ঢাকা সফর করে কী কী সহায়তা প্রয়োজন সেটা নির্ণয় করে সহায়তার ক্ষেত্র প্রস্তুত করা যেতে পারে। ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমটি প্ল্যানেটরিয়ামের মতো। বৃত্তাকার বিশাল কক্ষের চারদিকে দেয়ালে পুরো নগরীর ট্রাফিক পরিস্থিতি দেখা যায়। কোনো এলাকায় যানজট আছে কিনা? কোথায় কোনো দুর্ঘটনা ঘটল কিনা বা গাড়ি বিপজ্জনকভাবে চললে তা স্পটলাইটে দেখা যায়। কোথায় কোনো দুর্ঘটনা হলে বা বিপজ্জনক পরিস্থিতি তৈরি হলে সঙ্গে সঙ্গে নিয়ন্ত্রণ কক্ষের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা সংশ্লিষ্ট এলাকায় ট্রাফিক বিভাগে নির্দেশনা দেন। ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, নানজিং শহরে ২৩ লাখ গাড়ি চলাচলের জন্য রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে। সেই মুহূর্তে প্রায় দুই লাখ গাড়ি রাস্তায় চলাচল করছে। এত বড় শহরে কোথায় কোনো যানজট লেগে আছে এমন চিত্র চোখে পড়েনি। ট্র্রাফিক সিগন্যাল মেনেই সবাই চলাচল করছে।

এত বড় শহরে একটি রুম থেকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে কন্ট্রোল করার সক্ষমতা দেখে ঢাকার ট্র্রাফিক ব্যবস্থা উন্নয়নে সহায়তা চাওয়া হয়।

এর আগে সকালে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দল নগরীর অদূরে জিয়াং নিন উন্নয়ন জোনের একটি পাওয়ার টুলস ফ্যাক্টরি পরিদর্শন করে। পুরোপুরি স্বয়ংক্রিয় এই ফ্যাক্টরিতে কৃষি ও শিল্প খাতে ব্যবহৃত অত্যাধুনিক যন্ত্রাংশ তৈরি হয়। এরপর দুপুরে প্রতিনিধি দলের সদস্যরা নগরীর গভর্নমেন্ট অ্যাফেয়ার্স সার্ভিস সেন্টার পরিদর্শন করেন। সেখানে একটি ভবনে ‘ওয়ান স্টপ’ সার্ভিসের ব্যবস্থা রয়েছে। নাগরিকরা প্রয়োজনীয় সব সেবা সেখান থেকে পান। এরকম একটি সিটি গভর্নমেন্ট দাবি করেছিলেন ঢাকার প্রয়াত মেয়র মোহাম্মদ হানিফ। চীনের জিয়াংশু প্রদেশের রাজধানী নানজিংয়ের মতো ‘ওয়ান স্টপ’ সার্ভিস চালুর মাধ্যমে দৃষ্টান্ত তৈরি হতে পারে ঢাকার দুই সিটির।


আপনার মন্তব্য