শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০২:২৪

ভিআইপি এলাকাসহ ঢাকায় আজ ১২ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক

ভিআইপি এলাকাসহ ঢাকায় আজ ১২ ঘণ্টা গ্যাস থাকবে না

গ্যাসের ভালব প্রতিস্থাপন, লিকেজ মেরামত এবং মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজের জন্য আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে আগামীকাল বুধবার সকাল ৬টা পর্যন্ত মোট ১২ ঘণ্টা রাজধানীতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে। ঢাকার ভিআইপিসহ গুরুত্বপূর্ণ বেশ কয়েকটি এলাকা এর মধ্যে রয়েছে। ঢাকার যেসব এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে তার মধ্যে আছে বঙ্গভবন, গণভবন এবং জাতীয় সংসদ ভবনের মতো গুরুত্বপূর্ণ এলাকাও। গতকাল দুপুরে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের প্রধান কার্যালয় কারওয়ান বাজারে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, শিগগিরই অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে তিতাস কর্তৃপক্ষ অভিযান চালানো শুরু করবে।

সংবাদ সম্মেলনে তিতাসের পরিচালক প্রকৌশলী মো. কামরুজ্জামান খান (অপারেশন বিভাগ) জানান, ভিআইপি এলাকার বাইরে ঢাকা সিটি করপোরেশন এলাকার আরও যেসব এলাকায় গ্যাস সরবরাহ বন্ধ থাকবে সেগুলো হচ্ছে- মিরপুর, শ্যামলী, মনিপুরীপাড়া, আগারগাঁও, মোহাম্মদপুর, ধানমন্ডি, কলাবাগান, হাজারীবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, শাহবাগ, গ্রিন রোড, সমগ্র পুরান ঢাকা, গোপীবাগ, স্বামীবাগ, রামপুরা, বনশ্রী, নন্দিপাড়া, মগবাজার, সিদ্ধেশ্বরী, সেগুনবাগিচা, মিন্টু রোড, তেজগাঁও, খিলগাঁও, বাসাবো, মতিঝিল, কমলাপুর ও তদসংলগ্ন এলাকা। এর ফলে এসব এলাকার আবাসিক, বাণিজ্যিক, শিল্প ও সিএনজি স্টেশনের গ্রাহকদের গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখা হবে। তিতাস কর্তৃপক্ষ আশা করছে, শাহবাগ অংশের কাজ শেষ হলে গ্যাস সরবরাহে আর সমস্যা থাকবে না। তবে সাময়িক এই অসুবিধার জন্য তিতাস কর্তৃপক্ষ গ্রাহকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন তিতাসের মহাব্যবস্থাপক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) প্রকৌশলী আবদুল ওয়াহাব তালুকদার ও পাইপলাইন বিভাগের ডিজিএম প্রকৌশলী সামিউল হক খানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখার কারণ হিসেবে বলা হয়েছে, মেট্রোরেল প্রকল্পের জন্য শাহবাগ মোড় এলাকায় তিতাস গ্যাস কোম্পানি পুরনো পাইপের সঙ্গে নতুন পাইপলাইন সংযোগের কাজ করছে। যে পাইপলাইনটি মূল লাইন হিসেবে পুরো ঢাকায় বিস্তৃত আছে। আর পুরনো লাইনের সঙ্গে নতুন লাইনের সংযোগের কাজে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ রাখার প্রয়োজন হয়ে পড়ায় তিতাস সাময়িক এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।


আপনার মন্তব্য