শিরোনাম
মঙ্গলবার, ৩ জানুয়ারি, ২০২৩ ০০:০০ টা

সড়কে ২০২২ সালে নিহত ৯৯৫১

আট বছরে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা বিগত বছরে

নিজস্ব প্রতিবেদক

গত আট বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে বিদায়ী ২০২২ সালে। এ বছর সারা দেশে ৬ হাজার ৭৪৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৯ হাজার ৯৫১ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন ১২ হাজার ৩৫৬ জন; যা আগের বছরের তুলনায় ১৯.৮৯ শতাংশ এবং প্রাণহানি ২৭.৪ শতাংশ বেশি।

গতকাল ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী লিখিত বক্তব্যে এসব তথ্য তুলে ধরেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গণপরিবহন বিশেষজ্ঞ আবদুল হক, ড্রাইভারস ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মো. বাদল আহমেদ, যাত্রী কল্যাণ সমিতির সহসভাপতি তাওহিদুল হক লিটন প্রমুখ।

সংবাদ সম্মেলনে মোজাম্মেল হক বলেন, গত বছর রেলপথে ৬০৬টি দুর্ঘটনায় ৫৫০ জন নিহত এবং ২০১ জন আহত হয়েছে। নৌপথে ২৬২টি দুর্ঘটনায় ৩০৭ জন নিহত এবং একজন নিখোঁজ রয়েছে। সড়ক, রেল ও নৌপথে সর্বমোট ৭ হাজার ৬১৭টি দুর্ঘটনায় ১০ হাজার ৮৫৮ জন নিহত এবং ১২ হাজার ৮৭৫ জন আহত হন বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব বলেন, গত বছর প্রায় ১০ হাজারের ওপর মানুষ মারা গেছেন শুধু সড়ক, রেল ও নৌ দুর্ঘটনায়। বিএনপি ও আওয়ামী লীগ এখন বড় সমাবেশ করার প্রতিযোগিতায় নেমেছে। অথচ এই মানুষদের যদি একসঙ্গে জমায়েত করা যেত, তাহলে বড় সমাবেশের মতো হতো। বিশ্বে বিভিন্ন স্থানে যে যুদ্ধগুলো চলছে সেখানেও এত মানুষ নিহত হয়নি। বর্তমান করোনা প্রেক্ষিতেও এত মানুষ মারা যাননি। সরকারের পক্ষ থেকে সড়কে শৃঙ্খলা ও দুর্ঘটনা রোধে যেসব সংস্থা কাজ করে তাদের কোনো উদ্যোগ ও গবেষণা নেই। বিআরটিএর মতো সংস্থাও সড়ক নিয়ে কোনো গবেষণা প্রতিবেদন তৈরি করে না। গণপরিবহন বিশেষজ্ঞ আবদুল হক বলেন, সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে যুক্ত করা যেতে পারে। তারা যদি উন্নত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সড়কে শৃঙ্খলা আনতে পারেন তাতে মানুষের নিরাপত্তা বাড়বে। সড়ক দুর্ঘটনা বাড়ার কয়েকটি কারণ উল্লেখ করেছে যাত্রী কল্যাণ সমিতি। এর মধ্যে নিবন্ধিত যানবাহনের পাশাপাশি ছোট যানবাহন বিশেষ করে মোটরসাইকেল ও ইজিবাইকের সংখ্যা চার গুণ বৃদ্ধি, ইজিবাইক ও থ্রি-হুইলার সরকারি আদেশ অমান্য করে জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়কে অবাধে চলাচল, বেপরোয়া গতি, বিপজ্জনক ওভারটেকিং, চালকের কর্মঘণ্টা সুনির্দিষ্ট না থাকা অন্যতম কারণ।

 

 

এই রকম আরও টপিক

সর্বশেষ খবর