৩১ আগস্ট, ২০২২ ১১:১০
কাল ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

টিকে থাকার লড়াইয়ে বিএনপি

শফিকুল ইসলাম সোহাগ


টিকে থাকার লড়াইয়ে বিএনপি

ছিল বিএনপির কর্মসূচি। বাগেরহাটে গতকাল রামদা-হকিস্টিক নিয়ে যুবলীগের অ্যাকশন -বাংলাদেশ প্রতিদিন

আগামীকাল ১ সেপ্টেম্বর প্রতিষ্ঠার ৪৫ বছরে পা দিচ্ছে রাজপথের বিরোধী দল বিএনপি। ৪৪ বছর অতিক্রম করা দলটি এখন হামলা-মামলায় টিকে থাকার লড়াইয়ে। ১৯৭৮ সালে প্রতিষ্ঠার পর বর্তমানে কঠিন চ্যালেঞ্জ নিয়ে টিকে থাকতে হচ্ছে বিএনপিকে।

দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া থেকে শুরু করে এমন কোনো নেতা পাওয়া যাবে না যিনি মামলার ঝামেলায় নেই। দলের ৩৫ লাখ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে লক্ষাধিক মামলা আছে বলে বিএনপির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়। এ অবস্থায় ২২ আগস্ট থেকে সারা দেশে চলছে কর্মসূচি। এসব কর্মসূচিতে দলের নেতা-কর্মীরা হামলা-মামলার শিকার হলেও রাজপথে থাকার অবস্থানে অনড় রয়েছেন তারা। টানা এ কর্মসূচি আগামী ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে দলের পক্ষ থেকে দুই দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। ১৯৭৮ সালে রমনা গ্রিনের সবুজ চত্বরে জিয়াউর রহমান বিএনপির পতাকা ওড়ান। বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও মতের মানুষকে একমঞ্চে এনে ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’ গঠন করেন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ২০১৩ সালের নির্বাচনে অংশ না নিয়ে জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলনের মাধ্যমে তোপের মুখে পড়ে বিএনপি। বিভিন্ন সেলের মাধ্যমে ৩৫ লাখ মামলা মোকাবিলা করার চেষ্টা হচ্ছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনে অংশ নিলেও পাহাড়সমান মামলা নিয়ে নেতা-কর্মীরা নির্বাচনী মাঠে অংশ নিতে পারেননি। এ জন্য ফলাফল বিপর্যয়ের মুখে পড়তে হয়। বিএনপি মনে করে, নিরপেক্ষ নির্বাচন না হওয়ায়, তাদের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিশি হয়রানি হওয়ায় ২০১৮ সালের নির্বাচনে ভালো করতে পারেনি দল।
জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বিএনপি বর্তমানে অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে শক্তিশালী। জিয়াউর রহমান দলটি প্রতিষ্ঠার পর বেগম খালেদা জিয়া দলকে এ পর্যায়ে নিয়ে এসেছেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ জনগণের ভোটাধিকারসহ অনেক অধিকার কেড়ে নিয়েছে। আমরা সব অধিকার ফিরিয়ে আনার সংগ্রামে নেমেছি। আশা করি জয়ী হব।   

প্রায় ১৫ বছর দল ক্ষমতার বাইরে। দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত। সরকারের নির্বাহী আদেশে সাময়িক মুক্তি পেয়ে গুলশান বাসভবনে থাকলেও কার্যত তিনি একরকম বন্দি। নানা অসুখ-বিসুখে দিন কাটে তাঁর। বর্তমানে তিনি রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডনে অবস্থান করছেন। তার বিরুদ্ধেও রয়েছে অর্ধশত মামলা। একটিতে তার যাবজ্জীবন দণ্ড। বিএনপির তিন বছরের নির্বাহী কমিটি ছয় বছর ধরে চলছে। দলীয় সরকারের অধীনে এবার দল নির্বাচনে অংশ নিতে না চাইলেও কেউ কেউ চাপ দিচ্ছেন অংশ নেওয়ার জন্য। সব মিলিয়ে বিএনপির এখন কঠিন দুঃসময় চলছে।

দলের চেয়ারপারসন বন্দি, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেশের বাইরে- কীভাবে দল চলছে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, এত কিছুর পরও বিএনপির একজন নেতা-কর্মী দল ছেড়ে যাননি। কারণ দলের নেতা-কর্মীরা কঠিন সময়েও জিয়ার আদর্শ-দর্শন লালন করে চলেছেন।

আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, বিএনপি আগের চেয়ে সুশৃঙ্খল ও ঐক্যবদ্ধ। নেতা-কর্মীরা জ্বলেপুড়ে খাঁটি সোনায় পরিণত হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের আইনি বাধায় নির্বাচনী ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। এ মুহূর্তে দেশে ফিরে রাজনীতিতে তারও সক্রিয় হওয়া কঠিন। অবশ্য লন্ডন থেকেই তিনি ভার্চুয়ালে দলের হাল ধরার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। বিএনপি নেতারা দাবি করছেন, জেল-হেফাজতে মারা গেছেন সহস্রাধিক, আর গুম হয়েছেন ছয় শতাধিক নেতা-কর্মী। তারপরও বিএনপি সাংগঠনিকভাবে টিকে আছে। দলটি ভাঙেনি। নতুন উদ্যোগে জোট গঠন করা হচ্ছে। উল্লেখযোগ্য কোনো নেতা অন্য দলে যোগ দেননি। মামলায় জর্জরিত হয়েও বিএনপি মাঠ ছাড়েনি। সামনে মূল চ্যালেঞ্জ নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠা করা। সংলাপ করা দলগুলোকেও একযোগে মাঠে নামানো।

জানতে চাইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক হারুন-অর-রশীদ বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দলে নেতৃত্বের সংকট প্রকট। বিএনপির এখন আত্মশুদ্ধি ও আত্মসমালোচনা প্রয়োজন। তারা যদি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ফিরে না আসে, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড পরিহার না করে, ইতিবাচক কর্মসূচি দিয়ে দায়িত্বশীল আচরণ না করে তাহলে দলটির ভবিষ্যৎ অন্ধকার। সবকিছু মিলিয়ে বিএনপি এখন খাদের কিনারে। বাইরের কেনো শক্তি এসে বিএনপিকে ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে না। তাদের জনগণের কাছে পরীক্ষা দিতে হবে।

জানতে চাইলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ বলেন, বিএনপি একটা সাময়িক সংকটে আছে। এ সংকট দীর্ঘ হয়েছে। সংকট উত্তরণে আমরা চূড়ান্ত পর্যায়ে এসে উপনীত হয়েছি। জিয়াউর রহমান যে পরিস্থিতিতে দল গঠন করে দেশকে এগিয়ে নিয়েছিলেন তার দল জানে কীভাবে সংকট উত্তরণ করতে হয়।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি, সিনিয়র সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল বলেন, বিএনপির সাবেক নেতা নাজমুল হুদা বলেছিলেন, বিএনপি কোনো রাজনৈতিক দল নয়, এটি একটি প্ল্যাটফরম। বিভিন্ন আদর্শের নেতা এখানে আসে-যায়। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ বিরোধী একটি অংশ বিএনপিকে সমর্থন করে। তাদের একটি জোটও আছে। কিন্তু গত দেড় দশকে তারা তাদের কর্মসূচিতে নিজস্ব সমর্থক গোষ্ঠীর বাইরে সাধারণ মানুষকে সম্পৃক্ত করতে পারেনি। দলীয় নেতা-কর্মীরা জেল খাটছেন। তিনি বলেন, বিএনপি জনগণের সম্পৃক্ত কোনো ইস্যু নিয়ে মাঠে আসেনি। তারা কীভাবে ক্ষমতায় যেতে পারে সে জন্যই তাদের কর্মসূচি। বিএনপি যদি সাধারণ মানুষের বিষয় নিয়ে কথা বলে, সাধারণ মানুষকে তাদের কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত করতে পারে তাহলেই তারা সামনে এগোতে পারবে।   

সামগ্রিক প্রসঙ্গে ড. মাহবুব উল্লাহ বলেন, সৎ লক্ষ্য নিয়ে যেসব নেতা বা মানুষ কাজ করেছেন তাদের সাধারণ মানুষের মন থেকে মুছে ফেলা সম্ভব নয়। জাতিসমূহের ইতিহাসে অনেক নেতা এবং তাদের অনুসারীরা নির্যাতিত হয়েছেন। তাদের কথা ছিল ভাঙব, কিন্তু মচকাব না। বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দেখছি, খালেদা জিয়াকে ভেঙে ফেলার প্রয়াস চলছে, কিন্তু তিনি মচকাননি। ৭৭ বছর বয়সে তিনি তাঁর বিশ্বাসে অটল রয়েছেন। বাংলাদেশের জনগণ এ জন্য তাঁকে যুগ যুগ মনে রাখবে।

এই রকম আরও টপিক

এই বিভাগের আরও খবর

সর্বশেষ খবর