শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ০০:০৮

শেয়ার বিক্রির বিধান রেখে বিআরটিসি আইন পাস

ইজারার মাধ্যমে পরিচালনার ব্যবস্থা

নিজস্ব প্রতিবেদক

শেয়ার বিক্রির বিধান রেখে বিআরটিসি আইন পাস

জনগণের কাছে ৪৫ শতাংশ শেয়ার বিক্রি ও বিআরটিসি বাস বা ট্রাক দীর্ঘ মেয়াদে ইজারার মাধ্যমে পরিচালনার বিধান রেখে সংসদে পাস হয়েছে ‘বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন আইন (বিআরটিসি) ২০২০’।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে একাদশ সংসদের ষষ্ঠ অধিবেশনে গতকাল বিলটি কণ্ঠভোটে পাস হয়। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ‘রোড ট্রান্সপোর্ট করপোরেশন অর্ডিন্যান্স ১৯৬১’ রহিত করে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন আইন ২০২০ বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন। এর আগে বিলের ওপর আনীত জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ, ফখরুল ইমাম, পীর ফজলুর রহমানের কয়েকটি সংশোধনী আনা হয়। তবে জনমত যাচাই-বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও অপর সংশোধনীর প্রস্তাব কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়। বিলটির ওপর এসব প্রস্তাব আনেন জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ, ফখরুল ইমাম, ডা. রুস্তম আলী ফরাজী, পীর ফজলুর রহমান, বিএনপির হারুনুর রশীদ ও ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা। বিলটি পাসের যৌক্তিতা তুলে ধরে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, বিআরটিসি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান। সাশ্রয়ী মূল্যে পরিবহন সেবা দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি জনগণের আস্থা অর্জন করেছে। দেশের ৪২৮টি ও ৫টি আন্তর্জাতিক রুটে বিআরটিসি পরিচালিত হচ্ছে। নতুন আরও দুটি আন্তর্জাতিক রুট শিগগিরই চালু হবে। বর্তমানে বিআরটিসিতে ১ হাজার ৮৩০টি বাস রয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৩৩২টি সচল। ইন্ডিয়ার লাইন অব ক্রেডিটে ১ হাজার ২৮টি নতুন বাস ও ৫০০ ট্রাক কেনা হয়েছে। বিলে বলা হয়েছে, ‘বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন’-এর জন্য এক হাজার কোটি টাকা মূলধনের প্রস্তাব করা হয়েছে। এই মূলধন একশ কোটি সাধারণ শেয়ারে বিভক্ত হবে। ৫১ শতাংশ শেয়ার সরকারের মালিকানায় থাকবে। অবশিষ্ট ৪৫ শতাংশ শেয়ার জনগণের কাছে বিক্রির বিধান রাখা হয়েছে। এ ছাড়া বিলে বিআরটিসি বাস বা ট্রাক দীর্ঘ মেয়াদে সুনির্দিষ্ট নীতিমালার ভিত্তিতে ইজারায় পরিচালনার বিধান রাখা হয়েছে।


আপনার মন্তব্য