বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট, ২০২১ ০০:০০ টা

সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ দ্রব্যমূল্যের বৈঠক

চিনির দাম বেঁধে দেওয়া হতে পারে সেপ্টেম্বরে

নিজস্ব প্রতিবেদক

চিনির দাম প্রতি কেজি ৮০ থেকে ৮৫ টাকায় ওঠার পর পণ্যটির দাম কমাতে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ডাকা বৈঠক কোনো ধরনের সিদ্ধান্ত ছাড়াই শেষ হয়েছে। বৈঠকে পণ্যটির সাম্প্রতিক দরবৃদ্ধি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে ব্যবসায়ীদের বলা হয়, চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম নিয়ে যেন কোনো ধরনের অস্থিরতা তৈরি না করা হয়। জবাবে ব্যবসায়ীরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ায় দেশে চিনির কেজি ৭৫ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মজুদ, সরবরাহ, আমদানি, মূল্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক এবং স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে গতকাল সচিবালয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে এ বৈঠকের আয়োজন করে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। এতে সভাপতিত্ব করেন বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ। বৈঠক শেষে সচিব বলেন, আমরা ব্যবসায়ীদের নিয়ে বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেছি। এটি ছিল বছরের প্রথম বৈঠক, তাই ওইভাবে কোনো সিদ্ধান্তের কথা বলা যাচ্ছে না। আমরা ব্যবসায়ীদের নিয়মনীতি মেনে ব্যবসা করার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছি। উনারাও আমাদের কাছে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। দ্রব্যমূল্য নিয়ে সরকারের পদক্ষেপ তুলে ধরে বাণিজ্য সচিব জানান, সরকারি প্রতিষ্ঠান টিসিবির মাধ্যমে ভর্তুকি মূল্যে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য খোলা বাজারে বিক্রয় অব্যাহত রেখেছে। গত বছরের চেয়ে এবার প্রায় আড়াই গুণ বেশি পণ্য বিক্রয় করা হচ্ছে। অন্যায়ভাবে পণ্যের মজুদ করলে বা কৃত্রিম উপায়ে মূল্য বৃদ্ধির চেষ্টা করা হলে সরকার আইন মোতাবেক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। চিনির দাম নির্ধারণ হয়েছে কি-না এমন প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আমদানি ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য (আইআইটি) এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, আমরা চিনির আন্তর্জাতিক মূল্য পরিস্থিতি পর্যালোচনা করছি। এ মুহূর্তে দাম নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, তারা ৭৫ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি করছেন। মূল্য পর্যালোচনা শেষে সামনের মাসে ভোজ্যতেলের মতো চিনির দামও বেঁধে দেওয়া হতে পারে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপারসন এবং সাবেক সিনিয়র সচিব মো. মফিজুল ইসলাম, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) মো. হাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত সচিব (আইআইটি) এ এইচ এম সফিকুজ্জামান, ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের সদস্য আবু রায়হান আল-বেরুনী, টিসিবির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আরিফুল হাসানসহ সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতর ও ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিরা।