শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ মে, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ মে, ২০২০ ০০:২১

কৃষি

বগুড়ায় কচু চাষে ঝুঁকছেন কৃষক

আবদুর রহমান টুলু, বগুড়া

বগুড়ায় কচু চাষে ঝুঁকছেন কৃষক

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার একটি পৌরসভা ও সাতটি ইউনিয়নের প্রায় ১০ হাজার হেক্টর জমিতে এবার কৃষক লাভজনক সবজি ফসল কুড়ি কচু চাষ করেছেন। সবজি চাষে উপযোগী উঁচু জমিতেই ওই ফসলের চাষ করা হয়েছে বেশি পরিমাণ      জমিতে। সরেজমিন উপজেলার মূলবাড়ী, কোয়ালিকান্দি, পাঠানপাড়া, ধর্মকুল, কর্পূর, পুগলিয়া, দিঘলকান্দী, হুয়াকুয়া, নিশ্চিন্তপুর, আমতলী, পাকুল্যা, মধুপুর, উত্তর করমজা এলাকা ঘুরে কুড়ি কচুর জমিতে কৃষককে পরিচর্যা করতে দেখা গেছে। সোনাতলা উপজেলার হুয়াকুয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আকতার হোসেন বুলু জানান, এবার তিনি ধানের পরিবর্তে ১ একর জমিতে কচু চাষ করেছেন। গাছের চেহারা হয়েছে বেশ ভালো। ভাদ্র-আর্শ্বিন মাসে কচু বিক্রি করতে সক্ষম হবেন। একই গ্রামের আইয়ুব হোসেন জানান, এবার তিনি ৬ বিঘা জমিতে কচু চাষ করেছেন। কচু উৎপাদনে লাভ বেশি। কমবেশি অন্যান্য তরিতরকারীর সঙ্গে পরিবারের সদস্যদের খাবারের কাজে ব্যবহার করা যায়। এ ছাড়াও বিভিন্ন এলাকার কৃষকরা জানান, ধান উৎপাদনে খরচ বেশি লাভ কম। তাই তারা এবার ধান-পাটের পরিবর্তে কচু চাষে ঝুঁকে পড়েছেন। সোনাতলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মাসুদ আহমেদ জানান, কৃষক জমিতে কচু রোপণ করার ৫-৬ মাস পর কচু বিক্রি করতে পারেন। এই সবজি চাষে কৃষকের উৎপাদন খরচ খুব কম লাগে। পাশাপাশি রাসায়নিক সারের পরিবর্তে কৃষক জৈব সার ব্যবহার করে এই ফসল ফলাতে সক্ষম হন। কচু মানবদেহের শর্করা সরবরাহ করে। কচুতে প্রচুর ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ থাকে। এ ছাড়াও পটাশিয়াম, ফসফরাস, সালফার ও আয়রন থাকে। সোনাতলা উপজেলার পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী গাবতলী ও শিবগঞ্জ উপজেলার কৃষক রেকর্ড পরিমাণ জমিতে কচু চাষ করে থাকেন বলেও জানান তিনি।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর