শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২৩:৪১

গাছে গাছে আগাম আমের মুকুল

মোশাররফ হোসেন বেলাল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া

গাছে গাছে আগাম আমের মুকুল

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গাছে গাছে আগাম আমের মুকুল দেখা দিয়েছে। পৌষ মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই বাতাসে ভেসে বেড়াচ্ছে এর সুগন্ধ। আন্দোলিত করে তুলেছে মানুষের মন। প্রকৃতি সেজেছে অপরূপ সাজে। এ যেন হলুদ আর সবুজের মহামিলন। মৌমাছির গুন গুন শব্দে আন্দোলিত করছে চারপাশ। গাছের প্রতিটি শাখা-প্রশাখায় তাই চলছে ভ্রমরের সুরব্যঞ্জনা। শীতের স্নিগ্ধতার মধ্যেই শোভা ছড়াচ্ছে স্বর্ণালি মুকুল।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাজেরা বেগম বলেন, এ উপজেলার বেশির ভাগ আমগাছেই আগাম মুকুল আসতে শুরু করেছে। যেসব গাছে আগাম মুকুল এসেছে মূলত আবহাওয়াগত কারণে এসেছে। বর্তমানে আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে। যা আমের বাম্পার ফলনের জন্য উপযোগী। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে এবার আমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন। তবে সবকিছুই প্রকৃতির ওপর নির্ভর করছে বলে জানান তিনি।  আবহাওয়াগত ও জাতের কারণে এ বছর বেশির ভাগ গাছে আমের মুকুল আগাম আসতে শুরু করে। তবে চলতি মাসের শেষ দিকে প্রতিটি গাছে পুরোপুরি আমের মুকুল আসবে এমনটাই আশা করছে কৃষিবিভাগ। পৌর শহরের তারাগন, দেবগ্রাম, কলেজপাড়া, নারায়ণপুর, উপজেলার আজমপুর, নুরপুর, হিরাপুর, আদমপুর, ধাতুরপহেলা, মোগড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় আমগাছে এমন চিত্র চোখে পড়ছে।

আমের মুকুল ধরে রাখতে বাগান মালিকরা নানা প্রকার পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। বাণিজ্যিকভাবে প্রায় সব জাতের আম কমবেশি এখানে হচ্ছে। এর মধ্যে দেশি, ল্যাংড়া, গোপালভোগসহ নানা প্রজাতির গাছ রয়েছে। বড় ধরনের কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে ভালো ফলনের আশা করছেন স্থানীয় চাষি ও বাগান মালিকরা।

স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত বছরের চাইতে এ বছর গাছে গাছে আগাম আমের মুকুল আসতে শুরু করেছে। গত বছর প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে আমের মুকুল ঝরে পড়ে। ফলে আশানরূপ মুকুল থেকে আম আসেনি। সংকট দেখা দেয় এ উপজেলার আম সরবরাহেও।

পৌর এলাকার কামরুল হাসান বলেন, এক সপ্তাহ আগে তাদের বেশির ভাগ গাছে আগাম মুকুল এসেছে। পোকামাকড় থেকে রক্ষা করতে প্রাথমিক পর্যায়ে পরিচর্যা শুরু করা হয়। রোগ-বালাইয়ের আক্রমণ থেকে রক্ষা করতে স্থানীয় কৃষিবিভাগের পরমর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ওষধ স্প্রে করছেন বলে জানান।

উত্তর ইউপির চানপুর এলাকার মুর্শিদ মিয়া বলেন, কয়েকটি গাছে আগাম মুকুল আসতে শুরু করেছে। যেসব গাছে মুকুল এসেছে রোগ-বালাইয়ের আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে প্রাথমিক পরিচর্যা শুরু করা হয়েছে বলে জানান।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ছত্রাকজনিত রোগে আমের মুকুল, ফুল ও গুটি আক্রান্ত হতে পারে। এ রোগ গাছের ক্ষতি করে। এ জন্য তারা নিয়মিত লোকজনকে পরামর্শ দিচ্ছেন।


আপনার মন্তব্য

এই বিভাগের আরও খবর