শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১২ মে, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১১ মে, ২০২১ ২২:৫৪

নারীকাণ্ডে ক্ষুব্ধ তৃণমূল সদস্যরা

হেফাজতের অভ্যন্তরে চলছে বিভক্তি-বিভাজন

মুহাম্মদ সেলিম, চট্টগ্রাম

Google News

শীর্ষ নেতাদের একের পর এক নারী কেলেঙ্কারিতে চরম ইমেজ সংকটে পড়েছে ধর্মভিত্তিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। এরই মধ্যে হেফাজতের সদ্যবিলুপ্ত কমিটির যুগ্মমহাসচিব ও প্রচার সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। নাশকতার মামলা তদন্ত করতে গিয়ে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের সন্ধান পাওয়া গেছে কেন্দ্রীয় আরও কয়েক নেতার। ধর্মীয় আদর্শভিত্তিক এ সংগঠনের নেতাদের যৌন কেলেঙ্কারি প্রকাশ্যে আসায় চরম বিব্রত হেফাজত নেতৃত্ব। ক্ষুব্ধ সংগঠনটির তৃণমূল সদস্যরা।

চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক বলেন, ‘মামলা তদন্ত করতে গিয়ে হেফাজতের সাবেক প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া নোমান ফয়জীর একাধিক বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের তথ্য মিলেছে। তাদের মধ্যে এক নারীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মামলাও হয়েছে।’

হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা যুগ্মমহাসচিব মাওলানা মাঈনুদ্দীন রুহী বলেন, ‘যারা ধর্মীয় ছদ্মবেশে ব্যভিচার করে তারা সমাজের কীট। তাদের নারী কেলেঙ্কারিতে হেফাজতের প্রবীণ আলেম থেকে শুরু করে তৃণমূল নেতা-কর্মী সবাই বিব্রত ও ক্ষুব্ধ। আমরা চাই তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক।’ নাশকতা মামলা তদন্ত করছেন এমন একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘নাশকতা মামলা তদন্তকালে উঠে আসছে হেফাজত নেতাদের নারী কেলেঙ্কারির কেচ্ছা। তদন্তে দেখা গেছে বেশ কয়েকজন নেতা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক রক্ষা করছেন।’

জানা যায়, হেফাজতের আমির আল্লামা আহমদ শফীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে সংগঠনটি দুই ধারায় বিভক্ত হওয়ার পর প্রকাশ্যে আসে শীর্ষ

কয়েকজন নেতারা যৌন কেলেঙ্কারি। এ সময় আল্লামা আহমদ শফী অনুসারীরা আল্লামা বাবুনগরীপন্থি কয়েক নেতার বিরুদ্ধে সমকামিতার অভিযোগ তুলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে স্ট্যাটাস দেন। বিষয়টিকে কেন্দ্র করে হেফাজতের দুই গ্রুপই একে অন্যকে অভিন্ন অভিযোগে অভিযুক্ত করতে থাকে। সদ্যবিলুপ্ত কমিটির যুগ্মসম্পাদক মাওলানা মামুনুল হকের সোনারগাঁকান্ডে পর হেফাজত নেতাদের নারী কেলেঙ্কারি আরেক দফায় প্রকাশ্যে আসে। ৩০ এপ্রিল জান্নাত আরা ঝর্ণা বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে সোনারগাঁ থানায় মামলাও করেন। সদ্যবিলুপ্ত কমিটির প্রচার সম্পাদক মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জীর বিরুদ্ধে উঠেছে বেশ কয়েকজন নারীর সঙ্গে বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ। গ্রেফতারের পর তার মোবাইলে বিভিন্ন নারীকে দেওয়া অসংখ্য কুরুচিপূর্ণ মেসেজ পেয়েছে পুলিশ। গ্রেফতারের দুই দিন পর তার বিরুদ্ধে হাটহাজারী থানায় ধর্ষণ মামলা করেছেন এক যুবতী। মামলার অভিযোগে বলা হয়, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জাকারিয়া দুই বছর টানা ধর্ষণ করেছেন ওই যুবতীকে। হেফাজতের আরেক নেতা ‘শিশু বক্তা’ হিসেবে পরিচিত মাওলানা রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতারের পর তার মোবাইলে মিলেছে অসংখ্য অশ্লীল ভিডিও। এ সময় প্রশাসনের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, শিশু বক্তা নিয়মিতই অশ্লীল ভিডিও দেখতেন। এ সময় তার বিয়ে নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। সম্প্রতি ঢাকা ও চট্টগ্রামে হওয়া নাশকতার ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে আরও কয়েক নেতার বিবাহবহির্ভূক্ত সম্পর্কের সন্ধান পেয়েছে প্রশাসন। এমনকি কিছু নেতার বিরুদ্ধে সমকামিতার অভিযোগও পাওয়া গেছে।

এই বিভাগের আরও খবর