শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৮ মার্চ, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ মার্চ, ২০২০ ০০:১২

অষ্টম কলাম

সৌদি আরবে বাদশাহর ভাইসহ তিনজন আটক

প্রতিদিন ডেস্ক

সৌদি আরবে বাদশাহর ভাইসহ তিনজন আটক

অভ্যুত্থান পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ তুলে সৌদি আরবের বাদশাহ সালমানের ভাই, ভাতিজাসহ তিন প্রিন্সকে আটক করা হয়েছে। অঘোষিত শাসক যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের ক্ষমতার পথে বাধা বিবেচনায় তাদের আটক করা হয়েছে বলে গণমাধ্যমের খবরে উল্লেখ করা হয়েছে। সূত্র : এএফপি, ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল, নিউইয়র্ক টাইমস।

প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, বাদশাহ সালমানের ভাই প্রিন্স আহমেদ বিন আবদুল আজিজ আল-সৌদ ও ভাতিজা প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নায়েফকে রাজদ্রোহের অভিযোগে গতকাল সকালে তাদের নিজ নিজ বাড়ি  থেকে ধরে নিয়ে যান রাজকীয় বাহিনীর সদস্যরা। এ দুজনের বিরুদ্ধে রাজকীয় আদালতে বর্তমান বাদশাহ ও যুবরাজের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনা হয়েছে। দুই প্রিন্সই সিংহাসনে বসার দৌড়ে বর্তমান যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের অন্যতম প্রতিদ্বন্দ্বী। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে যাবজ্জীবন দন্ড বা মৃত্যুদন্ড হতে পারে। বাদশাহর ভাতিজা প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নায়েফের ছোট ভাই প্রিন্স নাওয়াফ বিন নায়েফকেও এদিন আটক করা হয়েছে। তবে এসব বিষয়ে সৌদি কর্তৃপক্ষ কোনো ধরনের মন্তব্য করতে চায়নি। উল্লেখ্য, বাদশাহ সালমানের ভাই প্রিন্স আহমেদের বয়স এখন সত্তরের ঘরে। খাসোগি কেলেঙ্কারির পর তিনি লন্ডন থেকে দেশে ফেরেন। আর বাদশাহর ভাতিজা প্রিন্স মোহাম্মদ বিন নায়েফ সাবেক যুবরাজ ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের অক্টোবরে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কড়া সমালোচক হিসেবে পরিচিত সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যার ঘটনায় আলোচনায় আসেন বর্তমান বাদশাহর ছেলে এই যুবরাজ। ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে তার বিচারের দাবি উঠলেও এ বিষয়ে কোনো অগ্রগতি হয়নি। বরং বিভিন্ন সময়ে রাজতন্ত্রের বিরোধিতাকারী ধর্মীয় নেতা, অধিকারকর্মী ও ব্যবসায়ীদের ধরপাকড় করা হয়েছে। বর্তমান বাদশাহর বয়স ৮৪ বছর। তিনি তার উত্তরসূরি হিসেবে ছেলে মোহাম্মদ বিন সালমানকে সব ধরনের সমর্থন করে যাচ্ছেন। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়, প্রতিরক্ষা থেকে অর্থনীতির সব ক্ষেত্রে নিজের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করে চলেছেন যুবরাজ। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক প্রতিষ্ঠান আরএএনডির নীতি বিশ্লেষক বেকা ওয়াসের বলেন, যুবরাজের কর্মকান্ডের বিরোধিতা করেন কিংবা তিনি নিজের জন্য হুমকি মনে করেন- এমন যে কাউকে দমন করতে চান। সেটা হোক রাজপরিবারে বা বাইরের কেউ। সীমা লঙ্ঘন না করার বার্তাটা তিনি স্পষ্টভাবে সবাইকে দিতে চান।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর