শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ৩০ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৯ নভেম্বর, ২০১৯ ২২:৪৫

ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টা

সেই তিন পুলিশ রিমান্ডে

সখীপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

সেই তিন পুলিশ রিমান্ডে

টাঙ্গাইলের সখীপুরে ইয়াবা দিয়ে ফাঁসানোর চেষ্টায় যুক্ত তিন পুলিশ কর্মকর্তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। এ ঘটনায় পাঁচ পুুলিশসহ সাতজনের নামে মাদক আইনে মামলা হয়েছে।

গতকাল বিকালে আদালত রিমান্ডের এ আদেশ দেয়। এই পুলিশ কর্মকর্তারা হলেন মির্জাপুর থানার বাঁশতৈল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই রিয়াজুল ইসলাম, কনস্টেবল গোপাল সাহা, রাসেল মিয়া। আদালত এ সময় পুলিশের সোর্স হাসান মিয়াকেও একই সময় পর্যন্ত রিমান্ডের আদেশ দিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার হতেয়া রাজাবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে থেকে ২৫ পিস ইয়াবাসহ ওই তিন পুলিশসহ চারজনকে আটক করে জনতা। স্থানীয়রা জানান, এদিন সন্ধ্যায় সিএনজিযোগে তিন পুলিশ কর্মকর্তা এলাকায় এসে বজলু (২৬) নামের এক যুবককে আটক করে তার পকেটে জোরপূর্বক ইয়াবা ঢুকিয়ে দিয়ে পুলিশের সিএনজিতে তুলে নেন। এ সময়  ফরিদ নামের এক যুবক চিৎকার করে বলেন, ‘কে বা কারা আমাদের বজলুকে সিএনজিতে তুলে নিয়ে যাচ্ছে’। তার চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে সিএনজিসহ তাদের আটক করেন। আটককৃতরা পুলিশ পরিচয় দিলে বজলু জনতার উদ্দেশে বলেন, ‘আমার পকেটে ওনারা কীসের যেন প্যাকেট ঢুকিয়ে দিয়েছেন’। এ সময় লোকজন তার পকেটে থাকা প্যাকেটের মধ্যে ইয়াবা দেখতে পান। তখন তারা পুলিশের দেহ তল্লাশি করে তাদের পকেটে আরও দুটি ইয়াবার প্যাকেট পান। মানুষ তখন উত্তেজিত হয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের একটি ঘরে নিয়ে আটক করে রাখেন। সংবাদ পেয়ে সখীপুর থানার (তদন্ত) ওসি লুৎফুল কবির পুলিশ নিয়ে ঘটনা স্থলে গিয়ে আটকদের উদ্ধার করে সখীপুর থানায় নিয়ে যান। এ ঘটনায় সখীপুর থানার এসআই আয়নুল হক বাদী হয়ে পাঁচ পুলিশ ও পুলিশের দুই সোর্সের নামে সখীপুর থানায় মাদক আইনে মামলা করেন। সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমির হোসেন বলেন, দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ পুলিশের এক সোর্স এখনো পলাতক। তাদের গ্রেফতার করতে পুলিশের অভিযান চলছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর