শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ জুলাই, ২০২১ ২৩:৩৯

কৃষি

শখের ছাদবাগানে পুষ্টির চাহিদা পূরণ

সাইফুল ইসলাম বেগ, বিশ্বনাথ (সিলেট)

শখের ছাদবাগানে পুষ্টির চাহিদা পূরণ
Google News

গাছের প্রতি ভালোবাসা থেকেই ঘরের ছাদে গড়ে তুলেছিলেন ফল, ফুল ও সবজি বাগান। শুরুর আট মাস পর থেকে বাগানে উৎপাদন শুরু হয় নিরাপদ ফল-মূল ও সবজির। সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার শৌখিন  বাগানি শেখ আফজাল হোসাইনেরর শখের ছাদবাগানই এখন হয়ে উঠেছে পরিবারের প্রতিদিনের পুষ্টি চাহিদার উৎস। বসতঘরের ছাদে বিদেশি কবুতর পালনের পাশাপাশি নান্দনিক বাগান গড়ে তুলেছেন উপজেলার সদর ইউনিয়নের উত্তর ধর্মদা গ্রামের বৃক্ষপ্রেমী এ যুবক। সরেজমিন তার ছাদবাগানে গিয়ে দেখা যায়, বসতঘরের ছাদ ব্যবহার করে নিজের মতো করে গড়ে তুলেছেন ছাদবাগান। বাগানে শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন জাতের মৌসুমি ফল, ফুল ও সবজি। ঝুলছে সূর্য ডিম (Egg of Sun), কাটিমন ও চিয়াংমাই (চাইনিজ)-সহ বিভিন্ন প্রজাতির আম। এ ছাড়া আছে আরবের ফল ত্বিন, ড্রাগন, ভুটান ও পাকিস্তানি কমলা, বারি মালটা, ডালিম, লেবু, পেয়ারা, জাম্বুরা, অস্ট্রেলিয়ান ও পাকিস্তানি ভাগুয়া আনার। ফলের পাশাপাশি আছে সবজি ও বিভিন্ন প্রকারের ফুলের গাছ।

তার সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, পড়ালেখা শেষ করে ব্যবসা-বাণিজ্যে মনোযোগী হন। পাশাপাশি বসতঘরের ছাদের এককোনে প্রথমে গড়ে তোলেন বিদেশি কবুতরের খামার। বর্তমানে তিনি উপজেলার সফল কবুতর খামারি। পরে একপর্যায়ে গেল বছর শখের বসে করেন ছাদবাগান। এতে সব মিলিয়ে খরচ হয় ৩০-৩৫ হাজার টাকা। কেবল অবসরে সময় দিলে সহজেই এরকম বাগান করা সম্ভব। এ থেকে ১২ মাসই ফল ও সবজি পাওয়া যায়। যা থেকে আমার পরিবারের নিত্যদিনের পুষ্টির চাহিদা মিটছে। এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কনক চন্দ্র রায় বলেন, আমরা ছাদবাগানের পরামর্শ দিয়ে থাকি।

এ থেকে ভেজাল ও বিষমুক্ত ফল ও সবজি উৎপাদিত হয়। সৌন্দর্য ও চিত্তবিনোদনের ব্যাপারও আছে। পাশাপাশি মেটে অক্সিজেনের চাহিদা। আগামী দিনে ছাদবাগানের মাধ্যমেও পুষ্টি চাহিদা পূরণ হবে।