শিরোনাম
প্রকাশ : রবিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ৩ এপ্রিল, ২০২১ ২৩:৪৭

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ বিল সংসদে

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

বন্দরে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার বিধানসহ পণ্য পরিবহনের টোল, রেট, মাশুল ফাঁকি দিলে জেল-জরিমানার বিধান রেখে ‘মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ বিল-২০২১’ উত্থাপিত হয়েছে সংসদে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনের গতকালের বৈঠকে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বিলটি উত্থাপন করেন। ‘দ্য  মোংলা পোর্ট অথরিটি অর্ডিন্যান্স-১৯৭৬’ রহিত করে নতুন আইন করতে বিলটি সংসদে আনা হয়েছে। বিলটি অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দুই মাসের মধ্যে সংসদে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। বিলে কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব পালনে প্রয়োজনীয় সংখ্যক কমিটি গঠনে বিধানসহ বন্দরের বিভিন্ন এলাকা ও স্থানকে সংরক্ষিত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করার বিধান রাখা হয়েছে। এ ছাড়া বিলে বন্দরের কোনো স্থাপনা ও সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে বিধি দিয়ে নির্ধারিত মেয়াদ, শর্ত ও পদ্ধতিতে অনুমতি দেওয়ার বিধান রাখা হয়েছে। আগের আইনে এটা ছিল না। নতুন আইনে বন্দরে পণ্য বোঝাই, সংরক্ষণ, খালাস ও সরবরাহের জন্য প্রয়োজনে প্রচলিত পদ্ধতি অনুসরণ করে অপারেটর নিয়োগের বিধানও সংযোজন করা হয়েছে। বিলে বলা হয়েছে, এই আইনের অধীন বন্দরে যে অপরাধ হবে  সেগুলো ফৌজদারি কার্যবিধি অনুযায়ী বিচার হবে,  মোবাইল  কোর্টের বিধান রাখা হয়েছে। বিলে কেউ যদি  টোল, রেট, মাশুল ইত্যাদি ফাঁকি দেয়, তবে একমাসের  জেল অথবা এক লাখ টাকা জরিমানা কিংবা উভয় দন্ডের বিধান রাখা হয়েছে। বিলে বলা হয়েছে, প্রয়োজনে   দেশের যে কোনো স্থানে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের কার্যালয় স্থাপন করা যাবে।

এই বিভাগের আরও খবর