শিরোনাম
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ জানুয়ারি, ২০২১ ২৩:৪৭

নওগাঁর জবই বিলে অতিথি পাখির ঢল

বাবুল আখতার রানা, নওগাঁ

নওগাঁর জবই বিলে অতিথি পাখির ঢল

অতিথি পাখির ঢল নেমেছে নওগাঁর জবই বিলে। বিভিন্ন স্থান থেকে আসা এসব পাখিতে এখন বিল এলাকা মুখরিত হয়ে উঠেছে।

নওগাঁর সীমান্তবর্তী উপজেলা সাপাহার। এর পশ্চিমাংশে ভারতের সীমানা ছুঁয়ে অবস্থিত জবই বিল। খরা মৌসুমে এই বিলের জলাশয়ের পরিমাণ ৯০০ হেক্টর হলেও বর্ষাকালে এই পরিধি দাঁড়ায় ৩ হাজার হেক্টরে। শীতের শুরুতেই এই বিলে আসে বিভিন্ন প্রজাতির পরিযায়ী পাখি। এ ছাড়াও দেশীয় পাখিদের কলকাকলীতে মুখরিত হয় জবই বিল। পাখির সৌন্দর্য ও কলকাকলী আর উড়াউড়ি দেখতে আসেন দূর-দূরান্ত থেকে শত শত দর্শনার্থী। এবারও মিলছে সেই চিত্র। জবই বিল জীববৈচিত্র্য  সংরক্ষণ ও সমাজ কল্যাণ সংস্থার সভাপতি সোহানুর রহমান জানান, পাখিদের নিরাপদে বিলে অবস্থান নিশ্চিত করতে সাধারণ মানুষকে সচেতন করার লক্ষ্যে কতিপয় শিক্ষিত যুবকের সমন্বয়ে গড়ে তোলা হয়েছে পাখি সংরক্ষণে জবই বিল জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ কমিটি নামের একটি সংগঠন। বন বিভাগ, বন্যপ্রাণী বিভাগের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন তারা। প্রতি বছর এ বিলে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে অনেক পর্যটক আসেন। এবারও আসছেন। তারা পাখির কলকাকলিতে মুগ্ধ হচ্ছেন। কিন্তু বিলের জীববৈচিত্র্যের প্রতি খেয়াল না করে অনেকে ইঞ্জিনচালিত নৌকা নিয়ে সারা বিল ঘুরে  বেড়ায়। এতে করে বিলে অবস্থানরত পাখির স্বাভাবিক বিচরণ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। সাপাহার উপজেলা নির্বাহী অফিসার কল্যাণ চৌধুরী বলেন, কমিটির যুবকদের নিরন্তর উৎসাহ এবং সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছেন তিনি। মৎস্য শিকারিদের কারণে একটু হলেও পাখিদের ক্ষতিসাধিত হয়েছে। তবে অচিরেই মৎস্যজীবীদের সঙ্গে বৈঠক করে এ বিষয়ে একটি সমাধা করা হবে। এ ছাড়া বিলটিকে পর্যটক কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে সরকারের খাদ্যমন্ত্রীও নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

তারই সহযোগিতায় এরই মধ্যে বিলে অনেক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। প্রাকৃতিক নৈসর্গিক দৃশ্যমন্ডিত সুবিশাল এই জলরাশিতে পাখিসহ নানা জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ করতে পারলে নিবিঘ্নে এখানে গড়ে উঠতে পারে ইকো ট্যুরিজম কেন্দ্র। জেলাবাসী সরকারের কাছে সেই প্রত্যাশাই করেছেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর