বৃহস্পতিবার, ২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ টা

পাহাড়ে উন্নয়ন হলেও বন্ধ হয়নি রক্তপাত

পার্বত্য শান্তি চুক্তির দুই যুগ পূর্তি আজ

ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি

পার্বত্য শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের দুই যুগ পূর্তি আজ। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে শান্তিচুক্তি স্বাক্ষর করেছিল তৎকালীন শান্তিবাহিনীর নেতা বর্তমানে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় সন্তু লারমা। চুক্তি স্বাক্ষরের মধ্য দিয়ে অবসান ঘটে সশস্ত্র গ্রুপ শান্তিবাহিনীর দীর্ঘ প্রায় দুই দশকের রক্তপাত। স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার ওয়াদাবদ্ধ হন শান্তিবাহিনীর সশস্ত্র আন্দোলনকারী সদস্যরা। চুক্তির মাধ্যমে নতুন পরিচয় লাভ করে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি-জেএসএস নামে। এরপর আওয়ামী লীগ সরকারের আন্তরিকতায় নানা পরিবর্তন আসে তিন পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানে। উন্নয়নে বদলে যায় পাহাড়ি জনপদ। বিদ্যালয়, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও সড়ক, সেতুতে আধুনিকতার ছোঁয়ায় বদলে যায় পাহাড়। তবু যেন পাহাড়ি মানুষের আক্ষেপ কাটেনি। কারণ এখনো বন্ধ হয়নি রক্তপাত। ফিরে আসেনি পাহাড়ে শান্তি। চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসকান্ডে অতিষ্ঠ পাহাড়বাসী।

অভিযোগ রয়েছে, চুক্তি মানা না মানা নিয়ে পার্বত্যাঞ্চলে বেড়েছে ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত। নতুন করে সৃষ্টি হয় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর চারটি সশস্ত্র আঞ্চলিক সংগঠন। পাহাড়ে ভ্রাতৃঘাতী সংঘাত বেড়ে যাওয়ায় চুক্তির সব অর্জন ম্লান হয়ে গেছে বলে দাবি করেছেন বাঙালিরা।

পার্বত্য চট্টগ্রাম ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি মো. শাহাদৎ ফরাজি সাকিব বলেন, ‘কোনো সশস্ত্র সন্ত্রাসী প্রধানের সঙ্গে চুক্তি করে পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়। সরকার যাদের নিয়ে চুক্তি করেছে তারা চুক্তি মানে না। লোক দেখানো শান্তিচুক্তি করে পাহাড়ে অশান্তির দাবানল তৈরি করেছে পাহাড়ি সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। চুক্তির আগে শান্তিবাহিনী নামে সন্ত্রাসী গ্রুপ ছিল একটা। কিন্তু চুক্তির পর চারটি ভিন্ন ভিন্ন নামে প্রকাশ পায় সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ। তাদের অবৈধ অস্ত্র ও চাঁদাবাজির কাছে জিম্মি পাহাড়ের সাধারণ মানুষ।’ তিনি বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির পর পাহাড়ে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী ও বাঙালির মধ্যে যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে তার অবসান হবে কি না এ নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। তবে চুক্তি বাস্তবায়ন করতে হলে পাহাড়ে রক্তপাত অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। আর রক্তপাত বন্ধ করতে হলে পাহাড়ে প্রশাসনের তৎপরতা বাড়াতে হবে।’ একই সঙ্গে পার্বত্য চট্টগ্রামের সব সম্প্রদায়ের জনসংখ্যার আনুপাতিক হারে প্রতিনিধি নিয়োগ নিশ্চিতপূর্বক পার্বত্য চুক্তি পুনর্মূল্যায়ন করার দাবি জানান তিনি। অন্যদিকে সরকারি দলের বক্তব্য- সরকার পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের জন্য আর কোনো ধারা অবশিষ্ট রাখেনি। চুক্তির মূল ধারাগুলো সরকার অনেক আগেই বাস্তবায়ন করে দিয়েছে। তাহলে কেন পাহাড়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা হবে না? কেনই বা রক্ত ঝরবে? সন্তু লারমা শান্তি প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি দিয়ে চুক্তি স্বাক্ষর করেছিলেন। তাহলে আজ কেন পাহাড়ে রক্তপাত বন্ধ করতে তার কোনো ভূমিকা নেই। কেনই বা তিনি নীরব? রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মুছা মাতব্বর বলেন, ‘পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন সংশোধন নিয়ে জনসংহতি সমিতির যে দাবি ছিল তা-ও বাস্তবায়ন করেছে সরকার। তাদের ইচ্ছামতো ভূমি কমিশন গঠন করা হয়েছে। তার পরও যদি তারা দাবি করে পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন হয়নি তাহলে সে কথাটা কতটুকু যৌক্তিক তা আমার জানা নেই। সন্তু লারমার কাছে আমাদের প্রশ্ন- পাহাড়ে কেন এখনো অস্ত্রের ঝনঝনানি চলছে? কেন রক্ত ঝরছে? সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, চাঁদাবাজি, অস্ত্রবাজি, গুম, খুন কবে বন্ধ হবে পাহাড়ে? সে প্রশ্নের জবাব তাদের দিতে হবে।’ তবে এ বিষয়ে কথা বলতে নারাজ পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির শীর্ষ নেতারা। সংশ্লিষ্ট তথ্যসূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৮ সালের ২ ফেব্রুয়ারি চুক্তি অনুযায়ী খাগড়াছড়ি স্টেডিয়ামে শান্তিবাহিনীর ৭৩৯ সদস্যের প্রথম দলটি সন্তু লারমার নেতৃত্বে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অস্ত্র সমর্পণ করে। পরে ১৬ ও ২২ ফেব্রুয়ারি রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে চার দফায় শান্তিবাহিনীর মোট ১ হাজার ৯৪৭ জন অস্ত্র সমর্পণ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসেন। চুক্তির শর্তানুযায়ী সরকার গত ১৯ বছরে প্রত্যাগত শান্তিবাহিনীর সদস্যদের পুনর্বাসন, সেনা ক্যাম্প প্রত্যাহারসহ স্থানীয় সরকার পরিষদ আইন সংশোধন, পার্বত্য ভূমি কমিশন আইন সংশোধন, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ ও পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয় গঠন করে চুক্তির ৭২ ধারার মধ্যে ৪৮টি পুরো বাস্তবায়ন করে। তবে আঞ্চলিক পরিষদসহ তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের নির্বাচন করতে আলাদা ভোটার তালিকা করতে না পারায় পার্বত্য চুক্তির ২৪টি ধারা এখনো বাস্তবায়ন হয়নি। চুক্তি অনুযায়ী জেলা পরিষদগুলোর নির্বাচন না হওয়ায় ১৯৯৯ সালের ১২ মে থেকে সন্তু লারমার নেতৃত্বে পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদে এখনো অন্তর্বর্তীকালীন পরিষদ বহাল রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর