শিরোনাম
প্রকাশ : বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৩ জুলাই, ২০২১ ২৩:১৫

লেখা চুরির প্রতিবাদ করে চাকরিচ্যুত শিশু হাসপাতালের চিকিৎসক

বহাল তবিয়তে সেই চিকিৎসক

নিজস্ব প্রতিবেদক

Google News

গবেষণার লেখা চুরির প্রতিবাদ করায় চাকরিচ্যুত হয়েছেন ঢাকা শিশু হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. সাব্বির করিম। তারই এক সহকর্মীর বিরুদ্ধে তিনি এই অভিযোগ উত্থাপন করেন। ডা. সাব্বির চাকরিচ্যুত হলেও বহাল তবিয়তে রয়েছেন যার বিরুদ্ধে অভিযোগ সেই চিকিৎসক ডা. আয়ুব আলী। কয়েক দফা নিয়ম বহিভর্‚তভাবে বাগিয়ে নিয়েছেন পদোন্নতিসহ নানা সুবিধা। এদিকে ডা. আয়ুব আলীর সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি কেন অবৈধ হবে না- জানতে চেয়ে গত ২৯ জুন হাই কোর্ট রুল জারি করেছে। রুলে স্বাস্থ্যসচিব, ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক, উপ-পরিচালক, সহকারী পরিচালক (প্রশাসন), প্রশাসনিক কর্মকর্তা, পরিচালনা বোর্ড, নিয়োগ কমিটি-১ এবং আয়ুব আলীকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়। কিন্তু রুল জারির চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দেওয়ার আগেই গত রবিবার ডা. সাব্বিরকে চাকরিচ্যুত করায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাসপাতালের অনেক চিকিৎসক। একই সঙ্গে দফায় দফায় চৌর্যবৃত্তির অভিযোগ ওঠা সেই চিকিৎসকের ব্যাপারে গতকাল পর্যন্ত কোনো তদন্ত কমিটি গঠন না করায় বিস্ময় প্রকাশ করেন তারা। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শিশু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক শাফি আহমেদ মুয়াজ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, আমরা এখনো উচ্চ আদালতের কোনো কাগজ হাতে পাইনি। তবে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা ঠিক হবে না। ডা. সাব্বিরের চাকরিচ্যুতির কারণ হিসেবে তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ ছিল। বোর্ড অব ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত অনুসারে তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়। ডা. আয়ুব বহাল তবিয়তে কেন? জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনি এখন পদোন্নতি পেয়েছেন। তবে তার বিরুদ্ধে অভ্যন্তরীণ তদন্ত হচ্ছে না তা কিন্তু বলা হয়নি।  জানা গেছে, বিভিন্ন জার্নালে প্রকাশিত অন্যের গবেষণা প্রতিবেদন নকল করেছিলেন ডা. আয়ুব আলী। এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করেন ডা. সাব্বির। শুনানি শেষে গত ২৮ জুন বাংলাদেশ মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) কর্তৃপক্ষকে কারণ দর্শানোর রুল জারি করে হাই কোর্ট। শিশু হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ডা. আয়ুবের এই চৌর্যবৃত্তির বিষয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার বিষয়ে কোনো তদন্ত কমিটি গঠন করেনি। এমনকি তাকে একবারের জন্য ডেকে জিজ্ঞাসাবাদও করেনি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ডা. আয়ুব গত ২১ ডিসেম্বর থেকে ঢাকা শিশু হাসপাতালে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। বিতর্কিত এই চিকিৎসক রাজশাহী মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাস করার পর ২০০৭ সালে শিশু হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার হিসেবে যোগ দেন। ২০১৬ সালে নিয়মবহিভর্‚তভাবে তিনি সহকারী অধ্যাপক পদোন্নতি পান। নিয়ম অনুযায়ী মেডিকেল অফিসার থেকে রেজিস্ট্রার হিসেবে তার পদোন্নতি পাওয়ার পরই তার সহকারী অধ্যাপক পদোন্নতি পাওয়ার কথা। আদালত ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত শিশু সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. হাসানুজ্জামান শিশু হাসপাতালে এমএস সম্পন্ন করেন। তার থিসিসের শিরোনাম ছিল ‘Patio repair’। আর সেই গবেষণার বেশির ভাগ তথ্য, পরিসংখ্যান, কেস স্টাডি এবং ফলাফল নকল করে পরবর্তীতে ২০১৫ সালের নভেম্বর মাসের ইস্যু-৩১, ভলিউম-২ জার্নালে নিজের গবেষণাপত্র প্রকাশ করেন ডা. আয়ুব। পরবর্তীতে ২০১৭ সালে তিনি রেজিস্ট্রার না হয়েই সরাসরি সহকারী অধ্যাপক হন। নেপাল মেডিকেল কলেজ টিচিং হাসপাতালের জার্নালে প্রকাশিত শিশু সার্জারি বিভাগের ডা. জেসমিন ব্রজাচারিয়ার গবেষণার শিরোনাম ছিল ‘Surface staroid in microfelic hypospadias’। তা প্রকাশ হয় ২০১৮ সালে। অথচ একই টাইটেল এবং বিষয়বস্তু হুবহু নকল করেন ডা. আয়ুব। এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ) শিশু হাসপাতাল ইউনিটের সভাপতি ডা. আয়নাল হক বলেন, ডা. সাব্বিরকে বাধ্যতামূলক অবসরে পাঠানোর বিষয়টি আমি শুনেছি। এটা হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের বিষয়। তারা কী কারণে তাকে অবসরে পাঠিয়েছেন তা আমার জানা নেই। গবেষণাকর্ম চুরির যে বিষয়টি সামনে এসেছে তা আদালতে বিচারাধীন। তাই এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করব না। এদিকে রিটকারীর আইনজীবী গোলাম রব্বানী শরীফ বলেন, রুল জারির পরও জবাব না দিয়ে ঢাকা শিশু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ উল্টো ডা. সাব্বিরকে চাকরিচ্যুত করার বিষয়টি হাই কোর্টের নজরে আনা হবে।