শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ৩ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ২ মে, ২০২১ ২৩:৩৮

ভ্যাট কমান, অযৌক্তিক টার্গেটে প্রবৃদ্ধি হবে না

মো. ফরিদ উদ্দিন

ভ্যাট কমান, অযৌক্তিক টার্গেটে প্রবৃদ্ধি হবে না

আসছে ২০২১-২২ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে ভ্যাটের হার ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৭ শতাংশে নামিয়ে আনার পরামর্শ দিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সাবেক সদস্য মো. ফরিদ উদ্দিন। তিনি বলেছেন, বাস্তবতা মেনে নিয়ে ভ্যাটের হার সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ নির্ধারণ করে, তা তিনটি স্তরে বাস্তবায়ন করা উচিত। এতে রাজস্ব আয় বাড়বে। এবার সংকুচিত বাজেট প্রণয়নের পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, আগামী বাজেট অযৌক্তিক রাজস্ব টার্গেটে প্রবৃদ্ধি হবে না। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন এনবিআরের ভ্যাট ও শুল্ক বিভাগের সাবেক সদস্য মো. ফরিদ উদ্দিন। রাজস্ব প্রশাসনের অভিজ্ঞ এই কর্মকর্তা মহামারী করোনাভাইরাসের চলমান বাস্তবতা তুলে ধরে বলেন, এবারের বাজেট খুব সতর্কভাবে করতে হবে। কারণ মহামারী করোনাভাইরাসের ভয়াবহ প্রভাবে দেশের মানুষের আয় কমে গেছে। ফলে বাজেটের আকারও কমাতে হবে। এখন বড় বাজেট তৈরির সময় নয়। বড় রাজস্ব আয়ের টার্গেট এ বাজেটে করা যাবে না। তিনি বলেন, বিপর্যস্ত স্থানীয় শিল্পে কিছুটা রাজস্ব ছাড় দিতে হবে। ভ্যাটের হার কমাতে হবে। দেশের চলমান অর্থনৈতিক বাস্তবতায় ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট হতে পারে না। তাই ভ্যাটের হার কমিয়ে সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ করা উচিত। একই সঙ্গে এই ভ্যাট একাধিক স্তর হতে পারে। এ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ দুই থেকে তিন স্তরের ভ্যাট হার হতে পারে। গরিব মানুষের খাবারে ২ শতাংশের বেশি ভ্যাট আরোপ উচিত হবে না। এনবিআরের সাবেক এই সদস্য বলেন, এবারের বাজেটে অগ্রিম আয়কর বা এআইটি প্রত্যাহার করা উচিত। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের উৎসে কর কমাতে হবে। সেবা খাতে করপোরেট কর ৩৫ শতাংশই রাখা উচিত। সব মিলিয়ে এবারের বাজেটে ভ্যাট ও কর দুটোই কমাতে হবে। এটি যৌক্তিকভাবে করতে পারলে রাজস্ব আয় বাড়বে। ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের রাজস্ব টার্গেট অযৌক্তিক। আমি মনে করি, চলতি অর্থবছরে আদায় হওয়া রাজস্বের ওপর ১০ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি ধরা ঠিক হবে না। কিন্তু বাজেটে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি নাটকীয় ছাড়া কিছু হবে না। পাশাপাশি রাজস্ব বাজেটে চাপ কমাতে উন্নয়ন প্রকল্প কিছুটা কমিয়ে আনতে হবে।’