শিরোনাম
মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২৪ ০০:০০ টা

শৈত্যপ্রবাহ ২২ জেলায়

প্রাথমিকে পাঠদান শুরু সকাল ১০টায়, শীত আরও বাড়তে পারে

প্রতিদিন ডেস্ক

শৈত্যপ্রবাহ ২২ জেলায়

কুয়াশাচ্ছন্ন পরিবেশ। রাজধানীর শ্যামবাজারের লালকুঠিঘাট -জয়ীতা রায়

তাপমাত্রা কয়েক ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে দেশের বিস্তৃত অঞ্চলে ছড়িয়েছে শৈত্যপ্রবাহ। গতকাল পর্যন্ত দেশের ২২টি জেলার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছিল। তাপমাত্রা কমে শীত আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। ঢাকায়ও রাতের তাপমাত্রা ২ ডিগ্রির বেশি কমেছে।

আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, আগামী ২৪ ঘণ্টায় রাতের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা আরও ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত কমে যেতে পারে। একই সঙ্গে বুধবার থেকে চার বিভাগে বৃষ্টি হতে পারে। সকালে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিল দিনাজপুর ও বদলগাছীতে। প্রায় পুরো রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে জেঁকে বসেছে শীত। এক দিনের ব্যবধানে ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে কমে হয়েছে ১২ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। চলতি মৌসুমে ঢাকায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা এর নিচে নামেনি। শীতের তীব্রতা রয়েছে ঢাকায়ও।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মতো ঢাকায়ও বেড়েছে ঘন কুয়াশার দাপট। যদিও গতকাল বেলা ১১টার পর থেকে ঢাকায় মাঝে মাঝে ঘন কুয়াশার আড়াল থেকে সূর্যের দেখা মিলেছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক জানান, অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারা দেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং তা কোথাও কোথাও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। ঘন কুয়াশার কারণে বিমান চলাচল, অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন এবং সড়ক যোগাযোগে বিঘ্ন ঘটতে পারে। এ সময় সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা ১-২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে। যশোর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, টাঙ্গাইল, মাদারীপুর ও কিশোরগঞ্জ জেলা এবং রংপুর (৮ জেলা) ও রাজশাহী (৮ জেলা) বিভাগসহ মোট ২২টি জেলার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে বলেও জানান ওমর ফারুক। তবে মঙ্গল ও বুধবার সারা দেশে রাতের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে। বুধবার ঢাকা, বরিশাল, খুলনা ও চট্টগ্রাম বিভাগে বৃষ্টি হতে পারে। এ ছাড়া দেশের অন্যত্র আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে বলেও পূর্বাভাসে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। পরবর্তী পাঁচ দিনে রাতের তাপমাত্রা কমতে পারে।

বিভিন্ন স্থান থেকে আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

রংপুর : রংপুর বিভাগের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে তীব্র শীত ও হিমেল হাওয়া। এই অবস্থায় রংপুর বিভাগের আরও ৪ জেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।  এর আগে দিনাজপুর ও কুড়িগ্রামের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ষোষণা করা হয়। সোমবার থেকে বন্ধ হওয়া জেলাগুলো হচ্ছে- রংপুর, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, নীলফামারী। এ নিয়ে রংপুর বিভাগের ৮ জেলার মধ্যে ৬ জেলার প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হলো। এই  ৬ জেলায় ৮ হাজারের বেশি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ করা হয়েছে শীতের কারণে। গত সপ্তাহের বৃহস্পতিবার দিনাজপুর, কুড়িগ্রাম ও পঞ্চগড়ের প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। তবে রবিবার পঞ্চগড় জেলার স্কুলগুলো খুলে দেওয়া হলে সোমবার নতুন করে আরও ৪ জেলার স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়। 

রাজশাহী : তীব্র শীতের কারণে রাজশাহীতে গতকালও বন্ধ ছিল প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়। এ দিন রাজশাহীর তাপমাত্রা ছিল ৯ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার (মাউশি) রাজশাহী অঞ্চলের উপপরিচালক ড. শরমিন ফেরদৌস চৌধুরী জানান, এখন থেকে জেলা শিক্ষা অফিসাররা এ-সংক্রান্ত ছুটির নির্দেশনা জারি করবেন। জেলার সব স্কুল বন্ধ না করে যেসব উপজেলায় তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রির নিচে থাকবে, সেসব উপজেলার স্কুল বন্ধ থাকবে।

লালমনিরহাট : অসহনীয় ঠান্ডায় কাঁপছে উত্তরের নদীবিধৌত জেলা লালমনিরহাট। তীব্র শীতের দাপটে সব শ্রেণির মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা কাহিল হয়ে পড়েছে।  ঘরে ঘরে দেখা দিয়েছে ঠান্ডাজনিত রোগ। এ অবস্থায় জেলার সব প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান স্থগিত করেছে শিক্ষা বিভাগ। এদিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয় সোমবার ও মঙ্গলবার দুই দিন বন্ধ ঘোষণা করা হয়। সিভিল সার্জন ডা. নির্মলেন্দু রায় জানিয়েছেন, তীব্র শীতের কারণে জেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া রোগীর সংখ্যা বহুগুণে বেড়েছে। গত ১৪ দিনে ২১৩ জন ঠান্ডাজনিত রোগী চিকিৎসা নিয়েছে। হাসপাতালগুলোতে ভর্তি আছে ৮৭ জন। প্রতিদিনই বাড়ছে রোগীর সংখ্যা।

নীলফামারী : নীলফামারীতে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে যাওয়ায় (২২ ও ২৩ জানুয়ারি) মাধ্যমিকের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ ছাড়া জেলার সব প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ থাকবে। গতকাল সকাল ৯টায় জেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

সিরাজগঞ্জ : সিরাজগঞ্জে একদিকে কনকনে শীত অন্যদিকে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাওয়ার কারণে জেলার সব মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। সকালে সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলিসিয়াস রেকর্ড হয়েছে। চলতি মৌসুমে সিরাজগঞ্জে এটি সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

চুয়াডাঙ্গা : চুয়াডাঙ্গায় বেড়েছে শীতের তীব্রতা। আবারও শুরু হয়েছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। গতকাল সকাল ৯টায় জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসে আর্দ্রতা ছিল ৯০ শতাংশ। এ অবস্থায় সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক গতকাল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শ্রেণি কার্যক্রম বন্ধ করা হলেও চালু ছিল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠাগুলো।

বগুড়া : বগুড়ায় শীতের তীব্রতা বেড়ে ১০ ডিগ্রির নিচে নামার কারণে গতকাল সকালে বগুড়া জেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। তবে প্রাইভেট সেন্টার ও কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশনা না থাকায় যথারীতি চালু রয়েছে। এতে শিক্ষার্থীরা প্রচন্ড শীতের মধ্যে ক্লাস  করছে।

বগুড়া আবহাওয়া অফিসের উচ্চ পর্যবেক্ষক শাহ আলম জানান, সকাল ৯টায় জেলায় এই মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ১ ডিগ্রি রেকর্ড করা হয়েছে। জেলার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এ মাসজুড়েই এমন অবস্থা থাকবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে যাওয়ায় গতকাল  থেকে দুই দিন প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রশিদ ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জেছের আলী এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

গাইবান্ধা :  তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে নেমে আসায় গাইবান্ধায় সব প্রাথমিক বিদ্যালয় এক দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল সকালে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. হারুনর রশিদ এক খুদেবার্তায় এই ছুটির ঘোষণা দেন।

দিনাজপুর : আবার মৃদ্যু শৈত্যপ্রবাহের কবলে দিনাজপুর। হিমেল হাওয়ায় হাড়কাঁপানো শীতের দাপটে কাহিল দিনাজপুরবাসী। তবে সূর্যের দেখা মেলায় জনমনে কিছুটা স্বস্তি। তবে শৈত্যপ্রবাহের কারণে প্রাথমিক বিদ্যালয় বন্ধ করা হলেও হাইস্কুলগুলো খোলা ছিল। 

পাবনা :   ঘন কুয়াশা ও তীব্র শীতের মুখে পাবনার সব উপজেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের একাডেমিক কার্যক্রম এক দিনের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। রবিবার মধ্যরাতে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা ও জেলা শিক্ষা অফিসার স্বাক্ষরিত পৃথক দুটি নোটিসে বিদ্যালয়গুলো বন্ধ রাখার কথা বলা হয়।

ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহে তীব্র শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত। কুয়াশায় আচ্ছন্ন হয়ে থাকছে পথঘাট। এতে কাহিল হয়ে পড়েছে খেটেখাওয়া দরিদ্র মানুষ। গত দুই দিন আগের বৃষ্টিপাতের পর কনকনে ঠান্ডার সঙ্গে শুরু হয়েছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। দুপুর পর্যন্ত সূর্যের দেখা মিলছে না।

প্রাথমিকে পাঠদান শুরু সকাল ১০টায় : চলমান শৈত্যপ্রবাহের কারণে সারা দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদানের সময়সূচির পরিবর্তন করেছে সরকার। নতুন সময়সূচি অনুযায়ী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল ১০টা থেকে পাঠদান শুরুর নির্দেশনা জারি করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত নতুন এই সময়সূচি মোতাবেক পাঠদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে থাকলে বিদ্যালয় বন্ধ-সংক্রান্ত আগের আদেশ বহাল থাকবে বলেও নতুন এই আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ কবির উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আদেশে বলা হয়েছে, সারা দেশে চলমান শৈত্যপ্রবাহের কারণে শিক্ষার্থীদের অসুবিধার কথা বিবেচনায় সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠদান কার্যক্রম আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত সকাল ১০টা হতে শুরু হবে।

 

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর