শিরোনাম
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৫ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৪ জানুয়ারি, ২০২১ ২৩:৫১

কয়লাখনি দুর্নীতি মামলা

এক দিন কারাগারে থেকে জামিন পেলেন ২২ কর্মকর্তা

দিনাজপুর প্রতিনিধি

এক দিন কারাগারে থাকার পর জামিনে মুক্তি পেলেন বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি দুর্নীতি মামলায় অভিযুক্ত খনির সাবেক ছয় এমডিসহ ২২ কর্মকর্তা।

গতকাল সকালে তাদের জামিনের আদেশ সাপেক্ষে মুক্তি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দিনাজপুর জেলা কারাগারের জেল সুপার মো. মোকাম্মেল হোসেন। তিনি বলেন, ‘বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাদের জামিনের জন্য আদেশ পেয়েছিলাম। গতকাল সকাল ৯টার দিকে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে।’

বুধবার  দুপুরে চার্জ গঠনের শুনানিতে হাজিরা দিতে ওই আসামিরা দিনাজপুর স্পেশাল জজ আদালতে আসেন। তারা জামিনের আবেদন করলে তা নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। পরে তাদের জামিন-সংক্রান্ত একটি রিট উচ্চ আদালতে বিচারাধীন থাকার কথা জানিয়ে আসামিপক্ষের আইনজীবী নুরুজ্জামান জাহানী এ-সংক্রান্ত কাগজপত্র আদালতে উপস্থাপন করেন। এরপর বুধবার বিকালে এক আদেশে তাদের জামিন দেয় একই আদালত। পরে সেই জামিন আদেশের কপি জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। তবে নির্দিষ্ট সময়ের পরে সেই আদেশের কপি কারাগারে পৌঁছানোয় বুধবার তাদের মুক্তি দেয়নি কারা কর্তৃপক্ষ। পরে গতকাল সকালে খনির ওই ২২ কর্মকর্তাকে জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়। জামিনে যাদেরকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে তারা হলেন- বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আবদুল আজিজ খান, প্রকৌশলী খুরশীদুল হাসান, প্রকৌশলী কামরুজ্জামান, আমিনুজ্জামান, প্রকৌশলী এস এম নুরুল আওরঙ্গজেব ও সাবেক এমডি প্রকৌশলী হাবিব উদ্দিন আহমেদ, সাবেক মহাব্যবস্থাপক (জিএম, প্রশাসন) শরিফুল আলম, আবুল কাসেম প্রধানীয়া, আবু তাহের মো. নুর-উজ-জামান চৌধুরী (মাইন অপারেশন বিভাগ), আরিফুর রহমান (মেনটেইন্যান্স অ্যান্ড অপারেশন বিভাগের ব্যবস্থাপক), নিরাপত্তা বিভাগের ব্যবস্থাপক মাসুদুর রহমান হাওলাদার ও সৈয়দ ইমাম হাসান, কোল হ্যান্ডলিং ম্যানেজমেন্ট বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মুহাম্মদ খলিলুর রহমান, মেনটেইন্যান্স অ্যান্ড অপারেশন বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মোর্শেদুজ্জামান, প্রোডাকশন ম্যানেজমেন্ট বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) হাবিবুর রহমান, মাইন ডেভেলপমেন্ট বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) জাহেদুর রহমান, ভেনটিলেশন ম্যানেজমেন্ট বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) সত্যেন্দ্র নাথ বর্মণ ও মনিরুজ্জামান, কোল হ্যান্ডলিং ম্যানেজমেন্টের ব্যবস্থাপক শোয়েবুর রহমান, স্টোর ডিপার্টমেন্টের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) এ কে এম খালেদুল ইসলাম, প্রোডাকশন ম্যানেজমেন্টের ব্যবস্থাপক অশোক কুমার হালদার ও মাইন প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) জোবায়ের আলী। এর আগে গত বছর ২৪ জুলাই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপপরিচালক মো. সামসুল আলমের পক্ষে দুদক দিনাজপুর সমন্বিত কার্যালয়ের উপপরিচালক আবু হেনা আশিকুর রহমান আদালতে ২৩ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করেন। এদের মধ্যে সাবেক এমডি মো. মাহবুবুর রহমান মারা যাওয়ায় বর্তমানে এ মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি ২২ জন। উল্লেখ্য, বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি থেকে কয়লা উধাও হওয়ার ঘটনায় ২০১৮ সালের ২৪ জুলাই বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানির পক্ষে ম্যানেজার (প্রশাসন) মোহাম্মদ আনিছুর রহমান বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে পার্বতীপুর মডেল থানায় মামলা করেছিলেন। ওই মামলার তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় দুদককে।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর