শিরোনাম
প্রকাশ : ২৪ জুলাই, ২০২১ ১৪:০২
আপডেট : ২৪ জুলাই, ২০২১ ১৪:১৭
প্রিন্ট করুন printer

‘গণসংগীতে ফকির আলমগীরের অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে’

অনলাইন ডেস্ক

‘গণসংগীতে ফকির আলমগীরের অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে’
ফকির আলমগীর
Google News

একাত্তরের কণ্ঠযোদ্ধা, গণসংগীত শিল্পী ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

এক শোক বার্তায় তিনি বলেন, ফকির আলমগীর স্বাধীনতার পর পাশ্চাত্য সংগীতের সঙ্গে দেশজ সুরের মেলবন্ধন ঘটিয়ে বাংলা পপ গানের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। '৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান, '৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলনে তার গান এদেশের সাধারণ মানুষকে উজ্জীবিত করেছে। মহান স্বাধীনতা আন্দোলন ও গণসংগীতে তার অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

করোনায় আক্রান্ত হয়ে শুক্রবার রাতে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ফকির আলমগীর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

ষাটের দশক থেকে গণসংগীতের সঙ্গে যুক্ত ফকির আলমগীর ক্রান্তি শিল্পীগোষ্ঠী ও গণশিল্পী গোষ্ঠীর সদস্য হিসেবে ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে শামিল হন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি যোগ দেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে। স্বাধীনতার পর পাশ্চাত্য সংগীতের সঙ্গে দেশজ সুরের মেলবন্ধন ঘটিয়ে বাংলা পপগানের বিকাশে ভূমিকা রাখেন ৭১ বছর বয়সী এ শিল্পী। সংগীতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য সরকার ১৯৯৯ সালে ফকির আলমগীরকে একুশে পদক দেয়।

১৯৪৯ সালে ভাঙ্গায় জন্মগ্রহণ করেন ফকির আলমগীর। তিনি সাংস্কৃতিক সংগঠন ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠীর প্রতিষ্ঠাতা, গণসংগীত চর্চার আরেক সংগঠন গণসংগীত শিল্পী পরিষদের সাবেক সভাপতি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করা ফকির আলমগীর গানের পাশাপাশি নিয়মিত লেখালেখিও করতেন।


বিডি প্রতিদিন/ফারজানা

এই বিভাগের আরও খবর