শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০০ টা
আপলোড : ৬ ডিসেম্বর, ২০২০ ০০:০৪

কুমিল্লায় ৫৫০ বছরের ঐতিহ্যের নানুয়ার দিঘি

মহিউদ্দিন মোল্লা, কুমিল্লা

কুমিল্লায় ৫৫০ বছরের ঐতিহ্যের নানুয়ার দিঘি

কুমিল্লা নগরীকে ব্যাংক ও ট্যাংকের নগরী বলা হয়। সেসব পুকুর-দিঘির মধ্যে অধিকাংশ পুকুর ভরাট হয়ে গেছে। দিঘিগুলো বেঁচে আছে তথাকথিত আধুনিকতার সঙ্গে যুদ্ধ করে। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ধর্মসাগর দিঘি, রানীর দিঘি, নানুয়ার দিঘি ও আমির দিঘি। নগরীর রাজগঞ্জ, চর্থা, মুরাদপুর সংলগ্ন দিঘিটি নিজের নামেই পরিচিত। ১৪৫৮ সালে খনন হওয়া ৫৫০ বছরের প্রাচীন ধর্মসাগর দিঘিকে নগরীর ফুসফুস বলা হলে নানুয়ার দিঘিকে নগরীর ঐতিহ্যের বাহক বলা হয়ে থাকে। এই দিঘি ধারণ করে চলেছে কুমিল্লাসহ দেশের অনেক ইতিহাস-ঐতিহ্য। নানুয়ার দিঘির পাড়ে একসময় বসবাস ছিল দেশের বিশিষ্টজনদের। কেউ দিঘিতে গোসল করে, সাঁতার কাটে, পাড়ে হাঁটে, বসে আড্ডা দেয়। দিঘির উত্তর পাড়ে দাঁড়ালে ¯িœগ্ধ বাতাস দেহমনে দোল দিয়ে যায়। রাতে পাড়ের রঙিন আলোয় বর্ণিল পরিবেশের সৃষ্টি করে।

ইতিহাস-ঐতিহ্য গবেষক আহসানুল কবীর বলেন, কুমিল্লা ত্রিপুরা রাজ্যের অধীন ছিল। রাজা ধর্মমাণিক্য একই সময় তার নামে ধর্মসাগর দিঘি ও স্ত্রী নানুয়া দেবীর নামে নানুয়ার দিঘি খনন করেন। নানুয়ার দিঘির আয়তন ১৬ একর। এই দিঘির পাড়ের বাসিন্দা জেলার প্রথম গ্রাজুয়েট মোহিনী মোহন দত্ত। তিনিই প্রথম বাংলা ভাষায় আদালতে শুনানির আবেদন জানান। নবীনগরের জমিদার অনঙ্গ নাহারের বাড়ি এখানেই। বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত ইকবাল আহমেদ বাচ্চু, প্রয়াত সমবায়ী জাহানারা বেগম, কুমিল্লা জেলা পরিষদের ৩০ বছরের চেয়ারম্যান খান বাহাদুর আবিদুর রেজা চৌধুরীর বাড়ি এখানে। দিঘির পাড়ে বাড়ি লেখক সুলতান মাহমুদ মজুদারের। তার সঙ্গে কবি নজরুলের সম্পর্ক ছিল। এই পরিবারের সন্তান সাবেক মুখ্য সচিব আলী ইমাম মজুমদার। এর পাড়ের বাসিন্দা প্রয়াত নৌ-পরিবহনমন্ত্রী কর্নেল আকবর হোসেন ও কুমিল্লা সিটির বর্তমান মেয়র মনিরুল হক সাক্কুসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। দিঘির পশ্চিম পাড়ের বাসিন্দা সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফরের পরিবারের সদস্য কাজী ফখরুল আলম। তিনি বলেন, এই দিঘির পাড়ে ১৯৫১ সাল থেকে তার পরিবারের বসবাস। এই দিঘির স্বচ্ছ জলে মিশে আছে তাদের আনন্দঘন শৈশব। সেসব দিন তিনি খুব মিস করেন। এই দিঘির পাড়ে শিক্ষিত ও সুশীল মানুষের বসবাস ছিল। এখানে বিভিন্ন ধর্মের মানুষের বসবাস রয়েছে, সবার মধ্যে রয়েছে সম্প্রীতিও। দিঘির নিকটবর্তী দারোগাবাড়ির বাসিন্দা মানবাধিকার সংগঠক আলী আকবর মাসুম বলেন, আমাদের শৈশব এই দিঘিতে দাফাদাফি করে কেটেছে। যদিও এখনকার কিশোররা পুকুর-দিঘিতে গোসলে অভ্যস্ত নয়। সম্প্রতি দিঘির পাড়ের সৌন্দর্য বর্ধন করা হয়েছে। সকালে হাঁটার জন্য ওয়াকওয়ে করে দেওয়া হয়েছে। কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু বলেন, এই দিঘির পাড়েই আমরা বেড়ে উঠেছি। দিঘির পড়ের সৌন্দর্য বর্ধনে কাজ করছি। দিঘির পাড়ের মানুষ সব সময় শান্তিতে বসবাস করে আসছে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর